প্রসঙ্গ বেক্সিট: মূলে থাকার তাগিদ জেমস মিকের

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:৫৮, নভেম্বর ০৯, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৪৫, নভেম্বর ০৯, ২০১৮




‘ঢাকা লিট ফেস্ট ২০১৮’-এর দ্বিতীয় দিনের মধ্যাহ্ন সেশনে ব্রেক্সিট বিষয়ে ‘দ্য গ্রেট বিট্রায়াল’ শিরোনামে সাক্ষাৎকার পর্বে ছিলেন ‘অরওয়েল’ পুরস্কারপ্রাপ্ত ব্রিটিশ ঔপন্যাসিক ও রাজনৈতিক লেখক জেমস মিক। লেখক ও সম্পাদক এড কামিংসের সঞ্চালনায় কথা বলেন তিনি মূলত ব্রেক্সিটের ওপর তার প্রকাশিতব্য বই ‘ড্রিমস অব লিভিং অ্যান্ড রিমেইনিং’ নিয়ে।

এই সাক্ষাৎকার পর্বের বিভিন্ন পর্যায়ে ব্রেক্সিট নিয়ে ব্রিটিশদের ভাবনা, হতাশা, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির সুর শোনা যায় মিকের কণ্ঠে। নিজের জন্মপরিচয় তুলে ধরার মাধ্যমে তিনি তার মতোই সাধারণ ব্রিটিশ নাগরিকদের অস্তিত্বের সত্যতা ফুটিয়ে তোলেন। তার জন্ম ইংল্যান্ডে হলেও তিনি বেড়ে ওঠেন স্কটল্যান্ডে। তার বাবা জন্মেছিলেন ভারতে, এবং মা ছিলেন জাতিতে হাঙ্গেরিয়ান ইহুদি। বর্তমান সোশ্যাল মিডিয়াকে জাতিগত মেরুকরণের ক্ষেত্রে বিরাট প্রভাবক হিসেবে দায়ী করেন মিক।

২০১৯ সালের এপ্রিলে বাজারে আসতে যাওয়া ‘ড্রিমস অব লিভিং অ্যান্ড রিমেইনিং’ বইটির প্রেক্ষাপট প্রসঙ্গে জেমস মিক বলেন, বইটিতে মধ্যযুগে পৃথিবীর বিভিন্ন সমাজের বিভাজন সম্পর্কে আলোকপাত করা হয়েছে। যদিও এই বিভাজন একুশ শতাব্দীতে এসেও দেশ বা জাতিগুলোর মধ্যে স্পষ্টত দৃশ্যমান। ধর্মনিরপেক্ষ বা এ বিষয়ে অত্যধিক সহনশীল দেশেও জাতিগত বিভাজনের এই প্রবণতা খেয়াল করেছেন মিক। বইটি লিখতে তার সাধনা সম্পর্কে এক প্রশ্নের জবাবে মিক বলেন, এমনও একটা সময় গেছে যখন তিনি টানা আট দিন ১৫০ মাইল পথ হেঁটেছেন ব্রিটেনের বিভিন্ন গ্রাম ধরে, শুধু গ্রামীণ মানুষের জীবনযাত্রা প্রত্যক্ষ করতে। সেসব জনপদ তুমুল এক পরিবর্তনের মুখোমুখি হবে ব্রেক্সিট কার্যকর হলে বলে মনে করেন মিক। তিনি মনেপ্রাণে বিশ্বাস করেন, এ ধরনের লেখনী তখনই সার্থক হবে যখন লেখক ফিরে যাবেন শেকড়ে, মূলের মানুষের কাছে, যেখানে শহুরেদের সঙ্গে তাদের জীবনযাত্রা বইছে ভিন্ন প্রবাহে।

একটি উপন্যাসে বা গল্পে সত্য উদ্ঘাটনে ঔপন্যাসিকদের কোনও হুমকি থাকে কিনা, এক দর্শকের এমন প্রশ্নের জবাবে মিক বলেন, প্রত্যেত লেখকেরই তার নিজের দৃষ্টিভঙ্গি থাকে। ঔপন্যাসিকদের বেলায়ও তা ভিন্ন নয়। আমেরিকান-ব্রিটিশ ঔপন্যাসিক রেমন্ড চ্যান্ডলারের রেসিজম নিয়ে একটি উপন্যাসকে উদ্ধৃত করে তিনি আরও বলেন, এমন নয় যে যেকোনও সামাজিক বিতর্কিত বিষয় ঔপন্যাসিক সরাসরি তার লেখনীতে চিত্রিত করবেন। ভিন্ন কাঠামোতে, ভিন্ন দৃষ্টিকোণে অথবা ভিন্ন আঙ্গিকে সেটি ফুটিয়ে তোলার অধিকার একজন ঔপন্যাসিক সব সময় রাখেন।

/এইচআই/এমওএফ/

লাইভ

টপ