সরকারের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে ইকোনোমিক ক্যাডারের কর্মকর্তাদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ: পরিকল্পনামন্ত্রী

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২৩:১৬, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:২১, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৮

বিসিএস ইকোনোমিক অ্যাসোসিয়েশনের বিশেষ সাধারণ সভায় পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল

স্বাধীনতার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশকে পরিকল্পিতভাবে উন্নয়নের লক্ষ্যে পরিকল্পনা কমিশন গঠন করেন। গঠনের পর থেকেই পরিকল্পনা কমিশন থেকে দেশের সব উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়ে থাকে। বর্তমান সরকারের দেশের অভূতপূর্ব উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় ২০২১ সালে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের এবং ২০৪১ সালে উন্নত দেশে পরিণত করতে বদ্ধপরিকর। সরকারের এই প্রতিশ্রিুতি বাস্তবায়ন তথা পরিবর্তিত জলবায়ু অভিঘাত ইত্যাদি বিবেচনায় টেকসই উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে পরিকল্পনা কমিশন তথা বিসিএস (ইকোনোমিক) ক্যাডারের কর্মকর্তারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

বুধবার (১২ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরস্থ পরিকল্পনা কমিশনের এনইসি অডিটোরিয়ামে বিসিএস ইকোনোমিক অ্যাসোসিয়েশনের বিশেষ সাধারণ সভায় পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ মুস্তাফা কামাল এসব কথা বলেন।

সংগঠনের সভাপতি কাজী জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও তথ্য সচিব আব্দুল মালেক, পরিকল্পনা সচিব মো. জিয়াউল ইসলাম, সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য সিনিয়র সচিব ড. শামসুল আলম, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে বিসিএস ইকোনোমিক অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাহী কমিটির সব সদস্যসহ সাধারণ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, দেশ তথা জাতির বৃহত্তর কল্যাণে বিসিএস ইকোনোমিক ক্যাডারে বিদ্যমান যে কোন ধরনের সমস্যা সমাধান এখন সময়োপযোগী ও কল্যাণমুখী কাজ। সে ক্ষেত্রে সরকারও আন্তরিক।

অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ। এদেশের উন্নয়ন সংক্রান্ত বিভিন্ন নীতিমালা, কৌশলপত্র ইত্যাদি মূলত ইকোনোমিক ক্যাডারের কর্মকর্তারাই করেন। যেমন-৭ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা, পিআরএসপি, প্রেক্ষিত পরিকল্পনা, অর্থনৈতিক সমীক্ষা ইত্যাদি তৈরিতে বিসিএস (ইকোনমিক) ক্যাডারের কর্মকর্তারা সরাসরি যুক্ত থাকেন। তাই দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে এই ক্যাডারের অফিসারদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

বিসিএস (প্রশাসন) ও বিসিএস (ইকোনমিক) ক্যাডার দুটিকে একীভূত করতে ২০১৪ সালের জানুয়ারিতে বাংলাদেশ অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন ও বিসিএস (ইকোনমিক) অ্যাসোসিয়েশন এ সংক্রান্ত যে সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করে সেটি দ্রুত বাস্তবায়নের আহ্বান জানান বিসিএস ইকনোমিক অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব পরিকল্পনামন্ত্রীর একান্ত সচিব ফরিদ আজিজ বলেন, দেশের বৃহত্তর উন্নয়নের স্বার্থে অধিক ক্যাডারের প্রয়োজন নেই। মূলত আশির দশকে সরকার দেশের উন্নয়ন কার্যক্রম গতিশীল করার জন্য বিসিএস (ইকোনমিক) ক্যাডার নামে একটি পেশাগত ক্যাডার সৃষ্টি করা হয়েছিল। পরে এ ক্যাডারের কাজগুলো টেকনিক্যাল না হওয়ায় ২৮তম বিসিএস থেকে এটিকে সাধারণ ক্যাডারে রূপান্তরিত করা হয়। ফলে আগে যেখানে অর্থনীতি বা পরিসংখ্যানে ডিগ্রি না থাকলে ইকোনমিক ক্যাডারে আসা যেত না, এখন সেখানে বাংলা বা ইতিহাস পড়েও আসা যায়। ইকোনমিক ক্যাডারের কর্মকর্তারা মূলত কাজ করেন বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও পরিকল্পনা কমিশনে। কিন্তু ক্যাডারের বদলি ও প্রশাসনিক কাজকর্ম নিয়ন্ত্রণ করে পরিকল্পনা বিভাগ, যেখানে সবাই প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা।

/এসআই/টিএন/

লাইভ

টপ