ডিআরইউ ও ক্র্যাবের বিবৃতি: দুদকের নোটিশ অগ্রহণযোগ্য

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২০:৫৫, জুন ২৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০৬, জুন ২৬, ২০১৯

ডিআরইউ-ক্র্যাবদুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) থেকে দুই সাংবাদিককে দেওয়া নোটিশের জন্য তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি ও ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন। সংগঠন দুটির পক্ষ থেকে দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়, বাংলা ট্রিবিউনের বিশেষ প্রতিনিধি ও ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক দীপু সারোয়ার এবং বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন নিউজের সিনিয়র রিপোর্টার ইমরান হোসেন সুমনকে পাঠানো দুদকের নোটিশ অগ্রহণযোগ্য। এটি সাংবাদিকদের কণ্ঠরোধের একটি অপচেষ্টা।



ক্র্যাবের দফতর সম্পাদক শহীদুল ইসলাম রাজী স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে বলা হয়, সংবাদ প্রচার ও প্রকাশের জের ধরে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সাধারণ সম্পাদক ও বাংলা ট্রিবিউনের বিশেষ প্রতিনিধি দীপু সারোয়ার এবং সংগঠনের প্রশিক্ষণ ও তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ও এটিএন নিউজের সিনিয়র রিপোর্টার ইমরান হোসেন সুমনকে দুদকে হাজির হওয়ার নোটিশ পাঠানোর ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সংগঠনের সভাপতি আবুল খায়েরসহ কার্যনির্বাহী কমিটি।

বুধবার (২৬ জুন) এ বিষয়ে ক্র্যাব নেতৃবৃন্দ এক বিবৃতিতে বলেন, সাংবাদিকদের কাছে পাঠানো দুদকের নোটিশ অগ্রহণযোগ্য। এ ঘটনাকে কণ্ঠরোধের চেষ্টা হিসেবে মনে করে ক্র্যাব।

ক্র্যাবের বিবৃতিতে আরও বলা হয়, দুদকের চোখ রাঙানি সাংবাদিক সমাজ মানবে না। দুই সাংবাদিকের কাছে পাঠানো দুদকের অগ্রহণযোগ্য চিঠি বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) সকাল ১০টার মধ্যে প্রত্যাহারের আহবান জানায় সংগঠনটি।

অন্যদিকে, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি’র (ডিআরইউ) দফতর সম্পাদক মো. জেহাদ হোসেন চৌধুরী স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে বলা হয়, সাংবাদিকদের পাঠানো দুদকের চিঠির বিষয়ে ডিআরইউ’র সভাপতি ইলিয়াস হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক কবির আহমেদ উদ্বেগ ও নিন্দা জানিয়েছেন। তারা বলেন, সাংবাদিক দীপু সারোয়ার ও ইমরান হোসেন সুমনকে সংবাদ প্রকাশ ও প্রচারের জের ধরে দুদকে হাজির হওয়ার নোটিশ দেওয়া এবং “অন্যথায় আইনানুগ ব্যবস্থা গৃহীত হবে”- বিষয়টি স্বাধীন সাংবাদিকতার ওপর হুমকি। দুদকের এ ধরনের নোটিশ অত্যন্ত দুঃখজনক এবং মুক্ত স্বাধীন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠার পরিপন্থী। অবিলম্বে দুদকের এ নোটিশ প্রত্যাহারের দাবি জানান তারা।

এদিকে, ঢাকা ইউটিলিটি রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ডুরা) পক্ষ থেকে দুদকের দেওয়া চিঠিতে অসৌজন্যমূলক ভাষা ব্যবহারের বিষয়ে নিন্দা ও উদ্বেগ জানানো হয়েছে। ডুরার প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শাহেদ শফিক স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে জানানো হয়, সংগঠনটির সভাপতি মশিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন রুবেল মনে করেন- দুর্নীতি দমনে গণমাধ্যম ও দুদক একে অপরের সহযোগী। সাংবাদিক দীপু সারোয়ার ও ইমরান হোসেন সুমন যে সংবাদ প্রকাশ করেছেন তার জন্য ওই দুই সাংবাদিককে দুদকের ধন্যবাদ জানানো উচিৎ। তা না করে দুদক উল্টো যে আচরণ করেছে, তা স্বাধীন গণমাধ্যমের জন্য হুমকি। ডুরা অবিলম্বে এ ধরনের নোটিশ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে।

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার (২৫ জুন) সাংবাদিক দীপু সারোয়ারকে দেওয়া দুদকের পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যা স্বাক্ষরিত এক নোটিশে বলা হয়, দুদকের পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে ডিআইজি মিজানুর রহমানের কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ প্রসঙ্গে আপনার সাক্ষ্যগ্রহণ ও শ্রবণ একান্ত প্রয়োজন। যদিও বাংলা ট্রিবিউন এ ধরনের সংবাদ আদৌ প্রকাশ করেনি। তবে, গত ২৩ জুন “লন্ডন প্রবাসী দয়াছের অডিও সংলাপে দুদকের ওরা কারা?” শিরোনামে একটি প্রতিবেদন বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত হয়। নোটিশের শেষ অংশে বলা হয়েছে, ‘উল্লিখিত অভিযোগের বিষয়ে আগামী ২৬/০৬/২০১৯ খ্রি: তারিখ ১০.৩০ ঘটিকায় নিম্নস্বাক্ষরকারীর কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে বক্তব্য প্রদানের জন্য আপনাকে অনুরোধ করা হল। অন্যথায় আইনানুগ কার্যধারা গৃহীত হবে।’

 

/জেইউ/টিটি/

লাইভ

টপ