বাজারে পেঁয়াজের ক্রাইসিস নেই, বাণিজ্যিক সমস্যা আছে: সচিব

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৬:১২, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৩০, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯

টিসিবি`র পেঁয়াজ বিক্রি শুরু (ছবি: ফোকাস বাংলা)বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নতুন সচিব ড. জাফর উদ্দিন বলেছেন, ‘ভারতের মহারাষ্ট্রে বৃষ্টি ও বন্যার কারণে সেদেশে উৎপাদিত পেঁয়াজ নষ্ট হয়ে গেছে। ফলে তাদের দেশে পেঁয়াজ সংকটের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। এ কারণে ভারত রফতানি নিরুৎসাহিত করতে প্রতি টন পেঁয়াজের রফতানি মূল্য ৮৫০ ডলার নির্ধারণ করেছে। এর আগে এই পেঁয়াজ রফতানি হতো ২৫০ থেকে ৩০০ ডলার দরে। এর ফলে আমাদের দেশের বাজারে পেঁয়াজের ক্রাইসিস নয়, বাণিজ্যিক সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।’

আজ মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তিনি এসব কথা বলেন। বিভিন্ন এজেন্সি ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠকের পর তিনি ব্রিফিংয়ে অংশ নেন। বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির ওই বৈঠকে যোগ দেওয়ার কথা থাকলেও তিনি এতে অংশ নিতে পারেননি।

সচিব বলেন, ‘আমি ব্যবসায়ী ও সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে বৈঠক করেছি। পেঁয়াজ নিয়ে আতঙ্ক থাকবে না। আমাদের আমদানি ও মজুত দুটোই সন্তোষজনক। আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই। এক থেকে দেড় মাসের মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘দেশে পেঁয়াজের বার্ষিক চাহিদা ২৪ লাখ মেট্রিক টন। এবার উৎপাদিত হয়েছে ২৩ লাখ ৭৬ হাজার টন। কিন্তু পেঁয়াজ পচনশীল পণ্য। এ কারণে উৎপাদনের ৩০ শতাংশই পচে যায়। ফলে আমাদের সাড়ে সাত লাখ টন পেঁয়াজের ঘাটতি হয়। আমরা এবছর আমদানি করেছি ১২ লাখ ৭১ হাজার টন। কাজেই মজুত সন্তাষজনক। বাংলাদেশে নতুন পেঁয়াজ উঠবে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে। ভারতে উঠবে নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে। নতুন পেঁয়াজ উঠলেই এই সংকট কেটে যাবে।’ সচিব জানান, ইতোমধ্যে মিয়ানমার, মিশরসহ অন্যান্য রফতানিকারক দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অল্প সময়ের মধ্যে পেঁয়াজের বাজার কারা অস্থির করেছে, আমদানি না করেও কারা দাম বাড়িয়েছে সে বিষয়ে আরও তথ্য সংগ্রহ করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সচিব জানান, ভোমরা, বেনাপোল ও হিলি স্থলবন্দরে এখনও ১৭ ট্রাক পেঁয়াজ বাংলাদেশে প্রবেশের জন্য অপেক্ষায় আছে।

সভায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. শফিকুল ইসলাম, টিসিবি’র চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মোহাম্মদ হাসান জাহাঙ্গীর, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক মো. হারুণ উজ্জামানসহ ট্যারিফ কমিশন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, বাংলাদেশ ব্যাংক, কৃষি মন্ত্রণালয়, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা, র‌্যাব’র প্রতিনিধি ও পেঁয়াজ আমদানি কারকরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, রাজধানীতে আজ মঙ্গলবার থেকে স্বল্প পরিসরে খোলা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। রাজধানীর পাঁচটি স্পটে এ কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। টিসিবির আওতায় প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৪৫ টাকা দরে বিক্রি করা হচ্ছে। একজন ক্রেতা সর্বোচ্চ দুই কেজি করে পেঁয়াজ কিনতে পারছেন।

আরও পড়ুন- 

পেঁয়াজের বাজারে আগুন: দুই দিনে কেজিতে বেড়েছে ২৫ টাকা

পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে টিসিবি

/এসআই/এফএস/

লাইভ

টপ