জঙ্গিদের হত্যা পরিকল্পনায় এবার আইনজীবী ও পীর

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৪:৪২, মার্চ ২২, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:৩৫, মার্চ ২২, ২০১৬

ধর্মীয় বিষয়ে রিটকারী এক আইনজীবী ও একজন পীরকে হত্যার পরিকল্পনা নিয়ে অগ্রসর হচ্ছিল চার জঙ্গি। তাদের সেই পরিকল্পনা ভণ্ডুল করে দিয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও কাউন্টার টেররিজম (সিটি) এর সদস্যরা। গ্রেফতার করা হয়েছে চার জঙ্গিকে।

কাউন্টার টেররিজম (সিটি) ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলামমঙ্গলবার সকালে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার ও কাউন্টার টেররিজম (সিটি)ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে সোমবার রাতে রাজধানীর দারুসসালাম থানার কল্যানপুর বাসস্টান্ড সংলগ্ন এলাকা থেকে চার জঙ্গিকে গ্রেফতার করে ডিবি ও সিটি’র সদস্যরা। গ্রেফতারকৃত চারজন হলেন, আব্দুর রাজ্জাক উমায়ের, ফয়সাল আহম্মেদ, আহমেদ ফজলে আকবর ও আবু নাঈম মোহাম্মদ জাকারিয়া।
যারা জঙ্গিদের টার্গেট ছিল তাদের নাম উল্লেখ না করে মনিরুল ইসলাম বলেছেন, গ্রেফতারকৃত চার জঙ্গি দু’ব্যক্তিকে গলা কেটে হত্যা করতে চেয়েছিলেন। এদের মধ্যে একজন হচ্ছেন আইনজীবী। যিনি উচ্চ আদালতে ধর্মীয় বিষয় নিয়ে একটি রিট করেছেন। যা পরবর্তীতে রিটকারী ওই আইনজীবীর পক্ষে যায়। আরেকজন হচ্ছেন একজন পীর। যিনি সবসময় শিরক করে থাকেন।তবে সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হতে পারেনি। তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে।
তিনি বলেন, গ্রেফতারকৃত চারজন নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবি থেকে পালিয়ে যাওয়া  সদস্য। এদের নিজেদের কোনও সংগঠন নেই। বিচ্ছিন্নভাবে এরা টার্গেট কিলিং অথবা নাশকতা চালানোর উদ্দেশ্যে জড়ো হয়েছিল। বিশেষ করে এরা আগামী কয়েকদিনের মধ্যে দু’ব্যক্তিকে জবাই করে হত্যা করতে চেয়েছিল।

গতমাসে শেষ হওয়া অমর ২১ শে বই মেলায়ও তাদের বড় ধরণের নাশকতা চালানোর পরিকল্পনা ছিল উল্লেখ করে মনিরুল ইসলাম বলেন, কারও প্রতি হামলা না করে মেলায় তারা অগ্নিকাণ্ড ঘটিয়ে ও দূর থেকে নাশকতা চালিয়ে দর্শনার্থীদের মনে ভীতি সৃষ্টির পরিকল্পনাও করেছিল। তবে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নজীরবিহীন নিরাপত্তার কারণেই সেই পরিকল্পনা তারা বাস্তবায়ন করতে পারেনি।

এদের সুনির্দিষ্ট কোন সাংগাঠনিক কাঠামো নেই। এরা তাবলীগ জামাতের ধর্মপ্রাণ তরুণদের টার্গেট করে গ্রুপে সদস্য বাড়াতো।বর্তমানে তারা জেএমবি কিংবা হুজি কোনটারই সদস্য নন। তবে অনেক জেএমবি সদস্য তাদের অর্থ সহায়তা দিয়ে থাকে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন। এদের মধ্যে একজন শেখ সোহান সাদ ওরফে বাবা আব্দুল্লাহ। যিনি এর আগে জেএমবির কমান্ডার ছিলেন। এখন তিনি বিদেশে বসে এদের পৃষ্ঠপোষকতা করছেন বলেও জানান অতিরিক্তি কমিশনার।

সংবাদ সম্মেলনে ডিবি ডিসি (পূর্ব) মাহবুব আলম, ডিবি ডিসি(দক্ষিণ)মাশরুকুর রহমান খালেদ, ডিবি ডিসি(উত্তর)শেখ নাজমুল আলম, ডিবি ডিসি(পশ্চিম) সাজ্জাদুর রহমান ও ডিসি(মিডিয়া) মারুফ হোসেন সরদার উপস্থিত ছিলেন।

/এআরআর/ এপিএইচ/

লাইভ

টপ