‘বিজিএমইএ ভবন ভাঙার সময় বাড়াতে আদালত নমনীয় হবেন না’

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৩:৫৬, এপ্রিল ১৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:৫৮, এপ্রিল ১৮, ২০১৯

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম

আলোচিত বিজিএমই’র অবৈধ ভবন ভাঙতে আদালতের নির্দেশনা রয়েছে। তাই এক্ষেত্রে ভবন ভাঙার সময় বাড়াতে আদালত নমনীয় হবেন না বলে মনে করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) সুপ্রিম কোর্টে তার নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি  এ কথা বলেন।

বিজিএমই’র ভবন ভাঙতে সময় চেয়ে করা আবেদনের কারণে আদালত অবমাননা হবে কিনা, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, ‘এ ধরনের কোনও আবেদন করা হলে, তা আদালতে যাবে (শুনানির জন্য) এবং সেটা আদালত সিদ্ধান্ত নেবেন।’

এর আগে বিজিএমই’র অবৈধ ভবন ভাঙার জন্য এক বছর সময় চেয়ে আপিল বিভাগে একটি আবেদন করে বিজিএমইএ। পরে ওই আবেদনটি তিন দিনের মধ্যে প্রত্যাহার চেয়ে বিজিএমইএ’র সভাপতিকে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়। সময় চেয়ে করা আবেদন প্রত্যাহার না করা হলে আদালত অবমাননার অভিযোগে মামলা করা হবে বলেও নোটিশে উল্লেখ করা হয়।

উল্লেখ্য, গার্মেন্টস কারখানা মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফেকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিজিএমইএ) প্রধান কার্যালয়টির নাম ‘বিজিএমইএ কমপ্লেক্স’। এটি বিজিএমইএ ভবন নামে পরিচিত। অ্যাসোসিয়েশনের কর্ণধাররা রাজউকের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে হাতিরঝিল ও বেগুনবাড়ি খালের মাঝখানে ১৫তলা ভবনটি নির্মাণ করেন। এ নিয়ে আদালতে মামলা হলে আদালত বিজিএমইএ’র নিজ খরচে ভবনটি ভাঙার পক্ষে রায় দেন।

বিভিন্ন পরিবেশবাদী সংগঠন শুরুতেই অভিযোগ তুলেছিল, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অনুমতি না নিয়ে এবং উন্মুক্ত স্থান ও প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন-২০০০ ভঙ্গ করে বেগুনবাড়ি খালের একাংশ ভরাট করার মাধ্যমে ওই ভবন নির্মাণ করা হয়। সংবাদপত্রে প্রতিবেদন নজরে আনা হলে ২০১০ সালের ৩ অক্টোবর হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত হয়ে রুল দেন। চূড়ান্ত শুনানি শেষে ২০১১ সালের ৩ এপ্রিল বিজিএমইএ ভবন অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষ আপিল করলে ২০১৬ সালের ২ জুন তাও খারিজ হয়ে যায়।

আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায়ে বলা হয়, ‘বেগুনবাড়ি খাল’ ও ‘হাতিরঝিল’ জলাভূমিতে অবস্থিত ‘বিজিএমইএ কমপ্লেক্স’ নামের ভবনটি নিজ খরচে অবিলম্বে ভাঙতে আবেদনকারীকে (বিজিএমইএ) নির্দেশ দেওয়া যাচ্ছে। এতে ব্যর্থ হলে রায়ের অনুলিপি হাতে পাওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে (রাজউক) ভবনটি ভেঙে ফেলতে নির্দেশ দেওয়া হলো। এক্ষেত্রে ভবন ভাঙার খরচ আবেদনকারীর (বিজিএমইএ) কাছ থেকে আদায় করবে তারা (রাজউক)। পরে ২০১৭ সালের ৫ মার্চ আপিলের রায় পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) চেয়ে করা বিজিএমইএ’র আবেদনটিও খারিজ হয়ে যায়। এরপরও ভবন না ভাঙতে আদালতের কাছে বারবার সময় চায় বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষ। তবে সর্বশেষ ২০১৮ সালের ২ এপ্রিল মুচলেকা দিয়ে ভবন ভাঙতে এক বছর সময় পায় বিজিএমইএ।

বিজিএমইএ’র মুচলেকার তিনটি শর্তে বলা হয়, ‘আমাদেরকে এক বছর সময় দেওয়া হলে- এক. আমরা আর সময় চাইবো না; দুই. আদালত যে আদেশ দেবেন তা মেনে চলবো; এবং তিন. আদালতের সময় শেষে বিজিএমইএ'র পরিচালনা পর্ষদে যারাই থাকবেন, তারা ভবন ভাঙতে দায়বদ্ধ থাকবেন।’

মুচলেকায় থাকা তিনটি শর্তের পরিপ্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বেঞ্চ এক আদেশ দেন। ওই আদেশে বিজিএমইএ ভবন ভাঙতে এ বছরের ১২ এপ্রিল পর্যন্ত সময় দেন আদালত। যার ধারাবাহিকতায় গত ১২ এপ্রিল বিজিএমইএ’কে বেঁধে দেওয়া সময় শেষ হয়। এরপর মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) সকালে ভবনটি ভাঙার প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম নিয়ে হাজির হয় রাজউক।

এই ভবনের শুরুটা হয়েছিল দুই দশক আগে, ১৯৯৮ সালে। সরকারের কাছ থেকে জমি বরাদ্দ নিয়ে নিজেদের এই ভবন নির্মাণ শুরু করেছিলেন দেশের রফতানি আয়ের প্রধান খাত তৈরি পোশাক শিল্পের উদ্যোক্তারা, যার কাজ শেষ হয় ২০০৬ সালে।

এদিকে, ঢাকার উত্তরায় ১১০ কাঠা জমির ওপর ১৩ তলা নতুন ভবন তৈরি করছে বিজিএমইএ। গত সপ্তাহে ভবনটি উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

/বিআই/এপিএইচ/

লাইভ

টপ