‘সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে কমিশন ও রাজনৈতিক দলকে একে অপরকে সহযোগিতা করতে হবে’

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:২৭, মে ১৭, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৪৭, মে ১৭, ২০১৮





বাংলা ট্রিবিউন বৈঠকিজাতীয় নির্বাচন অথবা স্থানীয় নির্বাচন যেটাই অনুষ্ঠিত হোক না কেন, নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী ভূমিকা গ্রহণ করতে হবে। শুধু তা-ই নয়, দেশের সব রাজনৈতিক দলেরও উচিত সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশনকে সহযোগিতা করা। আবার কমিশনেরও উচিত নির্বাচনে সব রাজনৈতিক দলের প্রার্থীকে সংবিধান অনুযায়ী তার অধিকার সুষ্ঠুভাবে ভোগ করতে সহযোগিতা করা।
দেশের শীর্ষস্থানীয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলা ট্রিবিউনের আয়োজনে বৃহস্পতিবার (১৭ মে) বিকাল সাড়ে ৪টায় বাংলা ট্রিবিউন কার্যালয়ে আয়োজিত বৈঠকিতে এসব কথা বলেন আলোচকেরা। এ আয়োজন সরাসরি সম্প্রচার করে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন নিউজ। পাশাপাশি বাংলা ট্রিবিউনের ফেসবুক ও হোমপেজে লাইভ দেখা যায় বাংলা ট্রিবিউন বৈঠকি।
মাহমুদুল হকের সঞ্চালনায় বৈঠকিতে অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন ও অধ্যয়ন বিভাগের অধ্যাপক ও নির্বাচন পর্যবেক্ষক কাজী মারুফুল ইসলাম, ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের পরিচালক আবদুল আলীম, ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের প্রধান বার্তা সম্পাদক আশিষ সৈকত, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ এবং বাংলা ট্রিবিউনের হেড অব নিউজ হারুন উর রশীদ।

কাজী মারুফুল ইসলামঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন ও অধ্যয়ন বিভাগের অধ্যাপক ও নির্বাচন পর্যবেক্ষক কাজী মারুফুল ইসলাম বলেন, ‘সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণের অন্যতম পূর্বশর্ত হচ্ছে ভোটকেন্দ্রে স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোটারদের উপস্থিতি থাকবে, ভোট দেবে। মূলত শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণ হবে। খুলনায় বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে আমি গিয়েছি, দেখেছি খুব ভালো ভোট পড়েছে। কিন্তু কিছু কেন্দ্রে কিছু বাধা এসেছে। তবে খুব একটা বড় ধরনের সমস্যা চোখে পড়েনি।’

আগামী মাসের গাজীপুরের নির্বাচন বিষয়ে তিনি বলেন,‘স্থানীয় সরকার নির্বাচন ও জাতীয় নির্বাচনের প্রেক্ষাপট ভিন্ন। অথচ স্থানীয় সরকার নির্বাচনকে এমনভাবে জাতীয় নির্বাচনের সঙ্গে আলোচনায় জড়ানো হচ্ছে এতে করে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে স্থানীয়রা। কারণ, জাতীয় নেতারা যখন স্থানীয় নেতাদের ওপর এতটাই নির্ভরশীল হয়ে পড়ছেন, তখন ওই স্থানীয় নেতারা তাদের স্থানীয় সাধারণ মানুষের জন্য দেওয়া প্রতিশ্রুতি কতখানি রাখতে পারবেন, তা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। ফলে ওই স্থানীয় নির্বাচনকে ওই গণ্ডির মধ্যেই রাখার দায় রয়েছে সব রাজনৈতিক দলের।

কাজী মারুফুল ইসলাম বলেন, ‘গাজীপুর নির্বাচনের জন্য খুলনা নির্বাচন থেকেই শিক্ষা নেওয়ার আছে, নির্বাচন কমিশনের যে ভূমিকা তা এর নির্দিষ্ট মাপকাঠির চেয়ে অনেক নিচে ছিল। ফলে নির্বাচন কমিশনের কিছু শক্তিশালী ভূমিকা রাখতে হবে। পুলিশ প্রশাসনকে নিরপেক্ষ থেকে কাজ করতে হবে। নির্বাচনের প্রার্থীদের নির্বাচনি প্রচারণা অর্থাৎ সাংবিধানিক অধিকারটি নির্বাচন কমিশনকেই সুষ্ঠুভাবে ভোগ করার ব্যবস্থা করে দিতে হবে।’

আবদুল আলীমইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের পরিচালক আবদুল আলীম বলেন, ‘বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সময়ে স্থানীয় সরকার নির্বাচন যতগুলো হয়েছে,সবগুলোই কিন্তু অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হয়েছে। কিন্তু জাতীয় নির্বাচন ২০১৪ সাল থেকে অংশগ্রহণমূলক হচ্ছে না। খুলনায় যারা প্রার্থী,তারা দলবল নিয়ে গেছেন। কিন্তু এটা নিষিদ্ধ। কিন্তু তারা অনেকেই তা করেছেন।’
তিনি বলেন, ‘এই যে প্রচারণা তা ছিল শান্তিপূর্ণ। কারণ,কোনও বড় ধরনের ভায়োলেশন হয়নি,বড় ধরনের কোনও মারামারি হয়নি,কেউ মারা যায়নি। ফলে নির্বাচন সে অর্থে সুষ্ঠুভাবেই হয়েছে।’
আসন্ন গাজীপুর সিটি নির্বাচন বিষয়ে আবদুল আলীম বলেন, ‘যেহেতু কাল (শুক্রবার) থেকে রোজা শুরু হচ্ছে, এদিকে সামনেই গাজীপুরে নির্বাচন। সেক্ষেত্রে নির্বাচনের প্রচারণা হিসেবে গরিবদের দান করা যাবে কিনা, জাকাত দেওয়া যাবে কিনা, ইফতার পার্টির আয়োজন করা যাবে কিনা, এখনই এসব বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে ঠিক করে দিতে হবে। কারণ, সময় হাতে নেই। সব কথার শেষ কথা, ইলেকশন জাতীয় হোক আর স্থানীয় হোক, কমিশনকে আরও শক্ত ভূমিকায় আসতে হবে। এবং অন্য দলগুলোর উচিত কমিশনকে সহযোগিতা করা।’

ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের প্রধান বার্তা সম্পাদক আশিষ সৈকত বলেন, “সদ্য সমাপ্ত খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আগমুহূর্তে একটি ভীতিকর পরিস্থিত সৃষ্টি হয়েছিল। জনমনে একরকম আতঙ্ক কাজ করেছে। তবে ভোটগ্রহণের দিন দেখা গেলো সেখানে গ্রহণযোগ্য ভোট অনুষ্ঠিত হচ্ছে। উৎসবমুখর ছিল, এটা ঠিক; তারপরও বিছিন্ন কিছু ঘটনা ছিল,এটাও ঠিক। কিন্তু খুব বড় ধরনের কিছু হয়নি। তবে ভয়ভীতির একটি পরিস্থিতি ছিল। ফলে শতভাগ ‘লেভেল প্লেইং ফিল্ড’ ছিল তা বলা ঠিক হবে না, এটা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।”

আশিষ সৈকততিনি বলেন, ‘আবার নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়েও তো প্রশ্ন রয়েছে। বিএনপি ও আওয়ামী লীগের পক্ষে-বিপক্ষেও অভিযোগ ছিল। বিএনপি’র নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হচ্ছে অভিযোগ করে তারা আদালতেও গিয়েছে, যাতে নির্বাচনের সময় তাদের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা না হয়। সে হিসেবে এখানে কমিশনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন চলে আসে। ফলে সেখানে একধরনের ভয়ভীতি কাজ করেছিল। তারপরও আমি মনে করি, এই নির্বাচনে খুব ভালো ভোটার সংখ্যা ছিল, তা আমি মানতে রাজি নই। কারণ, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ৬০ শতাংশ ভোটার আসা তুলনামূলকভাবে কমই বলা যায়।’

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, ‘২ কোটি ভোটার লুকিয়ে নির্বাচন করতো বিএনপি, সেটার আমূল পরিবর্তন সুষ্ঠুভাবে করেছে আওয়ামী লীগ। বাংলাদেশের নির্বাচনি সংস্কারগুলো যে আওয়ামী লীগ বাস্তবায়ন করেছে, তা হচ্ছে সচ্ছ ব্যালট বাক্সসহ সমস্ত নির্বাচন ব্যবস্থা।’

তিনি বলেন, ‘বিজয়ী তালুকদার খালেক জয়লাভের পরেই মঞ্জুকে সঙ্গে নিয়ে দেশের জন্য কাজ করতে যাওয়ার ঘোষণা দিলেন,অথচ সেই সন্ত্রাসী মঞ্জু তা প্রত্যাখান করে বললেন,ভোট ডাকাতের সঙ্গে তার কোনও কিছু হবে না। এর মানে কি বোঝায়? তিনি কি আদৌ কোনও মানুষের সম্মান রেখেছেন? বিএনপির যে অভিযোগ,তা কেবল দু-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনাকে ফুলিয়ে-ফাপিয়ে প্রচার করা ছাড়া কিছুই নয়। আওয়ামী লীগ কিন্তু নির্বাচন থেকে সরে আসেনি,বিএনপি সরে গিয়েছে। ৩টি সিটিতে জয়ী হওয়ার পরও বিএনপি জাতীয় নির্বাচনে আসার সাহস পায়নি। কিন্তু এবার অন্তত খুলনা সিটি নির্বাচনে তারা অংশ নিয়েছে,এ জন্য তাদের ধন্যবাদ।’

মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলআওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘বিএনপি এমন অবস্থায় দাঁড়িয়েছে, তাদের মনে হয় হাতে করে সবখানে ক্ষমতা দিয়ে দিলেই তারা খুশি। তবে আমি বিএনপিকে অনুরোধ করবো, নির্বাচন কমিশন তাদের কাজ সুষ্ঠুভাবে করে যাচ্ছে, আরও যাতে ভালোভাবে, সুষ্ঠুভাবে কাজ করতে পারে সেদিকটা খেয়াল রেখে কমিশনকে সহযোগিতা করুন। কারণ, দিন শেষে এই কমিশনের ভূমিকাই অনেক বড়।’

বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ বলেন, ‘খুলনার ভোটব্যাংক ও গাজীপুরের ভোটব্যাংক সবই ঠিকঠাকই রয়েছে। এখানে ভোটারের সংখ্যাতেও সমস্যা নেই। আমি নির্বাচনের সময় খুলনা গিয়েছিলাম। নির্বাচনি প্রচারণার সময় দেখেছি, নৌকার জন্য ভোট চাওয়া হচ্ছে, কোনও সমস্যা নেই। বিএনপির মঞ্জুর পক্ষে ভোট চাইতে পারছেন না গ্রেফতারের ভয়ে। আমার পাশ থেকে একটি ছেলেকে ডিবি ধরে নিয়ে গেলো। জানতে চাইছিলাম তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ কী? কিন্তু তারা তা দেখাতে পারেনি। পরে ভোটগ্রহণের দিন দেখলাম, দুপুরের মধ্যে ব্যালট শেষ হয়ে গেছে। মিডিয়া দেখিয়েছে, কীভাবে নৌকায় সিল মারা হয়েছে। কয়েকটি কেন্দ্রে ৯০ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে। এটা কি বাস্তব? যে তিনটি ভোটকেন্দ্র স্থগিত করা হয়েছে তার বাইরেও অনেক কেন্দ্রে ভোট জালিয়াতি হয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘নির্বাচনে ঐক্য ছিল, এটা ঠিক। কিন্তু নির্বাচনে প্রচারণা তো বিএনপিকে করতে দেওয়া হয়নি। ভোটের দিনও ইলেকশন কমিশনারকে মির্জা ফখরুল ইসলাম কল দিয়ে বলেছিলেন, কেন আপনি আমাদের অভিযোগ আমলে নিচ্ছেন না? কিন্তু তিনি সেসব আমলে নেননি। আমরা নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ দাবি করছি এসব কারণেই যে তারা আমাদের সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আমলে নেয়নি।’
শামা ওবায়েদশামা ওবায়েদ আরও বলেন, ‘যারা বিএনপির সিটি নির্বাচিত তাদের জনগণের জন্য কাজ করতে দেওয়া হয় না।তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে জেলে ঢুকিয়ে রাখা হয়।তাহলে জনগণের জন্য কীভাবে তারা কাজ করবে? আওয়ামী লীগ জিতুক, তাতে তো সমস্যা নেই। কিন্তু মানুষকে ভোট দেওয়ার অধিকার দিন। কেন একজন বৃদ্ধ ভোটার কেন্দ্রে যাওয়ার আগেই ভোট দেওয়া হয়ে যায়?’

বাংলা ট্রিবিউনের হেড অব নিউজ হারুন উর রশীদ বলেন, ‘নির্বাচন ফেয়ার হলো কিনা, তা বুঝতে হলে এর প্রক্রিয়া শুরু থেকে ফল ঘোষণা পর্যন্ত টোটাল বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করতেই হয়। প্রথমে প্রার্থীরা একে অপরের বিরুদ্ধে তাদের হলফনামায় তথ্য গোপনের অভিযোগ তুলেছিলেন, অথচ সেই অভিযোগের কিন্তু সেই অর্থে কোনও সুরাহা হয়নি। কিন্তু ইলেকশন কমিশনের আইন অনুযায়ী তদন্তে যদি অভিযোগুলো প্রমাণিত হয়, তাহলে তাদের প্রার্থিতা বাতিল হওয়ার কথা। ফলে প্রথমেই নির্বাচন কমিশন অস্বচ্ছ ও অনৈতিক কাজ করলো। এরপর আসি গ্রেফতারি বিষয়টি নিয়ে। প্রশ্নটা হলো, সারাদেশে ওয়ারেন্ট ও গ্রেফতার একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। কিন্তু বিশেষ পরিস্থিতিতে, বিশেষভাবে যখন নির্বাচনের সময় বিশেষ ব্যক্তিদের, যারা দলীয় লোকজন, তখন তাদের গ্রেফতার করা হয় এবং এগুলো চোখে পড়ে, তখন নির্বাচনকে কিছুটা হলেও ব্যাহত করে। এমন গ্রেফতারে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও গ্রেফতার করা হয়েছে।’
হারুন উর রশীদতিনি বলেন, “খুলনা নির্বাচনে তিনটি সেন্টার বাতিল হয়েছে, অমি এটা খুব বেশি বড় ঘটনা মনে করি না। কিন্তু আমার প্রশ্ন অন্য জায়গায়, কয়েকটি কেন্দ্রে ব্যালট সংকট হয়েছে। এই সংকটের কারণটা কী? আমি একটু বোঝার চেষ্টা করেছি। কারণ, কেন্দ্রে কত ভোটার সে অনুযায়ীই তো ব্যালট পাঠানো হয়। আর এই ব্যালট সংকট একাধিক কেন্দ্রেই দেখা গেছে। এটা কী কারণে? এটা আমার কাছে খুবই বড় একটি ঘটনা বলে মনে হয়েছে। এ বিষয়ে খবরও প্রকাশিত হয়েছে, ‘আপনার ভোট দেওয়া হয়ে গেছে, আপনি বাড়ি চলে যান’। তাহলে এই ভোট কাকে দেওয়া হয়েছে? ফলে মানদণ্ডের অর্থে যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা সেটা করতে ব্যর্থ হয়েছে।”
বিশিষ্ট এই সাংবাদিক আরও বলেন, ‘ওখানে বেশ কিছু সাংবাদিককে নির্বাচনের খবর কাভার করার জন্য কার্ড দেওয়া হয়েছে। এর বাইরেও কিছু ব্যক্তিকে কার্ড দিয়েছে, যারা সাংবাদিক না। যারা বিভিন্ন কেন্দ্রে একটি নির্দিষ্ট ভূমিকা পালন করেছে। এরা তাহলে কারা? যারা বিভিন্ন প্রার্থীর পক্ষে তারা ওয়ার্ক করেছে। এটা ওখানকার মেইনস্ট্রিম সাংবাদিকরা এর প্রতিবাদও করেছেন।‘
খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির ভূমিকা তুলে ধরে হারুন উর রশীদ আরও বলেন, ‘মঞ্জু সাহেব নির্বাচন নিয়ে অনেক আওয়াজ দিয়েছেন, মাঠে ছিলেন। তবে সে অর্থে বিএনপির অবস্থান একটু নড়বড়ে ছিল। তাদের কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীদের খুব একটা মাঠে দেখা যায়নি। তবে এটা ঠিক যারা নির্বাচনে জয়লাভ করেছে তারা স্ট্রিমরোলারকে উপেক্ষা করেই জয়লাভ করেছে।’

 

 

/আরএআর/এইচআই/

লাইভ

টপ