পর্দাতেই ফুটে ওঠে নির্মাতার ‘নিয়্যাত’: নন্দিতা দাস

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২০:৪৮, নভেম্বর ০৮, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৫১, নভেম্বর ০৮, ২০১৮







দশ বছর পর নিজের দ্বিতীয় চলচ্চিত্র নিয়ে জনসমক্ষে হাজির হয়েছেন ভারতের সমাদৃত পরিচালক নন্দিতা দাস। তার পরিচালিত ‘মান্টো’ চলচ্চিত্রটির প্রিমিয়ার শো ছিল এবারের ঢাকা লিট ফেস্টের অন্যতম আকর্ষণ। উৎসবের প্রথমদিন বৃহস্পতিবার বিকেলে বাংলা একাডেমির আব্দুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে প্রদর্শিত হয় মান্টো। প্রদর্শন শেষে তিল ধারণের ঠাঁইহীন মিলনায়তনে অ্যানি জাইদির সঞ্চালনায় সবার সঙ্গে মান্টো নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করেন নন্দিতা দাস।
প্রথমেই আলাপের প্রসঙ্গ ছিল কেন ‘মান্টো’। জবাবে পরিচালক নন্দিতা দাস বলেন, সাদাত হোসেন মান্টো ও তার মতো লেখকদের লেখনীর ওপর বার বার আঘাত এসেছে। সমাজের সামাজিক ও আইনি কাঠামোর কারণেও সত্য প্রকাশে লেখকদের বাধার সম্মুখীন হতে হয়েছে। সমাজের এমন অনুদ্ঘাটিত বা চাপা পড়া বাস্তবতা প্রকাশের প্রয়োজনীয়তা গণমানুষের সামনে তুলে ধরার উদ্দেশ্যই হলো ‘মান্টো’।
মান্টোর জীবনী নিয়ে গবেষণা করতে গিয়ে নন্দিতা উপলদ্ধি করেন, এমন অনেক কথাই মান্টো তার সময়ে বলে গেছেন যা আমরা এখন এই একবিংশ শতাব্দীর বাস্তবতায় দাঁড়িয়েও বলতে পারি না। লেখক সাদাত হোসেন মান্টোকে আখ্যা দেওয়া হয় ‘ভারতের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ছোট গল্পকার’ হিসেবে। পাকিস্তানেও এমনটা ভাবা হয়। এর কারণ হিসেবে নন্দিতা বলেন, ‘ওই সমাজের নিদারুণ বাস্তবতার চিত্র মান্টোর মতো করে এত সাবলীলভাবে কেউ কাগজে তুলে আনতে পারেননি।
নিজের অভিনয় জীবনেরও ছোট ছোট গল্প সবাইকে শোনান নন্দিতা। তার মুখ থেকেই জানা যায়, নিজের ইচ্ছায় নয়, হঠাৎ করেই বলিউডে অভিনয় করার দরজা খুলে যায় নন্দিতার।
প্রশ্নোত্তরের বেলায় সবচেয়ে বেশি সরব ছিলেন নন্দিতা। মনোযোগ দিয়ে প্রত্যেকের কথা শোনা, নির্দিষ্ট করে সেসবের উত্তর দেওয়ার ফাঁকেই মাতৃভাষা বাংলায় কথা বলেন।
চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রতি আগ্রহী তরুণ প্রজন্মের প্রতি আশাবাদ ফুটে ওঠে তার কণ্ঠে। নন্দিতা মনে করেন, যখন কোনও চলচ্চিত্র পর্দায় প্রদর্শিত হয়, সেই পর্দায় নির্মাতার ‘নিয়্যাত’ বা উদ্দেশ্য ফুটে ওঠে। এই উদ্দেশ্যই ওই চলচ্চিত্রের সঙ্গে দর্শকের যোগসূত্র তৈরি করে দেয়।
ভারতের চলচ্চিত্র শিল্পে নারীদের অবস্থান, অধিকারের প্রসঙ্গে বলেন, গায়ের রঙ বা সৌন্দর্য নয় প্রত্যেক মানুষের যোগ্যতাই তার অবস্থান নির্ধারণ করে দেয়।
চিন্তা বা বাকস্বাধীনতার ক্ষেত্রে বাধা আসবেই। এমন একটি সমাজেই আমরা বাস করি যেখানে কণ্ঠ রোধ করার চেষ্টা করা হবেই। তবুও এর ভেতর থেকেই আমাদের আরও জোরে কণ্ঠ ছাড়তে হবে। আর লিট ফেস্টের আসরে প্রথমবার এসে এ দায়িত্ব পালনের গুরুভার তিনি দিয়ে গেলেন তরুণ প্রজন্মের কাঁধে। 

/এইচআই/

লাইভ

টপ