দেশের স্বার্থে গ্যাসের দাম না বাড়ানোর দাবি

Send
বাংলা টিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৬:২১, এপ্রিল ২৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:২৩, এপ্রিল ২৪, ২০১৯

গ্যাসের দাম না বাড়ানোর দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব অস্বাভাবিক ও মাত্রাতিরিক্ত। প্রস্তাব অনুযায়ী গ্যাসের বাড়ানো হলে  ক্যাপটিভ পাওয়ার ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং স্টিল উৎপাদনের খরচ টনপ্রতি প্রায় চার হাজার টাকা বেড়ে যাবে। এমতাবস্থায় দেশের স্বার্থে গ্যাসের দাম না বাড়ানোর জোর দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ স্টিল ম্যানুফ্যাকচার অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ রি-রোলিং মিলস অ্যাসোসিয়েশন এবং বাংলাদেশ স্টিল মিল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান বাংলাদেশ স্টিল ম্যানুফ্যাকচার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ শহিদউল্লাহ।

তিনি বলেন, ‘স্টিল উৎপাদনে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যয় হয় জ্বালানি খাতে। স্টিল উৎপাদনের জন্য বিদ্যুৎ ও গ্যাস প্রয়োজন। স্টিল উৎপাদনে মোট খরচের ১৫ শতাংশ ব্যয় হয় জ্বালানি খাতে। কাজেই জ্বালানি খাতের ওপর স্টিলের বাজারমূল্য অনেকাংশে নির্ভর করে। স্টিল শিল্পে গ্যাসের মূল্য প্রতি ঘনমিটার ৭.৭৬ টাকা হতে ১৮.০৪ টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়েছে, অর্থাৎ মূল্য বৃদ্ধির হার দাঁড়িয়েছে ১৩২ শতাংশ। ক্যাপটিভ পাওয়ারের ক্ষেত্রে প্রতি ঘনমিটার ৯.৬২ টাকা হতে ১৮.৮৮ টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়েছে, অর্থাৎ এক্ষেত্রে মূল্য বৃদ্ধির হার ৯৬ শতাংশ।’

মুহাম্মদ শহিদউল্লাহ আরও  বলেন, ‘গ্যাসের দাম বাড়ানোর এই প্রস্তাব অস্বাভাবিক ও মাত্রাতিরিক্ত। প্রস্তাব অনুযায়ী গ্যাসের দাম বাড়ানো হলে ক্যাপটিভ পাওয়ার ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং স্টিল উৎপাদনের খরচ টনপ্রতি প্রায় চার হাজার টাকা বেড়ে যাবে। ফলে দেশের অবকাঠামো উন্নয়ন ক্ষতিগ্রস্ত হবে। দেশের সাধারণ মানুষের ঘরবাড়ির নির্মাণ ব্যয়ও বেড়ে যাবে। এমতাবস্থায় দেশের স্বার্থে গ্যাসের প্রস্তাবিত দাম না বাড়ানোর জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।’

 

/এইচএন/এপিএইচ/

লাইভ

টপ