ভুল চিকিৎসায় স্কয়ার হাসপাতালকে ৫ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে রুল

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:৫৯, আগস্ট ২২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:০০, আগস্ট ২২, ২০১৯

 রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় পঙ্গু হওয়ার অভিযোগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থী মেহেদি হাসান শামীমকে কেন পাঁচ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে শামীমকে কেন বিনামূল্যে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেওয়া হবে না, রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

চার সপ্তাহের মধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সচিব, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের সভাপতি, স্কয়ার হাসপাতালের ডাক্তার কৃষ্ণা প্রভু ও ম্যানেজিং ডিরেক্টরসহ সাতজনকে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

পাশাপাশি ওই হাসপাতালে শামীমের অপারেশন করার সময়ের সিডি ও চিকিৎসার সব রেকর্ড আগামী ৩০ দিনের মধ্যে দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

ক্ষতিপূরণ চেয়ে শামীমের পক্ষে করা এক রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। সঙ্গে ছিলেন অ্যাডভোকেট রিপন কুমার বড়ুয়া ও ফুয়াদ হাসান। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল নূর উস সাদিক।

এরআগে, গত ১৪ জুলাই পঙ্গু মেহেদি হাসান শামীমের পক্ষে ক্ষতিপূরণ চেয়ে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই রিট আবেদন করেন ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। এই রিটের শুনানি নিয়ে আদালত রুলসহ এই আদেশ দেন। রিটে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত “ভুল চিকিৎসায় পঙ্গু ঢাবি ছাত্র ক্ষতিপূরণ দাবি” সংক্রান্ত প্রতিবেদন সংযুক্ত করা হয়।

গত ১৯ এপ্রিল পত্রিকায় প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, মেহেদি হাসান শামীম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর করেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে শামীম নিজেই তার ভুল চিকিৎসার অভিযোগ করেন। এ সময় তিনি স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্য স্কয়ার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে ক্ষতিপূরণ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, ডাকসু ও সরকারের কাছে স্কয়ার কর্তৃপক্ষের অবহেলা, স্বেচ্ছাচারিতায় পঙ্গুত্ববরণের বিচার দাবি করেন।

তবে এ বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কোনও সদুত্তর না পাওয়ায় ক্ষতিপূরণ চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়।

 

/বিআই/টিটি/

লাইভ

টপ