পর্দা উঠলো লিট ফেস্টের

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১২:২৯, নভেম্বর ১৬, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:৪০, নভেম্বর ১৬, ২০১৭

লিট ফেস্ট উদ্বোধন করছেন সিরিয়ার কবি আদোনিস; সঙ্গে লিট ফেস্টের তিন পরিচালক ও বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকআধ্যাত্মিক সুরের মূর্ছনায় সকাল থেকেই উজ্জ্বল বাংলা একডেমির লন। হৃদয়ে কম্পন তোলা সেই গানের কথা ও সুরের টানে কর্মব্যস্ত সকালেও ছুটে এসেছেন শ্রোতা। গায়িকাও অতি পরিচিত নেদা শাকিবা। তার সুরের লহর দিয়েই বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) শুরু হলো ঢাকা লিট ফেস্টের সপ্তম আসর।
বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে এখন বইছে সাহিত্যের জোয়ার। সেই জোয়ারে গা ভাসাতে এসেছেন সিরিয়ার কবি আদোনিস। তিনি উদ্বোধন করলেন দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় সাহিত্য উৎসব ‘ঢাকা লিট ফেস্ট -২০১৭’। আদোনিসকে এক পলক দেখতে রীতিমতো ভিড় জমিয়েছে দর্শক। বাংলা একাডেমির আব্দুল করীম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে তিল ধারণের সুযোগ যেন নেই। সঙ্গে ছিলেন ঢাকা লিট ফেস্টের তিন পরিচালক কাজী আনিস, সাদাফ সায্ ও আহসান আকবার।
সাদাফ সা্য্‌ বক্তব্য রাখছেন লিট ফেস্টের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানেউদ্বোধনী অনুষ্ঠানে লিট ফেস্টের পরিচালক সাদাফ সায্ বলেন, ‘সপ্তমবারের মতো এই আয়োজন করতে পেরে আমরা উচ্ছ্বসিত। এ বছর আমরা অন্যান্যবারের চেয়েও অনেক বড় পরিসরে আয়োজন করেছি লিট ফেস্ট। এ বছর বিদেশি অতিথি এসেছেন ৭৫ জন। আর আমাদের দেশি অতিথি রয়েছেন দেড়শ। তিন দিনে ৯০টির মতো সেশনের আয়োজন করা হয়েছে।’
এ বছরের লিট ফেস্টের বিভিন্ন আয়োজন সম্পর্কে সাদাফ সায্ বলেন, ‘এ বছর আমরা লিট ফেস্টে দক্ষিণ এশিয়ার ইংরেজি ভাষার সাহিত্যের সম্মানজনক ডিএসসি প্রাইজ ঘোষণা করছি। ব্রিটিশ জার্নাল ‘গ্রান্টা’র যাত্রাও এ বছর শুরু হচ্ছে এই আয়োজনে। আর প্রতিবছরের মতো জেমকন সাহিত্য পুরস্কার তো রয়েছেই।’ বিভিন্ন বাধা সত্ত্বেও এ বছর যেমন লিট ফেস্ট আয়োজিত হচ্ছে, তেমনি ভবিষ্যতেও এই আয়োজন অব্যাহত থাকবে বলে আশাবাদ জানান তিনি।
বক্তব্য রাখছেন আহসান আকবারবক্তব্যের শুরুতেই বিরূপ আবহাওয়ার মধ্যেও সবাইকে হাজির হওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানান লিট ফেস্টের পরিচালক আহসান আকবার। তিনি বলেন, ‘অনেকেই আমার কাছে জানতে চেয়েছেন, এ বছরের লিট ফেস্টের থিম কী। তাদের জন্য বলবো, এ বছর আমাদের থিম হলো- বাধাকে না বলা।’
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন লিট ফেস্টের পরিচালক কাজী আনিসলিট ফেস্টের আরেক পরিচালক কাজী আনিস বলেন, ‘এ উৎসব আয়োজন আমরা কেন করি, তা অনেকে জানতে চান। এর উত্তর হলো- আমরা সাহিত্য ও শিল্পকে পৃষ্ঠপোষকতা করতে চাই। ভাষাভাষীর দিক থেকে বাংলা পৃথিবীর সপ্তম বৃহত্তম ভাষা। আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতি রয়েছে। এই সংস্কৃতি আমাদের এতই ঘিরে রাখে যে আমরা অন্য দেশের সংস্কৃতির দিকে তাকানোর সুযোগ পাই না।’
কাজী আনিস আরও বলেন, ‘কিন্তু বঙ্গবন্ধু স্বাধীন জাতি হিসেবে আমাদের ভাষা-সাহিত্য-সংস্কৃতিকে এগিয়ে নেওয়ার কথা বলেছিলেন। আমরাও চাই, আমাদের ভাষা-সাহিত্যকে এগিয়ে নিতে, বিশ্বের সামনে আমাদের ভাষা-সাহিত্যকে তুলে ধরতে। লিট ফেস্টেও আমাদের মূল মনোযোগের জায়গাতে থাকে আমাদের ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি।
পরে সিরিয়ার কবি আদোনিস ‘ঢাকা লিট ফেস্ট-২০১৭’-এর উদ্বোধন ঘোষণা করেন। এসময় তার সঙ্গে লিট ফেস্টের তিন পরিচালক ছাড়াও ছিলেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান।
ছবি: নাসিরুল ইসলাম

/এসও/টিআর/

লাইভ

টপ