দুর্নীতিবাজ যেই হোক ছাড় দেওয়া হবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৪:৫২, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:২২, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন আসাদুজ্জামান খান কামালদুর্নীতিবাজদের হুঁশিয়ার করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, ‘দুর্নীতিবাজ যেই হোক, কোনও ছাড় দেওয়া হবে না।’ শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর বেসরকারি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে নবীন বরণ অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেন।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী, দুর্নীতিবাজ জনপ্রতিনিধি হোক আর প্রশাসনের লোক হোক—ছাড় দেওয়া হবে না। কারও বিরুদ্ধে অন্যায়, অপরাধ, দুর্নীতির অভিযোগ পেলে প্রমাণের ভিত্তিতে বিচারের মুখোমুখি করা হবে। যাদের বিরুদ্ধে আমরা অনৈতিক কাজের অভিযোগ পাচ্ছি, প্রমাণের ভিত্তিতেই ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

জি কে শামীম প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘জি কে শামীম কীভাবে সরকারি প্রজেক্টের কাজ পেয়েছে সেটি অন্য বিষয়। তার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ ছিল, সেই অনুযায়ী তাকে বিচারের মুখোমুখি করছি। তার বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ থাকলে পর্যায়ক্রমে সেগুলোও খতিয়ে দেখা হবে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘যারা দুর্নীতি করছে, নিয়ম ভঙ্গ করছে, ক্ষমতার অপব্যবহার করে কিছু ঘটানোর চেষ্টা করছে—তাদের নজরদারিতে রেখেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করছে।’

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘বর্তমান প্রধানমন্ত্রী দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠার জন্য দুর্নীতিকে একটি চ্যালেঞ্জ মনে করছেন। সে জন্যই তার নির্দেশে আমরা দুর্নীতির বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযান পরিচালনা করছি। তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ, আমরা যেভাবে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি, সেটা ধরে রাখতে হলে টেকসই উন্নয়ন প্রয়োজন। আর টেকসই উন্নয়নের জন্য টেকসই শান্তি-স্থিতিশীলতা দরকার। এটা পেতে হলে টেকসই নিরাপত্তা দরকার। আমরা সেই নিরাপত্তার ব্যবস্থা করছি। যেখানে দুর্নীতিবাজ ও নিয়ম ভঙ্গকারী আছে, তাদের বিচারের আওতায় আনা হবে। কেউ রেহাই পাবে না। এটা আমাদের কমিটমেন্ট।’

এর আগে শিক্ষার্থীদের নবীন বরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আগামী প্রজন্মের জন্য দেশকে সুন্দর করে রেখে যেতে চাই। আজ থেকে ১০ বছর আগের বাংলাদেশ আর এখনকার বাংলাদেশ এক না। অনেক পরিবর্তন হয়েছে। এই পরিবর্তন জনগণ চেয়েছে। নতুন প্রজন্ম আমাদের সহায়তা করেছে। বর্তমানে আমাদের দেশ ডিজিটাল হয়েছে। নতুন প্রজন্ম প্রযুক্তির ব্যবহার উপলব্ধি করছে। প্রযুক্তির খারাপ দিকও রয়েছে। প্রযুক্তি ব্যবহারের ক্ষেত্রে নতুন প্রজন্মকে সতর্ক থাকতে হবে। ভালো-খারাপ বিবেচনা করে তা ব্যবহার করতে হবে।’

জঙ্গিবাদ দমনের বিষয় উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রথমে আমরা জঙ্গিবাদ দমনে হিমশিম খাচ্ছিলাম। পরে এটাতেও সফল হয়েছি। এতে দেশের সর্বস্তরের মানুষ ও নতুন প্রজন্ম সহযোগিতা করেছে।’

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে নবীন বরণ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা লায়ন বেনজীর আহমেদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ অনেকে। 

প্রসঙ্গত, গত কয়েকদিনে দুর্নীতি, অনিয়ম, মাদক, শৃঙ্খলা ভঙ্গসহ নানা অভিযোগে ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও কৃষক লীগের কয়েকজন নেতার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। অনৈতিক কাজ ও শৃঙ্খলা ভঙ্গসহ বিভিন্ন অভিযোগে গত ১৪ সেপ্টেম্বর ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং গোলাম রাব্বানীকে পদত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়। গত ২০ সেপ্টেম্বর রাজধানীতে ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে বহিষ্কার করে যুবলীগ। এদিন কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের সভাপতি ও কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় নেতা সফিকুল ইসলাম ফিরোজকে আটক করা হয়। পরে অস্ত্র ও মাদক আইনে ধানমন্ডি থানায় তার বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের করা হয়। একই দিন যুবলীগ নেতা গোলাম কিবরিয়া (জি কে) শামীমকে অগ্নেয়াস্ত্র, গুলি ও মদ ও কোটি কোটি টাকাসহ গ্রেফতার করে পুলিশ।

এদিকে, ২০ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার আগে ১৯ সেপ্টেম্বর কয়েকটি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রধানের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় তিনি ক্যাসিনো, জুয়া, মাদক, টেন্ডারবাজি ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে।

/এসজেএ/আইএ/এমএমজে/

লাইভ

টপ