দৃঢ় হলো পাঠক-লেখকের বন্ধন, শেষ হলো ঢাকা লিট ফেস্ট

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২০:৫৯, নভেম্বর ১০, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০৮, নভেম্বর ১০, ২০১৮

সব কিছুই শেষ হয়! শেষ হলো ‘ঢাকা লিট ফেস্ট ২০১৮’ও। তবে অন্য সবকিছুর সঙ্গে এই সাহিত্য আসরের সমাপ্তির ফারাক হলো— ছোটগল্প নিয়ে রবীন্দ্রনাথের কথাটির মতো; ‘শেষ হইয়াও হইলো না শেষ’। ৮ থেকে ১০ নভেম্বর টানা তিন দিন বাংলা একাডেমির ছয়টি ভিন্ন ভেন্যুতে ৯০টির বেশি সেশন— বাৎসরিক এই আয়োজনের পরিসংখ্যান দিয়ে এর ব্যপ্তিকে ছোঁয়া যাবে না। তেমন এ সংখ্যাতত্ত্ব প্রকাশ করতে অক্ষম এই তিন দিনে বাংলাদেশের শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতির প্রতি মানুষের ভালোবাসা, উচ্ছ্বাস।

বৈশ্বিক সাহিত্যের সঙ্গে আমাদের দেশের পাঠকদের কম-বেশি যোগাযোগ থাকলেও সাক্ষাৎ ঘটে না বিদেশি সাহিত্যিকদের সঙ্গে, বিশেষ করে পাশ্চাত্যের সাহিত্যিকদের সঙ্গে। বছরে এই একটি আয়োজনের জন্য তাই মুখিয়ে থাকেন পাঠক। বৈশ্বিক সাহিত্যিকদের সঙ্গে দেশি লেখক-কবিদের পারস্পরিক অভিজ্ঞতা বিনিময়ের স্বীকৃত প্ল্যাটফর্ম হয়ে দাঁড়িয়েছে ঢাকা লিট ফেস্ট। এর ব্যাপ্তি বাড়াচ্ছেন বিশ্বের খ্যাতিমান অভিনেতা, বড় রাজনীতিক, বিদগ্ধ গবেষক, নাম-করা সাংবাদিকরা; বাংলাদেশের পাঠকদের সঙ্গে ভাগ করে নিচ্ছেন তাদের জীবনদর্শন, মতাদর্শ।
সেই ধারাবাহিকতায় এবারও ঢাকা লিট ফেস্টে সময় কাটালেন পুলিৎজার বিজয়ী মার্কিন সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ অ্যাডাম জনসন, পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ লেখক ও কলামিস্ট মোহাম্মদ হানিফ, ব্রিটিশ উপন্যাসিক ফিলিপ হেনশের, বুকারজয়ী ব্রিটিশ ঔপন্যাসিক জেমস মিক, ভারতীয় জনপ্রিয় লেখিকা জয়শ্রী মিসরা, লন্ডন ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অব রাইটিংয়ের পরিচালক ও কথাসাহিত্যিক রিচার্ড বিয়ার্ড, ভারতীয় লেখিকা হিমাঞ্জলি শংকর, শিশুতোষ লেখিকা মিতালি বোস পারকিন্স, ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল এশিয়ার প্রধান হুগো রেস্টল, মার্কিন সাংবাদিক প্যাট্রিক উইন এবং লেখক ও সাংবাদিক নিশিদ হাজারি।
আলো ছড়িয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী মনীষা কৈরালা ও নন্দিতা দাস এবং অস্কার বিজয়ী অভিনেত্রী টিলডা সুইনটোন।
তবে বাংলাদেশের সাহিত্যপ্রেমীদের জন্য সবচেয়ে বড় চমক ছিলেন ভারতীয় লেখক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়। আয়োজনের একেবারে শেষবেলায় খ্যাতির শীর্ষে থাকা এই কথাসাহিত্যিকের সেশনে যোগ দিতে আগ্রহীদের ছিল লম্বা লাইন। এই লাইনের দৈর্ঘ্যই বলে দেয় সাহিত্য ও সাহিত্যিকের প্রতি পাঠকের প্রেম।
এই নিয়ে দ্বিতীয়বার ঢাকা লিট ফেস্টে এলেন অস্কারজয়ী অভিনেত্রী, লেখক টিলডা সুইনটোন। শেষ সময়ে বললেন, ‘আমার অনেক বন্ধু হয়েছে, কিছু পুরোনো আর কিছু নতুন। এর কৃতিত্ব পুরোটাই দর্শকদের। আবারও এই ফেস্টে আমি আসতে চাই।’ শেষ করেন বাংলায় এই উচ্চারণ দিয়ে— ‘আমি আবারও আসতে চাই ঢাকা।’
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, ‘অষ্টম বছরে ঢাকা লিট ফেস্ট, বিগত সাতটি আমি উদ্বোধন করেছি কিন্তু এই বছর পারিনি। আমি আশা করি আগামী বছর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে থাকবো।’
তিনি বলেন, ‘আমি শুভকামনা জানাই, যারা এখানে এসেছেন এবং কয়েকদিন সময় কাটিয়েছেন। আমি এখানে আমার নাতনিকে নিয়ে এসেছি। আমি তাকে জিজ্ঞেস করেছি, আমরা কোথায় এসেছি, বলো? সে আমাকে বলেলো, বইমেলায়। আমি সবাইকে শুভকামনা জানাই।’
ঢাকা লিট ফেস্টের অন্যতম পরিচালক সাদাফ সায্ বলেন, ‘এটা আপনাদের আয়োজন, আপনাদের জন্য আয়োজন। ঢাকা লিট ফেস্টকে সহায়তা করার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ।’

/এইচআই/

লাইভ

টপ