‘নৃ’ পরিচিতি

Send
ফজল হাসান
প্রকাশিত : ১৩:২১, ডিসেম্বর ১২, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:২৩, ডিসেম্বর ১২, ২০১৮

কিছু কিছু জিনিস আছে, হাতে নিলেই মন চনমনিয়ে ওঠে। কয়েক পলকের জন্য দৃষ্টি স্থির হয়ে যায় এবং কথারা কণ্ঠনালিতে এসে ঘাপটি মেরে থাকে। সিডনির স্থানীয় শিল্প-সাহিত্য সংগঠন ‘কবিতা বিকেল’ আয়োজিত ‘বাংলা সংস্কৃতি উৎসব ২০১৮’ উপলক্ষ্যে প্রকাশিত ‘নৃ’ সংকলনটি হাতে পেয়ে আমারো অবস্থা তথৈবচ।

কিছুক্ষণের মধ্যে মুগ্ধতা কেটে গেলে আমি ‘নৃ’র পৃষ্ঠা ওল্টাতে শুরু করি। সূচিপত্রে এসে থেমে যাই। সাহিত্যের কী নেই ‘নৃ’ সংকলনে?

একটি পূর্ণাঙ্গ সাহিত্য সংকলন পাঠকের কাছে গ্রহণযোগ্য এবং সুখপাঠ্য করে তোলার জন্য যত ধরনের মাল-মশলা এবং আনাজপাতি থাকা প্রয়োজন, এই সংকলনে সবই আছে। সূচিপত্রের শুরুতেই রয়েছে ছোটগল্প এবং তারপর অণুগল্প, ভাষান্তর গল্প, মুক্তিযুদ্ধ, কবিতা, ভাষান্তর কবিতা ও গজল, আর্ট ক্রিটিসিজম, ডায়াস্পোরা, প্রবন্ধ এবং নিবন্ধ দিয়ে একে একে সাজানো হয়েছে একশ’ বারো পৃষ্ঠার সংকলনটি। লিখেছেন বাংলা ভাষার স্বনামধন্য এবং স্বল্প পরিচিত দেশ-বিদেশের বিভিন্ন কথাসাহিত্যিক, কবি এবং প্রাবন্ধিক। ছোটগল্প এবং অণুগল্প লেখকের তালিকার মধ্যে সেলিনা হোসেন, স্বকৃত নোমান, মাসউদ আহমেদ এবং মেহেদী উল্লাহ্ উল্লেখযোগ্য । সংকলনের দুটি ভাষান্তর গল্পের লেখক ফজল হাসান ও অনীলা পারভীন, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা লিখেছেন প্রবাসী কবি মাহমুদা রুনু, কবিদের তালিকায় আছেন জাহিদ সোহাগ, ফকির ইলিয়াস, মজনু শাহ ও পিয়াস মজিদ এবং শাখাওয়াৎ নয়ন ভাষান্তর করেছেন কবিতা ও গজল । এছাড়া এই সংকলনে সুব্রত অগাস্টিন গোমেজ এবং সৈকত হাবিব সহ অনেকের বিভিন্ন বিষয়ের ওপর লেখা স্থান পেয়েছে।

‘নৃ’ সম্পাদনা করেছেন সিডনি প্রবাসী কলাম লেখক ও কথাসাহিত্যিক শাখাওয়াৎ নয়ন। নান্দনিক প্রচ্ছদে ব্যবহৃত শিল্পকর্মটি শিল্পী রবি খানের ‘ওয়ান্টস্ টু ফ্লাই’। এছাড়া প্রচ্ছদে ব্যবহার করা হয়েছে নৃ-এর লোগো। এই লোগোর ন-এর নিচে ঋ-কার আসলে অস্ট্রেলিয়ার আদিবাসীদের অন্যতম প্রতীক ‘বুমেরাং’। নিঃসন্দেহে এই প্রতীক ব্যবহার বহুমুখী সংস্কৃতির পরিচয় বহন করে। 

মনোমুগ্ধকর, সুখপাঠ্য এবং নান্দনিক একটি সাহিত্য সংকলন প্রকাশের জন্য সম্পাদক এবং অন্যান্য কুশীলব নিঃসন্দেহে ধন্যবাদ পাবার যোগ্যতা রাখেন। 

 

 

 

//জেডেএস//

লাইভ

টপ