মধুমতি মডেল টাউন আবাসিক প্রকল্প অবৈধই থাকলো

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৪:৪১, এপ্রিল ২৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৪৪, এপ্রিল ২৫, ২০১৯

মধুমতি মডেল টাউন প্রকল্প

সাভারের আমিনবাজারে গড়ে ওঠা মধুমতি মডেল টাউনের আবাসিক প্রকল্প অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণার রায়ের বিরুদ্ধে করা রিভিউ আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আপিল বিভাগ। এর ফলে মধুমতি মডেল টাউনের ওই প্রকল্পটি অবৈধই থাকলো বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে রিটকারী সংগঠনের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান। পরে তিনি বলেন, ‘এ রায়ের ফলে জলাশয় ভরাট করে নেওয়া প্রকল্প গ্রহণকারী কোনও প্রতিষ্ঠান প্রথম শাস্তি পেলো।’

এর আগে ২০১২ সালে আপিল বিভাগের রায়ে প্লট ক্রেতাদের দ্বিগুণ পরিমাণ টাকা ফেরত দিতে মধুমতি মডেল টাউন আবাসিক প্রকল্পের কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল এবং  কোনও ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ১০০ বিঘার বেশি সম্পত্তি রাখতে পারবে না বলে রায় দেওয়া হয়েছিল।

রায়ে প্রাকৃতিক ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য সাভারের বিলামালিয়া ও বৈলারপুর মৌজা এলাকায় অবস্থিত প্রকল্পটির জায়গা আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে নির্দেশ দেওয়া হয়। একইসঙ্গে ভরাট করা মাটি অপসারণ করে ছয় মাসের মধ্যে সেখানকার জলাভূমি আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে হবে বলে আবাসন কোম্পানি মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেডকে আদেশ দেওয়া হয়।

রায়ে আরও বলা হয়, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) ও পরিবেশ অধিদফতরের অনুমতি ছাড়াই আবাসন কোম্পানি মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেড আমিনবাজার এলাকায় মধুমতি মডেল টাউন প্রকল্প নামে আবাসিক এলাকা গড়ে তোলে, যা সম্পূর্ণ অবৈধ।

প্রসঙ্গত, এর আগে ২০০৩ সালে সাভারের আমিনবাজারে মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেডের মধুমতি মডেল টাউন প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু হয়।  ২০০৪ সালে এই প্রকল্পের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে বেলা (বাংলাদেশ এনভায়রনমেন্ট ল ইয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনস) হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করে। বেলা ও মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেডসহ এ মামলায় পৃথক পৃথক পাঁচটি আবেদন করেছিল।

ওইসব আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে আদালত রুল জারির পাশাপাশি প্রকল্পের কাজের ওপর স্থগিতাদেশ দেন। ২০০৫ সালের ২৭ জুলাই হাইকোর্টের রায়ে ওই প্রকল্পকে অবৈধ ঘোষণা করা হয়। একইসঙ্গে বন্যাপ্রবাহ এলাকাকে সচল রাখতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

হাইকোর্টের ওই রায়ের বিরুদ্ধে মেট্রো মেকারস অ্যান্ড ডেভেলপারস লিমিটেড ও বেলাসহ অন্যরা সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে আবেদন করে। এসব আবেদনের ওপর চূড়ান্ত শুনানি শেষে আপিল বিভাগ  এই সংক্ষিপ্ত রায় ঘোষণা করেন।

/বিআই/এপিএইচ/

লাইভ

টপ