behind the news
Rehab ad on bangla tribune
Vision Led ad on bangla Tribune

জাহাঙ্গীরনগর ও গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজনে ভাষা ও সংস্কৃতি নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলন

গণ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি০৩:৪৪, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০১৬

শেষ হলো ‘জনজীবন, ভাষা ও সংস্কৃতি’ বিষয়ক তিন দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সম্মেলন। একাধিক সেমিনার, পারস্পারিক জ্ঞান বিনিময় আর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শেষ হলো প্রতিবেশীকে জানার অদম্য প্রয়াস। অমর একুশে ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সোমবার সম্মেলনটি শুরু হয়ে শেষ হয় বুধবার।

বাংলাদেশকে ঘিরে থাকা ভারতের প্রতিবেশী রাজ্যগুলোকে জানতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ও গণ বিশ্ববিদ্যালয় যৌথভাবে আয়োজন করে এ আন্তর্জাতিক সম্মেলনের। সম্মেলনের শেষ দিন বুধবার গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএইচ এ অডিটোরিয়ামে ৫টি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

‘বাংলা সাহিত্য ও লিটল ম্যাগাজিন’ শীর্ষক সেমিনারে পশ্চিমবঙ্গের লিটল ম্যাগাজিনের অতীত ও বর্তমান অবস্থা নিয়ে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কলকাতার রূপা বাসু ঠাকুর। তিনি বলেন, কোনও সাহিত্যকর্ম দেশ কিংবা ভৌগলিক সীমারেখায় আবদ্ধ নয়। যেকোনও সৃষ্টিই সবদেশের সব জাতির।’

এ সেশনে ডিজিটাল বাংলা সাহিত্যের আলোকে বিদেশের মাটিতে বাঙালিদের মাতৃভাষায় সাহিত্য চর্চা নিয়ে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কলকাতার সারসোনা কলেজের সহকারী অধ্যাপক ড. তন্ময় বীর। ত্রিপুরার সাহিত্য ও লেখকদের নিয়ে কথা বলেন গৌরী বর্মণ। সভাপতিত্ব করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. খালেদ হোসেন।

আরেকটি সেমিনারে এই অঞ্চলের অর্থনীতি ও রাজনীতি নিয়ে ওড়িশায় জাতিসংঘের সাবেক কর্মকর্তা প্রকাশ চন্দ্র নায়েক ও মনিপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের গবেষক সাচিদানন্দ আগম প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। বাংলাদেশের পক্ষে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতি ও প্রশাসন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক মো. নজরুল ইসলাম।

দুপুরের পর ‘ভাষা বৈচিত্র্য এবং বাংলা ভাষা’, ‘সংগ্রাম এবং সংস্কৃতি’, ‘বিভাজন এবং অভিবাসন’ শীর্ষক আরও তিনটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস রচয়িতা ও রাজনীতিক বদরুদ্দিন উমর সমাপনী ভাষন দেন। দিন শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও নৈশভোজের আয়োজন করা হয়।

২২ ফেব্রুয়ারি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পিএইচ এ অডিটোরিয়ামে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম। তিন দিনের এ সম্মেলনে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, মিজোরাম, আসাম, ত্রিপুরা, মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, ঝাড়খণ্ড, মনিপুর, বিহার, অরুণাচল ও ওড়িশা থেকে অর্ধশতাধিক বিদেশি গবেষক, লেখক, কবি, সাহিত্যিক যোগদান করেন।

/এএ/এএইচ/

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ