‘লিবিয়ায় আটকে পড়া বাংলাদেশিদের প্রয়োজনে ফিরিয়ে আনা হবে’

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৭:৪২, এপ্রিল ২১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৪৮, এপ্রিল ২১, ২০১৯

দিদলিবিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় জেনারেল হাফতার ত্রিপলির নিয়ন্ত্রণ গ্রহণের লক্ষ্যে যুদ্ধ ঘোষণা করায় সেখানে অস্থিতিশীল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে ত্রিপলি ও আশপাশের শহরগুলোতে ৬০টি পরিবারসহ মোট পাঁচ হাজার বাংলাদেশি অবস্থান করছে। তাদের নিরাপত্তা বিধান এবং প্রয়োজনে দেশে ফিরিয়ে আনা হবে বলে জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব রৌনক জাহান।
এ বিষয়ে সোমবার (২১ এপ্রিল) প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও আন্তর্জাতিক অভিবাসী সংস্থার (আইওএম) সমন্বয়ে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব রৌনক জাহান।

এ সময় প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব রৌনক জাহান বলেন, ‘লিবিয়ায় আটকে পড়া বাংলাদেশিদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করার বিষয়ে সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করছে। প্রয়োজন হলে তাদেরকে নিরাপদে দেশে ফিরিয়ে আনা হবে এবং দেশে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হবে।’

সভায় কূটনৈতিক যোগাযোগের সূত্র উল্লেখ করে জানানো হয়, দুটি বিবদমান গ্রুপের সংঘর্ষে বর্তমানে লিবিয়ার কোনও কোনও অংশে যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে। এ পরিস্থিতিতে সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের নিরাপত্তা বিধান এবং প্রয়োজনে ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে ত্রিপলির বাংলাদেশ দূতাবাসে তিনটি হটলাইন ও কন্ট্রোল রুম প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

এছাড়া বৈঠকে জাতিসংঘের অভিবাসন বিষয়ক সংস্থা আইওএম প্রতিনিধি জানান যে, লিবিয়ায় অবস্থানরত বাংলাদেশিদের প্রয়োজনীয় সবরকম সহযোগিতা দেওয়ার জন্য তারা প্রস্তুত আছে।    

সভায় উপস্থিত ছিলেন– ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের মহাপরিচালক গাজী মোহাম্মদ জুলহাস, এনডিসি; জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ‍ব্যুরোর মহাপরিচালক মো. সেলিম রেজা; প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন; স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব ড. মো. বশিরুল আলম; বহিরাগমন ও পাসপোর্ট অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক সেলিনা বানু; পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক এএফএম আমিনুল ইসলাম ও আইওএমের কান্ট্রি ডিরেক্টর মি. জর্জিওসহ অন্য প্রতিনিধিরা।

 

 

/এসও/এমএএ/

লাইভ

টপ