‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত যুবক শরিফুল না, মুকুল

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৫:৩০, জুন ২০, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:১৬, জুন ২০, ২০১৬






মুকুল রানা

অভিজিৎ রায়ের হত্যাকারী হিসেবে অভিযুক্ত ও পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত শরিফুল ওরফে সালেহ ওরফে আরিফ (৩০) এর আসল নাম মুকুল। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভোটার আইডি কার্ড নিয়ে তার স্বজনরা লাশ শনাক্ত করেছেন।

সোমবার সকালে নিহতের দুলাভাই হেদায়েতুল ইসলাম ও চাচাতো ভাই রহমত আলী একটি ভোটার আইডি কার্ড দেখিয়ে সাংবাদিকদের জানান, নিহতের নাম মুকুল রানা (২৫)। তারা টিভিতে ও পত্রিকায় মুকুলের ছবি দেখে নিশ্চিত হয়েছেন।

নিহতের দুলাভাই হেদায়েতুল জানান, গণমাধ্যমে তার ছবি দেখে তারা সাতক্ষীরা থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে এসেছেন। লাশ দেখে তারা শনাক্ত করতে পেরেছেন। তার নাম মুকুল রানা (২৫)। পিতার নাম আবুল কালাম আজাদ। তার গ্রামের বাড়ি সাতক্ষীরা জেলার বালুইগাছা।

তারা খিলগাঁও থানায় গিয়ে লাশ বুঝে নেওয়ার জন্য আবেদন করেছেন।
মুকুল রানার ভর্তি পরীক্ষার অ্যাডমিট কার্ডহেদায়েতুল ইসলাম জানান, মুকুল রানা সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ছিল। তারা দুই ভাই এক বোন। সে ভাই বোনদের মধ্যে দ্বিতীয়। তাদের আর্থিক অবস্থা সচ্ছল নয়। সাতক্ষীরায় তার বাবার ছোট পরিসরে চিংড়ি ঘেরের ব্যবসা রয়েছে।

তিনি আরও জানান, মুকুল চাকরির সন্ধানে ‍প্রায়ই ঢাকায় আসতো। গত ফেব্রুয়ারি মাসে গ্রামের বাড়িতে যায় এবং মহুয়া সুলতানা নামে এক মেয়ের সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিবাহ হয়। এরপর সে ঢাকায় ফিরে আসে। সে ঢাকার উত্তরায় থাকতো।

তবে উত্তরার কোথায় থাকতো, কি করতো এ ব্যাপারে কোনও কিছুই জানাতে পারেননি হেদায়েতুল ইসলাম।

মুকুল রানার এইচএসসি পরীক্ষার মার্কশিট

রবিবার রাজধানীর খিলগাঁওয়ে মেরাদিয়ার বাঁশপট্টিতে ডিবি পুলিশের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয় শরীফ। প্রথমে তাকে অজ্ঞাতনামা হিসেবে উল্লেখ করা হলেও পরে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয় নিহতের নাম শরিফুল ওরফে সালেহ ওরফে আরিফ (৩০)। সে অভিজিৎসহ সাতটি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। তাকে ধরিয়ে দিতে ৫ লাখ টাকা ঘোষণা করেছিল ডিবি।

/এআরআর /এপিএইচ/

আরও পড়ুন:

অভিজিৎ হত্যায় সন্দেহভাজন শরীফ ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত





অভিজিৎসহ সাত জনকে হত্যার নেপথ্যে ছিল ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত শরীফ

 

 

লাইভ

টপ