নুসরাত হত্যায় টাকা কে দিলো জানতে মাঠে সিআইডি

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০৯:২১, এপ্রিল ১৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৩২, এপ্রিল ১৯, ২০১৯

নুসরাত হত্যা মামলা

ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মানি লন্ডারিংয়ের সংশ্লিষ্টতা অনুসন্ধানে নেমেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) অরগানাইজড ক্রাইম ইউনিট। হত্যাকাণ্ডে কারা টাকা দিয়েছে তা জানতে কাজ শুরু করছেন কর্মকর্তরা। শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) সকালে সিআইডি‘র সিনিয়র সহকারী বিশেষ পুলিশ সুপার শারমিন জাহান বাংলা ট্রিবিউনকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সিআইডি’র এই কর্মকর্তা বলেন, ‘এই হত্যাকাণ্ডে মানি লন্ডারিংয়ের ঘটনা ঘটেছে কিনা তা অনুসন্ধানে কাজ করবে সিআইডি। হত্যাকাণ্ডে অর্থ লেনদেন হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। সিআইডি এই অর্থের উৎস খোঁজ করবে।’

প্রসঙ্গত, নুসরাত জাহান রাফি সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী ছিলেন। মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ্দৌলা তাকে যৌন নিপীড়ন করে বলে অভিযোগ ওঠে। এ অভিযোগে নুসরাতের মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে গত ২৭ মার্চ সোনাগাজী থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর অধ্যক্ষকে আটক করে পুলিশ। মামলা তুলে নিতে বিভিন্নভাবে নুসরাতের পরিবারকে হুমকি দেওয়া হচ্ছিল।
গত ৬ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে আলিম পর্যায়ের আরবি প্রথমপত্র পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে যায় নুসরাত। এরপর কৌশলে তাকে পাশের ভবনের ছাদে ডেকে নেওয়া হয়। তাকে মামলা তুলে নেওয়া কথা বলে ভয় দেখানো হয়। পরে সেখানে বোরকা পরা ৪/৫ ব্যক্তি নুসরাতের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে তার শরীরের ৮৫ শতাংশ পুড়ে যায়। কয়েকদিন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর গত ১০ এপ্রিল তিনি মারা যান।
আলোচিত এ মামলায় এখন পর্যন্ত ১৮ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ও পিবিআই। তারা হলো– অধ্যক্ষ এসএম সিরাজ উদ্দৌলা, কাউন্সিলর ও পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মুকছুদ আলম, শিক্ষক আবছার উদ্দিন, সহপাঠী আরিফুল ইসলাম, নূর হোসেন, কেফায়াত উল্লাহ জনি, মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, শাহিদুল ইসলাম, অধ্যক্ষের ভাগ্নি উম্মে সুলতানা পপি, জাবেদ হোসেন, জোবায়ের হোসেন, নুর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন, মো. শামীম, কামরুন নাহার মনি, জান্নাতুল আফরোজ মনি, শরীফ ও হাফেজ আবদুল কাদের। এরমধ্যে চারজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

আরও পড়ুন- ওসি মোয়াজ্জেমের গাফিলতির প্রমাণ মিলেছে: পুলিশ

/এআরআর/এফএস/এমওএফ/

লাইভ

টপ