ধর্ষণের অভিযোগে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসিসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৭:০০, জুন ১১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৪৩, জুন ১১, ২০১৯

ধর্ষণ

ঢাকার কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাকের মো. যোবায়েরসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও ধর্ষণে সহযোগিতার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন এক মানবাধিকার কর্মী।

মঙ্গলবার (১১ জুন) ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল–৬ এর বিচারক শহিদুল ইসলামের আদালতে এ মামলা দায়ের করা হয়। সংশ্লিষ্ট আদালতের বেঞ্চ সহকারী সাইফুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

সাইফুল ইসলাম জানান, আদালত বাদীর জবানবন্দি নিয়ে পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন।

ওসি শাকের মো. যোবায়ের ছাড়া মামলার অন্য আসামিরা হলেন– গোলাম সারোয়ার (ওসি–অপারেশন), রেজাউল আমিন বাশার (এসআই), মো. ফারুক ( ৩৫), হায়দার (৬০), মো. ইকবাল (৩৫), মো. হানিফ (৫০), মো. হানিফ মেম্বর (৬০), মো. রফিক (৪০), মো. শফিক (৩৫) ও মো. বাবুল ওরফে মদু (৩৫)।

মামলার নথিতে বলা হয়েছে, গত ২০ এপ্রিল বেলা ১টায় সহকর্মীদের সঙ্গে দেখা করতে কেরানীগঞ্জ যাচ্ছিলেন বাদী। আরশিনগর আমিন মাতবরের সিমেন্টের দোকানের সামনে পৌঁছালে তিনি দেখেন, ২০-৩০ জন লোক আরও কিছু লোককে ধাওয়া করছে। স্থানীয়দের কাছ থেকে বাদী জানতে পারেন, চাঁদা না দেওয়ায় স্যুয়ারেজ লাইনের ঠিকাদার আমিন মাতবরের লোকদের ধাওয়া করেছে ওই ২০-৩০ জন লোক। এটা শুনে পুলিশের হেল্প-লাইনে (৯৯৯) ফোন করেন বাদী। এটা দেখে ফেললে ধাওয়াকারীরা হামলা করে বাদীর ওপর। এসময় হামলাকারীরা বাদীকে মারধর করার পাশাপাশি শ্লীলতাহানী করে। এ ছাড়া, এসময় বাদীর দেড় ভরি ওজনের স্বর্ণের হার নিয়ে যায় আসামি ইকবাল। এদিন বাদীকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে ঢাকার মিডফোর্ট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠায় কেরানীগঞ্জ মডেল থানার পুলিশ। চিকিৎসা শেষে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় গিয়ে লিখিত অভিযোগ দিতে চাইলে তা না নিয়ে ওসি যোবারের, ওসি গোলাম সারোয়ার বাদীকে আসামিদের সঙ্গে আপস করতে বলেন। এসময় দুই ওসি বাদীকে ধমকও দেন।

নথিতে আরও উল্লেখ, গত ২৪ এপ্রিল বিকাল ৫টায় নিজ কর্মস্থল মতিঝিল যান বাদী। সেখান থেকে ফেরার পথে রাত ১১টায় কেরানীগঞ্জ মডেল থানা এলাকার ঘাটখরচর প্রাইমারি স্কুলের সামনে পৌঁছালে বাদীকে রিকশা থেকে নামিয়ে ওই স্কুলের পেছনে নিয়ে যায় আসামি হায়দার, রফিক, শফিক এবং আরও অজ্ঞাত দুইজন। এসময় তাকে ধর্ষণ করা হয় এবং এ ঘটনা প্রকাশ করলে হত্যা করে লাশ গুমের হুমকি দেওয়া হয়। পরে এদিন রাতে বাদীকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু পরীক্ষানিরীক্ষা না করেই ২৭ এপ্রিল এ হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয় বাদীকে। গত ৩ মে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করলে মিডফোর্ট হাসপাতালে চিকিৎসা নেন বাদী। চিকিৎসকরা জানান, পেটে আঘাত পাওয়ায় তার বাচ্চা নষ্ট হয়ে গেছে। এসময় তাকে ওষুধ দিয়ে বাসায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। বাদীর অভিযোগ, আসামিদের তদবিরে দুই হাসপাতাল থেকে তিনি যথাযথ চিকিৎসা পাননি।

মামলার নথিতে প্রকাশ, এসব বিষয় পরে পুলিশকে জানালে তারা মামলা নেয়। কিন্তু আবারও পুলিশ আসামিদের সঙ্গে বাদীকে আপস করার পরামর্শ দেয়।

নথিতে আরও উল্লেখ করা হয়, গত ৩১ মে ঈদের কেনাকাটা করতে বাসা থেকে বের হলে রাত ৯টার দিকে বছিলা ব্রিজের পূর্বপাশে বুদ্ধিজীবী কবরস্থানের সামনে বাদীকে রিকশা থেকে নামায় আসামিরা। এসময় আসামিরা তাকে মাইক্রোবাসে তোলার জন্য টানা-হেঁচড়া শুরু করলে রিকশাচালক চিৎকার শুরু করেন। এতে আসামিরা বাদীকে ছেড়ে পালায়। কিন্তু যাওয়ার আগে তারা বাদীকে হুমকি দিয়ে যায়, ‘তোর দিন শেষ হয়ে আসছে,তুই আর বাঁচতে পারবি না’।

 

/টিএইচ/এমএ/

লাইভ

টপ