পুরস্কার পাওয়ার পর দুঃখ ঘুচবে : মোহিত কামাল

Send
.
প্রকাশিত : ১৮:২৩, জানুয়ারি ২৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:২৫, জানুয়ারি ২৮, ২০১৯

২০১৮ সালে কথাসাহিত্যে মোহিত কামাল বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন। আজ এই সংবাদ ঘোষিত হলে ফোনে তার অনুভূতি গ্রহন করা হয়।কথাসাহিত্যে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পাওয়ায় আমি আনন্দিত। আমি সাহিত্যের সাথে জড়িত শিশুকাল থেকেই। আমি ক্লাস ফাইভ থেকেই নবাঙ্কুর কচিকাঁচার সাথে জড়িত ছিলাম, তখন থেকেই ছড়া-কবিতা লিখি। তখন থেকেই আমার বুনিয়াদ গড়া। এরপর অনেক চড়াই উৎরাই ছিলো, কিন্তু আমি লেগেই ছিলাম। কিন্তু আমাকে কথাসাহিত্যিক হিসেবে অনেকেই বিবেচনা করেছে ৯০ দশকের গোড়ার দিক থেকে। ততদিনে আমি কিন্তু ডাক্তার হয়ে গেছি। আমার বই যখন ভালো বিক্রি হতে শুরু করে তখন আমি এসোসিয়েট প্রফেসর হয়ে গেছি। মানুষ দেখতো তখন আমার ডাক্তার সত্তাটাকে, কিন্তু শিশুকাল থেকেই যে সাহিত্যের সাথে নিজেকে সংশ্লিষ্ট রেখেছিলাম সেই বিষয়টাকে সে তুলনায় একটু ছোট করে হয়তো দেখা হতো। কিন্তু আমি তো ডাক্তার হওয়ার আগে থেকেই লেখক। তবু সেই প্রথম দিকে আমাকে ডাক্তার হিসেবেই বেশি বিবেচনা করা হতো। তখন আমার কাছে বেশ খারাপও লাগতো কারণ সাহিত্য ব্যাপারটি আমার কাছে এতো ব্যাপক এবং বিশাল। সে কারণে কেউ আমাকে কথাসাহিত্যিক বললে আমার খুব আনন্দ লাগতো। কিন্তু আমি কোথাও গেলে সবাই অধ্যাপক মোহিত কামাল বলে অভিহিত করতেন, এজন্য দুঃখ ছিলো। আশা করি এই পুরস্কার পাওয়ায় সেই দুঃখ ঘুচবে।

এপর্যন্ত কথাসাহিত্যে আমার ৪১টি বই প্রকাশিত হয়েছে, এই ৪১টি বইয়ের মধ্যে ১০টি শিশু-কিশোরদের নিয়ে আর বাকি ৩১টি গল্প এবং উপন্যাস মিলিয়ে। এছাড়া আমার ১০টি বিভিন্ন গবেষণা গ্রন্থ রয়েছে। সবশেষে এই পুরস্কার প্রাপ্তিতে বাংলা একাডেমিকে আমি আবারো ধন্যবাদ জানাচ্ছি।  

শ্রুতিলিখন : আবীর আদনান।

বাংলা একাডেমি পুরস্কার ২০১৮ প্রাপ্তরা হলেন, কবিতায় কাজী রোজী, প্রবন্ধ ও গবেষণায় সৈয়দ মোহাম্মদ শাহেদ, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সাহিত্যে আফসান চৌধুরী। 

//জেডএস//

লাইভ

টপ