মানবদেহের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজনে বাণিজ্যিক ব্যবহার রোধে সংসদে বিল

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০৩:৩৫, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ০৩:৪৪, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৭

জাতীয় সংসদ (ছবি- সাজ্জাদ হোসেন)মানবদেহের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দান ও গ্রহণে বাণিজ্যিক ব্যবহার রোধের পাশাপাশি এর পরিধি বাড়াতে সংসদে একটি বিল উঠেছে। বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সংসদের বৈঠকে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ‘মানবদেহে অঙ্গপ্রতঙ্গ সংযোজন (সংশোধন) বিল, ২০১৭’ উত্থাপন করেন। পরে বিলটি পরীক্ষা করে দুই মাসের মধ্যে সংসদে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়।
এর আগে, বিকাল ৫টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বৈঠক শুরু হয়।
সংসদে প্রস্তাবিত আইন অনুযায়ী, কোনও হাসপাতাল সরকারের অনুমতি ছাড়া অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজন করতে পারবে না। এই আইন কার্যকর হওয়ার ৬০ দিনের মধ্যে অনুমতির জন্য সরকারের কাছে আবেদন করতে হবে। তবে সরকারি হাসপাতালের বিশেষায়িত ইউনিটে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজনের ক্ষেত্রে অনুমতি লাগবে না।
এ বিষয়ে বর্তমান আইনে শুধু পুত্র-কন্যা, পিতা-মাতা, ভাই-বোন, স্বামী-স্ত্রী এবং আপন চাচা, ফুফু, মামা ও খালা— এই ১২ জন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দান ও গ্রহণ করতে পারেন। তবে প্রস্তাবিত আইনে ‘নিকট আত্মীয়ে’র সংজ্ঞায় এই ১২ জনের বাইরেও নানা-নানি, দাদা-দাদি, নাতি-নাতনি, আপন চাচাতো-মামাতো-ফুপাতো-খালাতো ভাই-বোনেরাও অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দান ও গ্রহণ করতে পারবেন। মৃত ব্যক্তির অঙ্গপ্রত্যঙ্গও অন্যের শরীরে সংযোজন করা যাবে।
বিলে ‘অঙ্গপ্রত্যঙ্গে’র সংজ্ঞায় মানবদেহের কিডনি, হৃৎপিণ্ড, ফুসফুস, অন্ত্র, যকৃত, অগ্ন্যাশয়, অস্থি, অস্থিমজ্জা, চক্ষু, চর্ম ও টিস্যুসহ মানবদেহে সংযোজনযোগ্য যেকোনও অঙ্গ বা প্রত্যঙ্গকে বোঝানো হয়েছে।
বিলে আত্মীয়ের মিথ্যা তথ্য দেওয়াসহ আইন ভঙ্গের অপরাধে সাজার মেয়াদ কমলেও বাড়ানো হয়েছে জরিমানা। এতে বলা হয়েছে, কোনও ব্যক্তি নিকটাত্মীয় সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য দিলে বা মিথ্যা তথ্য দিতে উৎসাহিত বা প্ররোচিত বা ভীতি প্রদর্শন করলে অনধিক দুই বছরের সশ্রম কারাদণ্ড বা অনধিক পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড দেওয়া যাবে। আইনের অন্যান্য বিধান লঙ্ঘন করলে অথবা লঙ্ঘনে সহায়তা করলে সর্বোচ্চ তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ড বা সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করা যাবে। কোনও চিকিৎসক দণ্ডিত হলে বাংলাদেশ মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কাউন্সিলের দেওয়া নিবন্ধন (চিকিৎসা সনদ) বাতিল হবে। এছাড়াও কোনও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এই আইনের অধীন কোনও অপরাধ করলে অনুমতি বাতিল ও অর্থদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।
প্রস্তাবিত আইনে বলা হয়েছে, সুস্থ ও স্বাভাবিক বুদ্ধিসম্পন্ন ব্যক্তির চোখ ছাড়া অন্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিযুক্তির কারণে স্বাভাবিক জীবনযাপনে ব্যাঘাত সৃষ্টির আশঙ্কা না থাকলে তিনি নিকটাত্মীয়কে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দান করতে পারবেন। তবে চোখ ও অস্থিমজ্জা সংযোজন ও প্রতিস্থাপনে নিকটাত্মীয় হওয়ার প্রয়োজন হবে না।
বিলে বলা হয়েছে, জীবদ্দশায় কোনও ব্যক্তি অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দান করলে ওই ব্যক্তির ‘ব্রেইন ডেথ’ ঘোষণার পর আইনানুগ উত্তরাধিকারী যদি লিখিতভাবে অনুমতি দেন, তাহলে সংযোজনের জন্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিযুক্ত করা যাবে। ‘ব্রেইন ডেথ’ ঘোষণার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোনও দাবিদার না থাকলে ‘ব্রেইন ডেথ’ ঘোষণাকারী হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্তৃত্ব পালনকারী ব্যক্তি অনুমতি দিতে পারবেন। মেডিসিন বা ক্রিটিক্যাল কেয়ার মেডিসিন, নিউরোলজি ও অ্যানেসথেসিওলজি বিষয়ে বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক বা সহযোগী অধ্যাপক পদমর্যাদার কমপক্ষে তিনজন চিকিৎসকের সমন্বয়ে গঠিত কমিটি কোনও ব্যক্তির ‘ব্রেইন ডেথ’ ঘোষণা করতে পারবেন। তবে ‘ব্রেইন ডেথ’ ঘোষণাকারী কমিটির কোনও চিকিৎসক বা তার নিকটাত্মীয় অঙ্গপ্রত্যঙ্গ প্রতিস্থাপন বা সংযোজন প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত থাকতে পারবেন না।
বিলে বলা হয়েছে, ‘ব্রেইন ডেথ’ ঘোষিত ব্যক্তির বয়স দুই বছরের কম অথবা ৬৫ বছরের বেশি হলে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ নেওয়া যাবে না। তবে চোখ ও অস্থিমজ্জা সংযোজন বা প্রতিস্থাপনের ক্ষেত্রে এই বিধান প্রযোজ্য হবে না। জীবিত ব্যক্তির ক্ষেত্রে ১৮ বছরের কম অথবা ৬৫ বছরের বেশি হলে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ নেওয়া যাবে না। তবে পুনঃউৎপাদনশীল টিস্যুর ক্ষেত্রে দাতা ও গ্রহীতা রক্ত-সম্পর্কিত ভাই বা বোন হলে অথবা চোখ ও অস্থিমজ্জা সংযোজন বা প্রতিস্থাপনে এই বিধান প্রযোজ্য হবে না।
এতে বলা হয়েছে, কোনও ব্যক্তি যদি মৃত্যুর আগে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দানে লিখিত আপত্তি করে থাকেন, তাহলে তার অঙ্গপ্রত্যঙ্গ নেওয়া যাবে না। ১৫ থেকে ৫০ বছর বয়সী ব্যক্তিরা গ্রহীতা হিসেবে অগ্রাধিকার পাবেন। তবে কর্নিয়া প্রতিস্থাপনে বয়সের এই বিধান প্রযোজ্য হবে না।
অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজনের কাজ পরিচালনায় সংশ্লিষ্ট হাসপাতালে ‘নির্ধারিত’ যোগ্যতর ব্যক্তিদের নিয়ে একটি মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করতে হবে। অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংগ্রহ ও সংযোজনে সহায়তা দিতে একটি প্রত্যয়ন বোর্ড থাকবে। ‘ব্রেইন ডেথ’ ঘোষিত ব্যক্তির অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংগ্রহের অনুমতি প্রদানের জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের নেতৃত্বে ‘ক্যাডাভেরিক জাতীয় কমিটি’ থাকবে।
বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সম্পর্কে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে মানবদেহে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজন ও প্রতিস্থাপনের ক্ষেত্র বিস্তৃত, ব্যাবসায়িক উদ্দেশ্যে ব্যবহার বন্ধ এবং অবৈধ পাচার রোধ করতেই আইনটি সংশোধনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে।
আরও পড়ুন-
ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নিতে সংসদে প্রস্তাব পাস

/ইএইচএস/টিআর/

লাইভ

টপ