ঐহিত্যবাহী লাঠি খেলায় মুগ্ধ লিট ফেস্টের দর্শক

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১২:৩৩, নভেম্বর ১৭, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:১৯, নভেম্বর ১৭, ২০১৭

লাঠি খেলা দর্শকদের মুগ্ধ করেছে নড়াইলের লাঠিয়াল বাহিনীঢাকা লিট ফেস্টের দ্বিতীয় দিন শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) সকাল থেকেই বিভিন্ন শ্রেণি-পেশা ও বয়সের মানুষের আনাগোনায় মুখর বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ। কেউ বিভিন্ন স্টল ঘুরে বেড়াচ্ছেন, কেউ শুনছেন দেশি-বিদেশি সাহিত্যিকদের আলোচনা। এরই মধ্যে হঠাৎ একাডেমির নজরুল মঞ্চের সামনে আবির্ভাব একদল লাঠিয়ালের। মাথার ওপর বনবন করে লাঠি ঘোরাতে ঘোরাতে হাজির হওয়া ১৫-২০ জন লাঠিয়ালের তাণ্ডবে হঠাৎ করেই আশপাশে উপস্থিত মানুষের মধ্যে খানিকটা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তবে সেই আতঙ্ক স্থায়ী হয়নি। মঞ্চে দাঁড়িয়ে উপস্থাপক জানালেন, গ্রামবাংলার একসময়ের ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা দেখাতেই লিট ফেস্ট চত্বরে হাজির হয়েছে এই লাঠিয়াল বাহিনী।
সকাল সোয়া ১১টার দিকে শুরু হয় লাঠি খেলা। নড়াইল থেকে আসা এই লাঠিয়াল বাহিনীর নাম ‘বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ লাঠিয়াল যুব সংঘ’। ১৫-২০ জনের এই দলে তরুণদের পাশাপাশি রয়েছেন তরুণীরাও। শুধু তাই নয়, লাঠি খেলায় মেয়েরা যে ছেলেদের চেয়ে কোনোভাবেই পিছিয়ে নেই, সেটাও স্পষ্ট প্রমাণ হয়ে যায় যখন ছেলে-মেয়ে দুই দলে ভাগ হয়ে খেলার সময় জয়ী জয় মেয়েদের দলই।
বাজনার তালে তালে দেখানো হয় লাঠি খেলার কসরৎপ্রায় পৌনে একঘণ্টা ধরে নড়াইলের লাঠিয়াল বাহিনী প্রদর্শন করে বিভিন্ন ধরনের কসরৎ। কখনও দলের সবাই একসঙ্গে, কখনও এককভাবে, কখনও ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে বিভিন্ন ধরনের খেলা দেখাতে থাকেন। লাঠি দিয়েই বল্লম ছোঁড়া ও প্রতিপক্ষ দলের আক্রমণ প্রতিরোধ, সাধারণ আক্রমণ ও প্রতিআক্রমণের বিভিন্ন কৌশল দেখে মুগ্ধ হয়েছেন উপস্থিত দর্শনার্থীরা।
লাঠি খেলার অন্যতম উল্লেখযোগ্য অংশে ছিল দলটির সবচেয়ে ছোট সদস্যের একটি কসরৎ। একটা পর্যায়ে ওই ছোট্ট সদস্যটি উঠে দাঁড়ায় একটি বাঁশের ওপরে। বাইরে তখন ঢোলের বাড়ির ছন্দ। সেই ছন্দের তালে তালে দুই পায়ে দাঁড়িয়ে ওই লাঠিয়াল মাথার ওপর ঘোরাতে থাকে লাঠি, দেখাতে থাকে বিভিন্ন ধরনের কৌশল। দর্শকদের তখন দমবন্ধ অবস্থা। সামান্য একটি বাঁশের ওপর দাঁড়িয়ে এভাবে লাঠির খেলা দেখানো যায়, তা যেন চোখে দেখেও বিশ্বাস করতে পারছেন না উপস্থিত দর্শকরা।
লাঠি খেলায় মেয়েদের দল হারিয়ে দেয় ছেলেদের দলকেলাঠি খেলার শেষের দিকে দাঁ-বটির মতো দেশীয় সব উপকরণ ব্যবহার করে আরও কসরৎ দেখাতে থাকে লাঠিয়াল বাহিনী। একদিকে ঢোলের ছন্দ, অন্যদিকে লাঠিয়াল বাহিনী- দুয়ে মিলে নজরুল মঞ্চের সামনের অংশে ফিরে আসে গ্রামীণ কোনও পটভূমি।
লাঠি খেলার সময় উপস্থিত দর্শনার্থীরা রীতিমতো মুগ্ধ এই খেলা দেখে। খেলার বিভিন্ন সময়ে মুহুর্মুহু করতালি আর উচ্ছ্বাস তারই প্রমাণ দেয়। দর্শকদের অনেকেই বললেন, এর আগে কখনও লাঠি খেলা দেখেননি তারা। উপস্থিত শিশুদের অনেকে শুরুতে ভয়ও পেয়েছে। তবে পরে তারাও করতালি ভাসিয়েছে লাঠিয়াল বাহিনীকে।
লিট ফেস্টে বাংলার ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলাউত্তরা থেকে আসা একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তাসমিয়া বলেন, ‘আমার বাড়ি যশোর। এসএসসি পরীক্ষার পরই ঢাকা চলে এসেছি। তবে গ্রামে থাকতেও কখনও লাঠি খেলা দেখার সুযোগ হয়নি। আজ লিট ফেস্টে এসে এই লেখা দেখে অসম্ভব ভালো লেগেছে।’
গণমাধ্যমকর্মী বনি জায়সাল পান্ডে বলেন, ‘ঢোলের বাজনার সঙ্গে সঙ্গে তাল রেখে মেয়েরা যেভাবে লাঠি খেলা দেখিয়েছে, তা দেখে আমি মুগ্ধ। আমার মনে হয়, আমাদের সব মেয়েদের এমন লাঠি খেলার কৌশল জানা থাকলে আমরা নিজেরাও যেকোনও পরিস্থিতিতে আত্মরক্ষা করতে পারবো।’ শিশু শিক্ষার্থী উরসিয়াও মুগ্ধ লাঠি খেলা দেখে।

/এমডিপি/টিআর/

লাইভ

টপ