১৫ আর ২১ আগস্ট একই সূত্রে গাঁথা: ওবায়দুল কাদের

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০১:৩৯, আগস্ট ২৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০১:৩৯, আগস্ট ২৩, ২০১৯

ওবায়দুল কাদের (ছবি-সংগৃহীত)

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট আর ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট একই সূত্রে গাঁথা। ১৫ আগস্টের প্রাইম টার্গেট ছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আর ২১ আগস্টের প্রাইম টার্গেট ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্দেশ্য ছিল একই। বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা তথা আওয়ামী লীগকে শেষ করা।’

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে মহিলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘১৫ আগস্ট ও ২১ আগস্ট, এই দুই হত্যাকাণ্ড একই ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতা। ২১ আগস্ট যখন গ্রেনেড হামলা হয়েছে, তখন ক্ষমতায় ছিল বিএনপি-জামায়াত। ২১ আগস্ট হত্যাকারীদের নেতা হরকাতুল জিহাদ নেতা মুফতি হান্নান জবানবন্দিতে বলেছে- হাওয়া ভবনের পরিকল্পানায় তারেক রহমানের নির্দেশে তারা হামলা করে। এই ঘটনার মাস্টারমাইন্ড তারেক রহমান একথা অস্বীকার করার উপায় নেই। এটা প্রচলিত আদালতে প্রমাণিত হয়েছে,  জনতার আদালতে প্রামাণিত, ইতিহাসের আদালতেও প্রমাণ হবে।’

বিএনপির উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘এই ঘটনায় আপনারা যদি জড়িত না থাকেন, তাহলে এফবিআইকে তদন্ত করতে বাধা দিলেন কেন? স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডকে তদন্ত করতে আসতে বাধা দিলেন কেন? আপনারা যদি মাস্টারমাইন্ড না হন, তাহলে জর্জ মিয়া চিত্রনাট্য সাজিয়েছিলেন কেন? ২২ আগস্ট সকালের আগে কেন সমস্ত আলামত নষ্ট করে দিলেন? চোখের সামনে হামলাকারীদের চলে যেতে দেওয়া হলো কেন?’ বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখারুল ইসলাম আলগীরের কাছে এসব প্রশ্নের জবাবে চেয়েছেন ওবায়দুল কাদের।  

২০০৯ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি পিলখানার ঘটনার দিন সকালেই খালেদা জিয়া বাসা থেকে বের হয়ে ২৪ ঘণ্টা কোথায় ছিলেন বলে প্রশ্ন রেখেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী।  

তিনি বলেন, ‘পিলখানার ঘটনার দিন সূর্য ওঠার আগেই খালেদা জিয়া বাসা থেকে বের হয়ে ২৪ ঘণ্টা নিখোঁজ ছিলেন, তিনি কোথায় ছিলেন? যিনি দুপুরের আগে ঘুম থেকে ওঠেন না, তিনি সূর্য ওঠার আগে বাসা থেকে বের হয়ে ২৪ ঘণ্টা নিখোঁজ থাকলেন। এতে প্রমাণ হয়, এই ঘটনার জন্য তারা দায়ী।’   

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু হত্যাকারীদের পুরস্কৃত করে ইনডেমিনিটি দিয়ে রাজনৈতিক দলের সঙ্গে রাজনৈতিক দলের কর্মসম্পর্কের অলঙ্ঘিত দেওয়াল তৈরি করা হয়। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার পর সেই দেওয়াল আরও উঁচু হয়েছে। ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে আপনারা হত্যার পরিকল্পনা করে আওয়ামী লীগের ওপর দোষ চাপানোর চেষ্টা করেছেন। এতো কিছুর পরও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে খালেদা জিয়াকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। খালেদা জিয়া কী অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেছিলেন, সবাই জানে। এরপর পুত্রহারা মাকে সান্ত্বানা দিতে গিয়েছিলেন শেখ হাসিনা। কিন্তু মুখের সামনে দরজা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। এটা করে আপনারা কর্মসম্পর্কের রাজনীতির দরজা চিরতরে বন্ধ করে দিয়েছেন।’

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিয়া খাতুন।

সভায় আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ও মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মেরিনা জাহান কবিতা, পারভীন জামান কল্পনা, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সস্পাদক শাহে আলম মুরাদ, মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পদক মাহমুদা বেগম ক্রিক প্রমুখ।

 

/এমএইচবি/ এএইচ/

লাইভ

টপ