রাজধানীতে পৃথক ঘটনায় নারীসহ চারজনের লাশ উদ্ধার

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:৩০, নভেম্বর ১৭, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৩০, নভেম্বর ১৭, ২০১৭

লাশ উদ্ধাররাজধানীতে পৃথক ঘটনায় নারীসহ চারজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিহতদের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। ময়নাতদন্ত শেষে বিকালে স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।
উদ্ধার করা লাশগুলো হলো- খিলগাঁওয়ের মেহেদুল ইসলাম (২৫), মোহাম্মদপুরের আমেনা আকতার (১৮), একই এলাকার দীপা আহমেদ (৩৮) ও উত্তরখানের সজীব মিয়া (২৮)।
খিলগাঁও থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) আমির হোসেন জানান, রামপুরা-বনশ্রী প্রজেক্টের ব্লক-এইচের ৩/১ রোডের ১৮/১ নম্বর বাসা থেকে বৃহস্পতিবার রাতে দরজা ভেঙে মেহেদুল ইসলামের (২৫) ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়।
তিনি জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে মেহেদুল গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। মৃত্যুর কারণ জানার চেষ্টা চলছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেলে সঠিক কারণ জানা যাবে। সে বগুড়া জেলার ধুপচাঁচিয়া উপজেলার ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের আব্দুর রহিমের বাবুর ছেলে।
মোহাম্মদপুর থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) মারুফ হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার রাতে একতা হাউজিং এলাকার ২ নম্বর রোডের একটি বাড়ি থেকে আমেনা আক্তার (১৮) নামে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়।
ওই নারীর পরিবারের বরাত দিয়ে তিনি জানান, পছন্দের ছেলের সঙ্গে তার বিয়েতে দ্বিমত পোষণ করে পরিবার। এ কারণে আমেনা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। এছাড়া অন্যকোনও কারণ রয়েছে কিনা তা ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে। সে শরিয়তপুর জেলার ডামুরডা উপজেলার সৈয়দবস্তা গ্রামের মোয়াজ্জেম মোল্লার মেয়ে।

অন্যদিকে, মোহাম্মদপুর রায়ের বাজার সুলতানগঞ্জ রায়ের বাজার কমিশনারের গলির একটি বাসা থেকে দরজা ভেঙে দীপা আহমেদ (৩৮) নামে এক নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

মোহাম্মদপুর থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) সজল মিয়া জানান, গত রাতে ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে দীপা আত্মহত্যা করেছে বলে তার পরিবার জানিয়েছে। সে তার স্বামী তারেক আহমেদ শাকিলের সঙ্গে ওই বাসায় থাকতো। দীপা মানসিক রোগী এবং হতাশাগ্রস্ত ছিল। এর আগেও সে কয়েকবার আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিল। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

এছাড়া, উত্তরখান থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) তারিকুল ইসলাম জানান, গত রাতে উত্তর খান মুন্ডা চানপাড়া এলাকার একটি টাইলস কারখানা থেকে সজীব মিয়া (১৬) নামে কিশোর শ্রমিকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

তিনি জানান, টাইলস কারখানায় শ্রমিক হিসেবে কর্মরত ছিলো সজীব। কি কারণে সে আত্মহত্যা করেছে তা জানা যায়নি। সে ঘটনার দিন বৃষ্টির কারণে বাসায় না গিয়ে কারখানাতেই ছিল।

/এআইবি/এমও/

লাইভ

টপ