শিক্ষার্থীদের অনশন তুলে নেওয়ার অনুরোধ ঢাবি প্রশাসনের

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২২:১৮, মার্চ ১৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৫৪, মার্চ ১৪, ২০১৯

শিক্ষার্থীদের অনশন তুলে নেওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছেন রোকেয়া হলের প্রভোস্ট জিনাত হুদাঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হলে ডাকসুর পুনর্নির্বাচন দাবিতে অনশনরত শিক্ষার্থীদের কর্মসূচি তুলে নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন হলের প্রভোস্ট জিনাত হুদা। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এ কে এম গোলাম রাব্বানী, কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) নবনির্বাচিত সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর, সাধারণ সম্পাদক (জিএস) গোলাম রাব্বানী ও এজিএস সাদ্দাম হোসেন সেখানে উপস্থিত রয়েছেন।

অনশনকারী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে রোকেয়া হলের প্রভোস্ট জিনাত হুদা বলেন, ‘এখানে যারা উপস্থিত আছো তাদের সঙ্গে নানাভাবে আমার পরিচয় হয়েছে। তোমাদের মধ্যে অসম্ভব কর্মস্পৃহা রয়েছে। আমি তোমাদের শাসন করেছি, ভালোবেসেছি। আমি সব সময় নিজেকে এই রোকেয়া হলের এবং তোমাদের অভিভাবক মনে করেছি। অভিভাবক হিসেবেই থেকেছি। আজ যে ঘটনা ঘটেছে, যে অভিযোগ তোমরা এনেছো সেগুলোর পরও আমি তোমাদের অভিভাবক হিসেবেই থাকবো।’

তিনি বলেন, ‘আমি তোমাদের সঙ্গে ছিলাম, পাশে আছি, থাকবো। আমার ৩০ জন হাউস টিউটর সার্বিকভাবে তোমাদের মনিটরিং করেছে। আমি প্রাধ্যক্ষ হিসেবে বলছি, তোমাদের নামে কোনও মামলা হয়নি। আমি আহ্বান করছি তোমরা হলে ফিরে যাও, ঘরে ফিরে যাও।’

অসুস্থ দুই শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছেএ সময় শিক্ষার্থীরা প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘যখন রোকেয়া হলের সামনে মাত্র পাঁচজন ছাত্রী অনশনে বসেছিল তখন আপনি কোথায় ছিলেন? আপনি তো সেই খবরটা শুনেছেন কিন্তু আপনি তখন কোথায় ছিলেন? আপনার হলের টিউটররা যখন আমাদের সঙ্গে রাত জেগে থেকেছে, সেই খবরও তো আপনি পেয়েছেন তখন আপনি কী করেছিলেন? এর উত্তর আপনাকে দিতে হবে।’

তবে এসব প্রশ্নের কোনও জবাব দেননি প্রভোস্ট। এ সময় অনশনরত দুই ছাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাদের দুইজনকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তাদের একজন রাফিয়া সুলতানা এবং অপরজনের নাম প্রমি। পরে শিক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে প্রক্টরের বাসভবনের সামনে এসে অবস্থান নিয়ে স্লোগান দিতে থাকে। 

এদিকে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে প্রক্টর এ কেএম গোলাম রাব্বানী বলেন, ‘আমি তোমাদের দাবিগুলো শুনেছি। তোমাদের কয়েকজন প্রতিনিধিকে সঙ্গে নিয়ে উপাচার্যের সঙ্গে আলোচনা করবো। সেখানে সিদ্ধান্ত হবে। তোমরা অনশন ভাঙো। আমি তোমাদের কথাগুলোই বলবো। তোমাদের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত হওয়ার কোনও কারণ নেই।’

প্রসঙ্গত, নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে পুনর্নির্বাচন, হল প্রভোস্টের পদত্যাগ, মামলা প্রত্যাহার ও আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তার দাবিতে আমরণ অনশন করছেন রোকেয়া হলের ছয় ছাত্রী। এর মধ্যে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদের চারজন প্রার্থী রয়েছেন। এছাড়া একই দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যেও ছয় শিক্ষার্থী আমরণ অনশন পালন করছেন।

আরও পড়ুন: 

অনশনের ৪৮ ঘণ্টা পরেও প্রশাসনের সাড়া মেলেনি

অনশনকারীরাও যান না, প্রভোস্টও আসেন না!

ডাকসুর পুনঃতফসিলের দাবিতে তৃতীয় দিনের মতো অনশন চলছে

সাক্ষাৎকারে ওয়ালিদ: এমন ডাকসু চাইনি               

/এসজেএ/ওআর/

লাইভ

টপ