দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস চীনের মহাপ্রাচীর পেলেন জইশ প্রধান মাসুদ আজহার

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২২:০৬, মার্চ ১৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০০:০৮, মার্চ ১৫, ২০১৯

পাকিস্তানভিত্তিক সংগঠন জইশ-ই-মুহাম্মাদের প্রধান মাসুদ আজহারকে ‘বৈশ্বিক সন্ত্রাসী’ হিসেবে আখ্যায়িত করে জাতিসংঘে ভারতের উত্থাপিত একটি প্রস্তাব আটকে দিয়েছে চীন। বুধবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে ভারতের উত্থাপিত প্রস্তাবটিতে সমর্থন দেয় যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়া ও ফ্রান্স। তবে ভেটো ক্ষমতা প্রয়োগ করে এটি নাকচ করে দেয় চীন।  বৃহস্পতিবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস খবরটি শিরোনাম প্রতিবেদন হিসেবে প্রকাশ করেছে।

খবরে বলা হয়েছে, এ নিয়ে গত ১০ বছরের মধ্যে চতুর্থবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে বেইজিংয়ের আপত্তির মুখে মাসুদ আজহারকে ‘বৈশ্বিক সন্ত্রাসী’ ঘোষণার ভারতের চেষ্টা ব্যর্থ করে দিলো চীন। এর আগে ২০১৬ ও ২০১৭ সালে একই প্রস্তাবে ভেটো দিয়েছিল বেইজিং।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে প্রস্তাবটি নাকচ হয়ে যাওয়ায় হতাশা প্রকাশ করা হয়েছে। একইসঙ্গে প্রস্তাবে সমর্থন দেওয়া দেশগুলোকে ধন্যবাদ জানিয়েছে দিল্লি।

বিবৃতিতে বলা হয়, জম্মু-কাশ্মিরে হামলার ঘটনায় মাসুদের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়ার পথ বন্ধ হয়ে গেলো। এ ঘটনায় ভারত হতাশ।

বুধবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের আগে মাসুদ আজহারকে ‘বৈশ্বিক সন্ত্রাসী’ ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। চীন অবশ্য ভোটাভুটির আগের দিনই এ বিষয়ে তাদের ভূমিকা কী হবে তার আভাস দিয়েছিল।

মঙ্গলবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লু কেন বলেন, আগের মতো এবারও দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেবে বেইজিং। আমরা সব মত ও গোষ্ঠীকে মূল্যায়ন করতে চাই। সবার সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমেই বিষয়টির সমাধান করতে আগ্রহী চীন। 

জইশ-এ-মুহাম্মদের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান মাওলানা মাসুদ আজহার। ১৯৯৪ সালে কাশ্মিরে এক মাস কাটিয়েছিলেন। ২০০১ সালে ভারতের পার্লামেন্টে হামলা থেকে শুরু করে পাঠানকোটে সেনাঘাঁটিতে তার নেতৃত্বেই জয়েশ হামলা চালায়। এই সংগঠনই কাশ্মির উপত্যকায় আত্মঘাতী হামলার প্রচলন করে। বিশেষ করে গাড়িতে বিস্ফোরক বসিয়ে বৃহস্পতিবারের মতো হামলা জয়েশ-ই শুরু করে। কাশ্মিরে সাম্প্রতিক সময়ে যতগুলো বড় ধরনের হামলা হয়েছে সবগুলোতেই প্রধান সন্দেহভাজন হিসেবে রয়েছে জয়েশ-এ-মুহাম্মদের নাম।

ভারতীয় গোয়েন্দাদের মতে, কাশ্মির উপত্যকায় এখন তৃতীয় বড় জঙ্গি সংগঠন হলো জয়েশ। তাদের থেকে এগিয়ে রয়েছে হিজবুল মুজাহিদিন ও লস্কর-ই-তৈয়বা। কিন্তু গত দুই বছরে উপত্যকায় সব বড় হামলায় এই সংগঠন জড়িত। 

 

/এএ/

লাইভ

টপ