সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের এখতিয়ার ঢাবির নেই: উপউপাচার্য

Send
ঢাবি প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২৩:৩০, জুলাই ২১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৩৯, জুলাই ২১, ২০১৯

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) থেকে রাজধানীর সরকারি সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের এখতিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপউপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ। রবিবার (২১ জুলাই) বিকাল ৫টায় শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রতিক্রিয়া জানাতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

এসময় উপউপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ বলেন, ‘সাত কলেজের অন্তর্ভুক্তি বাতিলের এখতিয়ার আমাদের নেই।’  

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ‘সাত কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যে আন্দোলন করছেন, তাদের আন্দোলনের প্রতি আমাদের সহানুভূতি আছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস-পরীক্ষার যেনো সমস্যা না হয়। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিভাবক (উপাচার্য) বিদেশে রয়েছেন। তিনি দেশে আসা পর্যন্ত আমরা কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারবো না। কারণ আমরা কাঠামোগতভাবে সাত কলেজের বিষয়গুলোর সঙ্গে সম্পৃক্ত না। বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ সুবিধার চেয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ছে। একটি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে এই সাত কলেজকে অধিভুক্ত করা হয়েছে। এখন শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে হুট করে একটি সিদ্ধান্ত দিলে তো হবে না। বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার ইচ্ছা হচ্ছে যে, শিক্ষার মান বাড়ানো। সুতরাং আমরা মান বাড়ানোর লক্ষ্যে  কলেজগুলো নিয়েছি। তবে এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শিক্ষাকার্যক্রম যাতে ব্যাহত না হয় সে দিকে খেয়াল রেখে আমরা কার্যক্রম চালাবো।’

সাত কলেজ পরিচালনার সমন্বয়কারী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসা অনুষদের ডিন শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম বলেন,‘সাত কলেজ নিয়ে কিছু তথ্যগত ভুল আছে। যেমন- অনেকে ভাবছে যে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের সনদ একই। কিন্তু না, সাত কলেজের সনদ সম্পূর্ণ আলাদা। সমাবর্তন নিয়েও বিভ্রান্তি রয়েছে। সমাবর্তনও আলাদা আলাদা জায়গাতে হবে। যা গত বছরও হয়েছে।’ এগুলো নিয়ে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. সাদেকা হালিম, কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আবু মো. দেলোয়ার হোসেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক কামাল উদ্দীন, ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর, জিএস গোলাম রাব্বনী, এজিএস সাদ্দাম হোসেন, ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন প্রমুখ।

 

 

 

/এএইচ/

লাইভ

টপ