‘বিশ্বের কোনও দেশই সন্ত্রাসবাদের হুমকি থেকে মুক্ত নয়’

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৬:৪৯, মার্চ ১৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:০২, মার্চ ১৬, ২০১৯




সন্ত্রাসবাদ-জঙ্গিবাদকে বৈশ্বিক সমস্যা অভিহিত করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ানের (র‌্যাব) মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ বলেছেন, বিশ্বের কোনও দেশই সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদের হুমকি থেকে মুক্ত নয়। সবাইকে এক হয়ে এ বিষয়টি মোকাবিলা করতে হবে।
শনিবার (১৬ মার্চ) রাজধানীর তেজগাঁওয়ে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশের (বিএফডিসি) অডিটরিয়ামে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি আয়োজনে ‘সহিংস উগ্রবাদ প্রতিরোধে তথ্য প্রযুক্তির নিয়ন্ত্রিত ব্যবহার’ শীর্ষক বিতর্ক প্রতিযোগিতা শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘বাংলাদেশের সরকার, জনগণ, সাংবাদিক সবাই সন্ত্রাসবাদ উগ্রবাদের বিরুদ্ধে। তাই এসব আমরা দমন করতে পেরেছি। এটাই আমাদের মূল শক্তি। আমরা এখন এমন একটা পর্যায়ে এসেছি যে সন্ত্রাসবাদবিরোধী বিষয় নিয়ে অনেকের সঙ্গে শেয়ার করতে পারি।’
সন্ত্রাসবাদ নিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিতৃপ্ত নয় জানিয়ে র‌্যাব ডিজি বলেন, ‘আমরা সব সময় চাই দেশের মানুষ যেন জঙ্গিবাদ উগ্রবাদ থেকে নিরাপদে থাকে। সেজন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে গতকালের ঘটনার পর আমরা সর্তক অবস্থায় আছি। আমরা গতকালই রাজধানীর ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোতে র্যাবের টহলদারি বৃদ্ধি করেছিলাম। ওই ঘটনা থেকে আমরা বার্তা গ্রহণ করে সর্বোচ্চ সতর্ক আছি।’

এর আগে বিতর্ক প্রদিযোগিতার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়ায় বা তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে আপনারা যা যা দেখবেন তার সবকিছু বিশ্বাস করবেন না। দেখেশুনে বুঝে বা বিচার-বিশ্লেষণপূর্বক সব বিশ্বাস করবেন। অর্থাৎ গুজবে কান দেবেন না। এই গুজব বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে আমরা টিভিসিও তৈরি করেছি। নির্বাচনসহ বিভিন্ন আন্দোলনের সময় এসব গুজব আমরা লক্ষ করেছি। আমাদের তথ্যপ্রযুক্তির এমন অপব্যবহার রোধ করতে হবে। ইসলামের বিরুদ্ধে কথা বলে যে ইসলামকে কোণঠাসা করে রাখা হয়েছে তার বিপরীতের যুক্তিও ইন্টারনেটে আছে। সেগুলোর প্রচার বাড়াতে হবে।’
র‌্যাব ডিজি বলেন, ‘বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের শেকড় স্থাপিত হতে পারেনি। তরবারির মাধ্যমে এ দেশে ইসলাম প্রচারিত হয়নি বা কোথাও হয় না। এ কারণে এ দেশের বিরুদ্ধে অনেক আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের পরও জঙ্গিবাদের শেকড় স্থাপিত হতে পারেনি। এ ক্ষেত্রে সরকার সফল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় আমরা দেশকে জঙ্গিমুক্ত করতে সফল হয়েছি।’
মাদ্রাসা প্রসঙ্গে বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘মাদ্রাসাও একটি জ্ঞান আহরণের স্থান। টুপি আর দাড়ির কারখানা নয়। এটা সম্পর্কে আমাদের যে ভুল ধারণা সৃষ্টি হয়েছে তাও দূর করতে হবে। তাদেরও দায়িত্ব রয়েছে। সেটা হলো, কোরআন শরিফ হচ্ছে একটি বিশুদ্ধ জীবনবিধান। সেখানেও বলা আছে, তোমরা তোমাদের যুগোপযোগী জীবনবিধান এই কোরআনের আলোকে বের করে নাও। এ দায়িত্ব ইসলামিক চিন্তাবিদদের। যারা এই মাদ্রাসা থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে থাকে, তাদের দায়িত্ব নিয়ে বোঝাতে হবে ইসলাম কতটা উদার। এই ইসলামে জঙ্গিবাদের জায়গা নেই তাও পরিষ্কার করে তুলে ধরতে হবে।’

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে অনুরোধ জানিয়ে র‌্যাব ডিজি বলেন, ‘অন্যান্য দেশের ক্রিকেট দল বাংলাদেশে খেলতে আসলে নিরাপত্তাজনিত বিষয়ে আমাদের অনেক চাহিদা দেয়। তারা বলে সেসব চাহিদা পূরণ না করলে তারা খেলতে আসবে না। কিন্তু আমাদের ক্ষেত্রে এমনটা হয় না। তাই বিসিবিকে অনুরোধ জানাবো অন্যান্য দেশে আমাদের ক্রিকেট দল খেলতে যাওয়ার আগে নিরাপত্তার বিষয়টা নিশ্চিত না করলে আমাদের যাওয়া উচিত নয়। এক্ষেত্রে আরও কঠোর অবস্থানে আসতে হবে আমাদের।’
ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি আয়োজিত এই বিতর্ক প্রতিযোগিতার পক্ষে লালমাটিয়া মহিলা কলেজ এবং বিপক্ষে দারুননাজাত সিদ্দিকিয়া কামিল মাদ্রাসা অংশ নেয়।
বিতর্ক প্রতিযোগিতায় লালমাটিয়া মহিলা কলেজ বিচারকদের বিচার অনুসারে বিজয়ী হয়। পরে উভয় দলের মাঝে ক্রেস্ট বিতরণ করেন বেনজীর আহমেদ।

/এসজেএ/এইচআই/

লাইভ

টপ