বাংলাদেশ-ভারত পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ের বৈঠক মঙ্গলবার

Send
শেখ শাহরিয়ার জামান
প্রকাশিত : ২২:২৯, এপ্রিল ১২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:৪৭, এপ্রিল ১২, ২০১৯

77ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বিজয় গোখলের সঙ্গে বৈঠকের জন্য দিল্লি যাচ্ছেন পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক। আগামী মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত যারা দিল্লিতে অবস্থান করে বাংলাদেশে তাদের স্বার্থ দেখাশোনা করে থাকেন, তাদের সঙ্গেও আসন্ন আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম ) নির্বাচন নিয়ে বৈঠক করবেন তিনি। এ নির্বাচনে শহীদুল হক উপ-মহাপরিচালক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

আইওএম  জাতিসংঘের বৈশ্বিক অভিবাসন ব্যবস্থা দেখভালকারী সংস্থা। প্রায় এক কোটি বাংলাদেশি পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে কর্মরত আছেন। প্রতিবছর তারা ১৫ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স দেশে পাঠান। তাই এই সংস্থা বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘দুই সচিব দ্বিপক্ষীয় বিষয়ের পাশাপাশি আইওএমের নির্বাচন নিয়ে আলোচনা করবেন।’

৭৭টি দেশের রাষ্ট্রদূত দিল্লিতে অবস্থান করে বাংলাদেশ-সম্পর্কিত কাজ করেন। ওই দেশগুলোর মধ্যে প্রায় ৬০টি দেশ অভিবাসন সংস্থার সদস্য। পররাষ্ট্র সচিব তাদের সঙ্গেও বৈঠক করবেন এবং নির্বাচনে সমর্থন চাইবেন বলে জানান আরেক কর্মকর্তা।

এদিকে, পররাষ্ট্র সচিব শনিবার (১৩ এপ্রিল) ঢাকায় কর্মরত সব দেশের রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে অভিবাসন সংস্থার নির্বাচন প্রসঙ্গে ব্রিফ করবেন এবং তাদের সমর্থন চাইবেন।

এর আগে গত প্রায় দুই সপ্তাহব্যাপী পররাষ্ট্র সচিব জেনেভা এবং ব্রাসেলসে নির্বাচনি প্রচারণার কাজ করেছেন। তিনি জেনেভাতে বিভিন্ন দেশের স্থায়ী প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। এছাড়া ব্রাসেলসে ইউরোপীয় ইউনিয়ন সদর দফতরে বিভিন্ন কর্মকর্তার সঙ্গে বৈঠক করেন।

আগামী ২১ জুন অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে ১৭৩টি দেশ আইওএমের দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি নির্ধারণের জন্য ভোট দেবেন। এখন পর্যন্ত আরও চারটি দেশ এই পদের জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছে। দেশগুলো হচ্ছে– সুদান, ফিলিপাইন, ইথিওপিয়া ও জর্ডান।

অভিবাসন দুনিয়ার পরিচিত মুখ শহীদুল হক জাতিসংঘের ওই সংস্থায় এর আগে ১১ বছর বিভিন্ন উচ্চ পদে কর্মরত ছিলেন। তিনি ২০১২ সালে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা ত্যাগ করেন এবং ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে পররাষ্ট্র সচিব হিসেবে নিযুক্ত হোন। গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর তিনি অবসরকালীন ছুটিতে গেলেও এক বছরের জন্য এক্সটেনশন পান। গত বছর সিনিয়র সেক্রেটারি পদে উন্নীত হন শহীদুল হক।

 

/এসএসজেড/এমএএ/

লাইভ

টপ