হারানো শিশুদের খুঁজে দিয়ে বাবা-মায়ের মুখে হাসি ফোটালো পুলিশ

Send
নুরুজ্জামান লাবু
প্রকাশিত : ২১:৩২, এপ্রিল ১৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৫৫, এপ্রিল ১৫, ২০১৯

বৈশাখী উৎসবে হারানো শিশুকে খুঁজে মায়ের কোলে তুলে দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশের লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড সেন্টার।

একমাত্র সন্তান সামিয়াকে নিয়ে পহেলা বৈশাখের উৎসবে রমনা পার্কে গিয়েছিলেন মা ফাতেমা আক্তার। প্রচণ্ড ভিড়ের মধ্যে হঠাৎ মেয়েকে হারিয়ে ফেলেন তিনি। তারপর হয়ে যান পাগলপ্রায়। চিৎকার করে কান্নাকাটি আর পাগলের মতো মেয়েকে খুঁজতে থাকেন তিনি। কিন্তু এত মানুষের ভিড়ে মেয়েকে ফিরে পাওয়া ছিল প্রায় অসম্ভব। দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা তাকে নিয়ে যান ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কন্ট্রোল রুমের লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড ডেস্কে। সেখান থেকে মেয়েটির বর্ণনা দিয়ে করা হয় মাইকিং। কিছুক্ষণ পরই খুঁজে পাওয়া যায় সামিয়াকে। তারপর মা-মেয়ের চোখে-মুখে আনন্দাশ্রু।

শুধু সামিয়া নয়, আজ পহেলা বৈশাখে এরকম ১৬টি হারানো শিশুকে খুঁজে বের করে বাবা-মায়ের কাছে ফিরিয়ে দিয়ে তাদের মুখের হাসি ফুটিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উদ্যোগে স্থাপিত দুটি লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড সেন্টার। এছাড়াও অসুস্থ হওয়া আরও তিনটি শিশুকে উদ্ধার করে তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে ডিএমপি।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, বাঙালির সর্বজনীন উৎসব পহেলা বৈশাখে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ, পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধব নিয়ে অংশগ্রহণ করেন। বিশেষ করে রমনা পার্ক, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় থাকে সবচেয়ে বেশি ভিড়। নববর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানগুলোতে অংশগ্রহণ করতে অনেকেই তাদের সন্তান বা ছোট শিশুদের সঙ্গে নিয়ে যান। তারা জানান, প্রতিবছরই দেখা যায় অভিভাবকরা একটু অসতর্ক থাকলে বা কৌতূহলী প্রবণতা থেকে বাবা-মায়ের কাছ থেকে একটু দূরে গেলেই মানুষের ভিড়ে হারিয়ে যায় এসব শিশু। অনেককে খুঁজে পাওয়া গেলেও কখনও কখনও শিশুরা হারিয়েও যায়। কিংবা তার বাবা-মায়ের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। তখন সন্তানকে হারিয়ে পাগলপ্রায় হয়ে যান তাদের বাবা-মায়েরা। এসব শিশুকে খুঁজে বের করার জন্যই পুলিশের উদ্যোগ লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড সেন্টার। এজন্য সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও রমনা পার্কের পুলিশ সাব কন্ট্রোল রুমে দুটি লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড সেন্টার করা হয়েছিল। দুই সেন্টার থেকে আজ ১৬ শিশুকে উদ্ধার করে তাদের বাবা-মা ও অভিভাবকের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।

বৈশাখী উৎসবে হারানো শিশুকে খুঁজে মায়ের কোলে তুলে দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশের লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড সেন্টার।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ডের দায়িত্বে থাকা উপ-পুলিশ কমিশনার আশিকুল হক ভুঁইয়া জানান, তারা হারিয়ে যাওয়া মোট পাঁচটি শিশুকে উদ্ধারের পর তাদের বাবা-মা বা অভিভাবকের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছেন। এরা হলো আনোয়ারুল, শুভ, ফাহিম, আহসান ও জাহিদ। এছাড়া আরও তিনটি শিশু অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাদের উদ্ধার করে দ্রুত ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়েছেন।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের মিডিয়া বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) ওবায়দুর রহমান জানান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও রমনা পার্ক থেকে মোট ৯টি শিশুকে উদ্ধার করে বাবা-মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। এরা হলো মুন্নি, রবিউল, মীম, আদনান, সিনহা, তানভীর, মামুন, সাফা ও সোহান।

তিনি জানান, কখনও সন্তানকে হারিয়ে ফেলে তাদের বাবা-মা বা অভিভাবক এসে লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড সেন্টারে জানিয়েছেন আবার কখনও কান্নারত অবস্থায় উদ্ধার হওয়া শিশুকে পাওয়ার পর মাইকিং করে তাদের অভিভাবকদের খুঁজে বের করা হয়েছে।

লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড সেন্টারে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, ওয়ারি থেকে বাবা গোপালের সঙ্গে আসা আট বছরের শিশু মায়ামনি হারিয়ে গিয়েছিল। কান্নারত অবস্থায় পুলিশ তাকে লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড সেন্টারে নিয়ে মাইকিং করে। সেই মাইকিং শুনে বাবা ছুটে এলে তার হাতে মেয়েকে তুলে দেওয়া হয়। একইভাবে হারিয়ে গিয়েছিল কাকরাইল থেকে রমনা পার্কের বৈশাখী উৎসবে আসা ৮ বছরের শিশু শাহরিয়ার। পরে পুলিশ তার বাবা সাইফুলকে খুঁজে তার হাতে তুলে দেয় শাহরিয়ারকে।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের দায়িত্বে থাকা গণপূর্ত বিভাগের কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম জানান, বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে তিনি উদ্যানের গেটে দুই শিশুকে কাঁদতে দেখে তাদের কান্নার কারণ জিজ্ঞাসা করেন। এ সময় দুই শিশু শুভ ও আনোয়ারুল জানায়, তারা তার চাচার সঙ্গে ঘুরতে এসেছিল। চাচাকে হারিয়ে তারা কাঁদছে। পরে তিনি দুই শিশুকে পুলিশের লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড সেন্টারে নিয়ে যান। সেখানকার কর্মকর্তারা মাইকিং করে তার চাচার হাতে দুই শিশুকে তুলে দেন।

লস্ট অ্যান্ড ফাউন্ড সেন্টারে দায়িত্ব পালনকারী ডিএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার হাফিজুর রহমান রিয়েল বলেন, ‘যখন হারিয়ে যাওয়া সন্তানকে ফিরে পেয়ে পরম আদরে তার মা বুকে জড়িয়ে ধরেছিলেন, সেই দৃশ্য আসলে বলে বোঝানো যাবে না। এ এক অভূতপূর্ব দৃশ্য। মানবিক কারণেই আমরা প্রতিবছর পহেলা বৈশাখে বা অন্য যে কোনও উৎসবে পুলিশের পক্ষ থেকে এ ধরনের ব্যবস্থাপনা নিয়ে থাকি। সাধারণ মানুষকে সেবা দেওয়াটাই আমাদের কাজ। এটি আমাদের দায়িত্ব।’

নববর্ষের সব খবর পড়ুন:বর্ষবরণের রঙিন উৎসবের গল্প তাদের চোখে জানবে বিশ্ব

মঙ্গল শোভাযাত্রায় অনন্ত আকাশে মস্তক তোলার প্রত্যয়

সাক্ষীর অভাবে ঝুলে আছে বর্ষবরণে যৌন হয়রানির মামলা

উন্নয়ন-অগ্রযাত্রায় গড়ে উঠবে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী 

বর্ণাঢ্য আয়োজনে খাগড়াছড়িতে চলছে সাংগ্রাই উৎসব

নানা আয়োজনে দেশজুড়ে চলছে বর্ষবরণ

এ বছর হাইকোর্টে শুরু হতে পারে রমনা বটমূলে বোমা হামলা মামলার শুনানি

মুক্তিযোদ্ধাদের নববর্ষের শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী

‘চেতনায় বাঙালি সংস্কৃতি, উগ্রবাদ নয় সম্প্রীতি’ 

বাংলা ট্রিবিউনে প্রতিবেদন: সিলেট পুলিশের সেই নির্দেশনা প্রত্যাহার 

ভাঙা ভাঙা বাংলায় শুভ নববর্ষ  

বাঙালির উৎসবে বৈশাখী সাজে বিদেশিরা

নারীর প্রতি সহিংসতামুক্ত সমাজ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে মীনা ট্রাস্টের বর্ষবরণ

কিছু মানুষ কি পাষণ্ড হয়ে উঠলো: সন্‌জীদা খাতুন

রাগালাপ দিয়ে শুরু ছায়ানটের বর্ষবরণ

আজ পহেলা বৈশাখ, বাঙালিয়ানায় গাঢ় হোক সম্প্রীতির বন্ধন

পহেলা বৈশাখকে ঘিরে বাড়ছে পর্যটনের সম্ভাবনা

বর্ষবরণ ও বাংলাদেশ দেখতে আসছেন ১০ দেশের ২৬ সাংবাদিক

মিঠামইনে মঙ্গল শোভাযাত্রা 

সিঙ্গা গ্রামে ভিন্ন আমেজে নববর্ষ

পাহাড়ে পাঁচন ভোজন

লোক সংস্কৃতিতে অবদানের জন্যে যশোরে তিনজনকে সম্মাননা

জনশক্তিকে মানবসম্পদে পরিণত করার তাগিদ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর 

 

         

/টিএন/এমওএফ/

লাইভ

টপ