পাঠ্যপুস্তকের সংশোধনীর বিষয়ে জানেন না অনেকেই!

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৮:৩৯, মে ২৭, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৪৩, মে ২৭, ২০১৭

চলতি বছরের শুরুতেই পাঠ্যপুস্তকে বিভিন্ন লেখকের লেখা সংযোজন-বিয়োজনের ঘটনা নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছিল বিভিন্ন  শ্রেণি-পেশার মানুষের মধ্যে। অনেকের মতে, একটি ইসলামি দলের চাপের কাছে নতি স্বীকার করার কারণেই পাঠ্যপুস্তক থেকে শুধু ধর্মের অজুহাত দেখিয়ে বাংলা সাহিত্যের প্রতিষ্ঠিত লেখকদের লেখা বাদ দেওয়া হয়েছে।

বেশ আলোচিত সমালোচিত হলেও বিস্ময়করভাবেই অনেকেই এই বিষয়টি সম্পর্কে জানেন না আর যারা জানেন তাদের অনেকেই মনে করেন, ধর্মীয় মূল্যবোধের প্রশ্ন তুলে এসব লেখা বাদ দেওয়া মোটেও উচিত হয়নি।

সম্প্রতি বাংলা ট্রিবিউনের দেশব্যাপী ২ হাজার ৪০০ জনের ওপর পরিচালিত  ‘তারুণ্য ২০১৭: নতুন প্রজন্ম যা ভাবছে’ শীর্ষক এক জরিপের ফল বিশ্লেষণের পর পাওয়া তথ্যে দেখা গেছে, দেশের ৪৭.৭১ শতাংশ তরুণদের এ বিষয়টি সম্পর্কে যথেষ্ট ধারণা নেই। ৩২ শতাংশ জানিয়েছেন সম্প্রতি পাঠ্যপুস্তক থেকে অনেক অমুসলিম বাংলা ভাষার প্রতিষ্ঠিত লেখকের লেখা বাদ দেওয়ার যে ঘটনা ঘটেছে, সে সম্পর্কে তারা অবগত নন। বিষয়টি নিয়ে চিন্তিত নন বলে জানিয়েছেন ১৩ শতাংশ তরুণ।

এ সংশোধনী সম্পর্কে আপনার মত কী—এমন প্রশ্নের জবাবে ২৯ শতাংশ জানিয়েছেন, তাদের মতে, এ সংশোধনী মোটেই ঠিক নয়। অন্যদিকে ৪৫ শতাংশ এ বিষয়ে যথেষ্ট জানেন না বলে প্রশ্নটি এড়িয়ে গেছেন। এ ধরনের সংশোধনী ঠিক আছে বলে মত দিয়েছেন প্রায় ১৫ শতাংশ অংশগ্রহনকারী।

জরিপ পরিচালনা: বাংলা ট্রিবিউন

 

জরিপ পরিচালনার সময়কাল:
১ এপ্রিল - ৬ এপ্রিল, ২০১৭
নমুনা সংগ্রহের প্রক্রিয়া:
 
  • দৈবচয়ন পদ্ধতিতে সারাদেশের ৮ টি বিভাগীয় শহর ও ২৪টি জেলার গ্রামীণ অঞ্চল থেকে ২ হাজার ৪০০ জন তরুণের ওপর এই জরিপটি পরিচালনা করা হয়।
  • শহুরে ও গ্রামীণ জনপদের সমান সংখ্যক তরুণের কাছ থেকে নমুনা নেওয়া হয়েছে।
  • প্রতিটি বিভাগের বিভাগীয় শহরের বাসিন্দাদের শহুরে হিসেবে ধরা হয়েছে।
  • জেলার গ্রামাঞ্চলের প্রতিনিধিদের গ্রামীণ জনপদের প্রতিনিধি হিসেবে ধরা হয়েছে।
  • প্রতিটি বিভাগীয় শহর থেকে ১৫০ জনের ওপর জরিপ পরিচালনা করা হয়েছে।
  • গ্রামীণ ডাটার জন্য বিভাগীয় শহর ছাড়া তিনটি জেলাকে নির্বাচন করা হয়েছে।
  • বড় বিভাগের ক্ষেত্রে বিভাগীয় শহর ছাড়া জেলাগুলো দৈবচয়নে নির্ধারণ করা হয়েছে।
  • প্রতিটি জেলার গ্রামীণ জনপদ থেকে ৫০ জনের ওপর জরিপ চালানো হয়েছে।

/এস জি/ এমএনএইচ/

 

লাইভ

টপ