শুধু বেতন নয়, ভাতার ওপরও কর দিতে হবে

Send
শফিকুল ইসলাম
প্রকাশিত : ১৬:৪৯, এপ্রিল ২৮, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:৫৩, এপ্রিল ২৮, ২০১৬

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডশুধু বেতন নয়, এখন থেকে বিভিন্ন ধরনের ভাতার ওপরও কর দিতে হবে। আসন্ন ২০১৬-১৭ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে মন্ত্রী-এমপিসহ সব সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর বেতনের সঙ্গে পাওয়া বিভিন্ন ধরনের ভাতাকে করের আওতায় আনার চিন্তাভাবনা চলছে। বিভিন্ন মহলের সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে অর্থ মন্ত্রণালয় বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে বলে জানা গেছে। গত দুই মাসে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে বিভিন্ন মহলের প্রাক-বাজেট আলোচনায়ও বিষয়টি বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার পক্ষ থেকে উত্থাপিত হয়েছে। অর্থমন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
উল্লেখ্য, আগে শুধু বেতনের টাকা আয়করের আওতায় ছিল। ভাতা ছিল আয়কর মুক্ত।
ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইও চায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে সরকারের মন্ত্রী-এমপিদের পাওয়া বেতন-ভাতা পুরোটাই করের আওতায় আনা হোক। সংগঠনের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে একটি সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব দেবে অর্থমন্ত্রীর কাছে। জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বিকেলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এবং এফবিসিসিআইয়ের যৌথ আয়োজনে অনুষ্ঠিতব্য বাজেট সংক্রান্ত কনসালটেটিভ কমিটির মিটিংয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এ প্রস্তাব দেবে। বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে তিনটায় রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে এ মিটিং অনুষ্ঠিত হবে।  অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এ মিটিংয়ে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মন্নান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, কোনও কিছুই চূড়ান্ত নয়। বিভিন্ন মহল থেকে নানা ধরনেরর প্রস্তাব আসছে। সেগুলো পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে বিচার বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে যে সিদ্ধান্তই নেওয়া হোক,  জাতীয় সংসদে তো বিষয়টি পাস হতে হবে।  

আরও পড়তে পারেন: আইএস-এর নামে ষড়যন্ত্র হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সরকারের একজন উপ-সচিব বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতাসহ আয় সীমিত পরিমাণের। আগে বেতনের ওপর আয়কর দিতাম। এখন যদি ভাতাদিও আয়করের অন্তর্ভুক্ত করা হয়, তাহলে তো আর কিছু করার নেই। দিতে হবে।

জানা গেছে, সরকারের মন্ত্রী, সংসদ সদস্য এবং সরকারি কর্মকর্তা- কর্মচারীরা বেতনের ওপর আয়কর দেন। কিন্তু বেতনের সঙ্গে পাওয়া বিভিন্ন প্রকার উৎসব ভাতাসহ সব প্রকার ভাতা ও সুবিধাদি আয়করের আওতামুক্ত রাখা হয়েছে। এটিকে বৈষম্যমূলক মনে করে এফবিসিসিআই। সংগঠনটির মতে, সংবিধান অনুযায়ী প্রজাতন্ত্রের সবাই সমান। শ্রমের বিপরীতে বেতনের সঙ্গে পাওয়া যেকোনও ধরনের টাকাই আয়।  সবার আয়ের ওপর একই হারে একই আইন বিধান ও নীতি অনুযায়ী করে আরোপ করা উচিত। তাই বৈষম্যমূলক এসআরওগুলো বাতিল করে ন্যায়বিচারের স্বার্থে ও সমতা আনার লক্ষ্যে সবার সব আয়ের ওপর কর আরোপ করা প্রয়োজন। এফবিসিসিআই মনে করে, কাউকেই কোনও ছাড় নয়। রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ ব্যক্তি থেকে সর্বনিম্ন পদে যিনিই থাকুন, তিনি যদি করযোগ্য আয় করেন, তাহলে তাকে আয়কর দিতে হবে।  

আয়করের প্রজ্ঞাপনে (এসআরও নং-২২৮-আইন-আয়কর/২০১১) বলা হয়েছে, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর মূল বেতন করযোগ্য আয় হিসেবে বিবেচিত হবে। অন্য সব সুবিধা ও ভাতাদি যেমন, বোনাস, বাড়িভাড়া ভাতা, চিকিৎসা ভাতা, যাতায়াত ভাতা, শ্রান্তিবিনোদন ভাতা ইত্যাদি করমুক্ত থাকবে। অথচ বেসরকারি সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীর মূল বেতন ছাড়াও এসব ভাতার ওপর কর দিতে হয়।

ব্যবসায়ীদের এই শীর্ষ সংগঠনটি মনে করে, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাদের আয়ের ওপর কর দেন। এ ক্ষেত্রে কোনও কর অব্যাহতি নেই। কিন্তু সরকারি চাকরিজীবীদের ক্ষেত্রে কর অব্যাহতি রয়েছে। যা একটি চরম বৈষম্যমূলক ব্যবস্থা। যা গণতান্ত্রিক ও আইনের শাসনে অধিষ্ঠিত সমাজে বেমানান। সবদিক বিবেচনায় নিয়ে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে সর্বনিম্ন পর্যায় পর্যন্ত যারা করযোগ্য আয় করবেন, তারা তাদের সব আয় করের আওতায় আনবেন। আর এটি নিশ্চিত হলে সমাজে ন্যায়বিচার সুপ্রতিষ্ঠিত হবে। এতে বিদ্যমান বৈষম্য দূরীভূত হবে।  সরকারের রাজস্বও বাড়বে।

আরও পড়তে পারেন: মাহফিল স্থগিত করলেন চরমোনাই পীর

১২ লাখ টাকা পর্যন্ত বিল উৎসে করের আওতামুক্ত রাখার দাবি জানাবে এফবিসিসিআই। ১২ থেকে ২৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ১ শতাংশ, ২৫ লাখ থেকে ১ কোটি পর্যন্ত দেড় শতাংশ, এক কোটি থেকে ৩ কোটি পর্যন্ত ২ শতাংশ, ৩ কোটি থেকে ৫ কোটি পর্যন্ত আড়াই শতাংশ এবং ৫ কোটি টাকার বেশি বিলের জন্য ৩ শতাংশ হারে উৎসে কর কাটার প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে। বর্তমানে ২ লাখ টাকা পর্যন্ত বিল উৎসে করের আওতামুক্ত রাখা হয়েছে।

জানা গেছে, ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ না দেওয়ার পক্ষে অবস্থান এফবিসিসিআইয়ের। এফবিসিসিআইয়ের তৈরি করা বাজেট প্রস্তাবনায় নৈতিক কারণে আগের অপ্রদর্শিত আয়কে কম হারে কর প্রদানের মাধ্যমে বৈধ করার সুযোগ না দেওয়ার বিষয়টি চূড়ন্ত করেছে।

 /এমএনএইচ/

লাইভ

টপ