বুড়িগঙ্গা দূষণের দায়ে ১৬ কারখানা বন্ধ

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০১:৩২, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০১:৩৭, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯

রাজধানীর শ্যামপুর কদমতলী এলাকায় অবৈধ কারখানার বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়েছেন পরিবেশ অধিদফতর। অভিযানে পরিবেশগত ছাড়পত্র ও ইটিপি ছাড়া তরল বর্জ্য বুড়িগঙ্গা নদীতে ফেলে পরিবেশ নষ্ট করায় ১৬টি কারখানার বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে বন্ধ করে দেওয়া হয়।    

বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) অধিদফতরের মনিটরিং অ্যান্ড এনফোর্সমেন্টের পরিচালক রুবিনা ফেরদৌসীর নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়।

এনফোর্সমেন্ট উইং পরিচালক রুবিনা ফেরদৌসী জানান, দীর্ঘদিন ধরে শ্যামপুর-কদমতলী এলাকায় ইটিপি নির্মাণ না করে বিভিন্ন ধরনের ডায়িং, ওয়াশিং ও প্রিন্টিং কারখানা পরিচালনা করা হচ্ছে। এসব কারখানাকে বারবার ক্ষতিপূরণ ধার্য ও সতর্ক করা হয়। কিন্তু তারা সংশোধন হয়নি। এসব কারখানার তরল বর্জ্য দ্বারা বুড়িগঙ্গা নদীর পানি দূষিত হচ্ছে। অভিযানে ১৬টি কারখানার বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়।

কারখানাগুলো হলো- কুমিল্লা ডায়িং; এলিট টেক্সটাইল; চাঁদপুর টেক্সটাইল; মিতা ডায়িং; শারমিন ডায়িং; ভরসা ডায়িং; শাপলা স্ক্রীন অ্যান্ড ডায়িং প্রিন্টার্স লিমিডেট; শাহজাদী ডায়িং অ্যান্ড প্রিন্টিং; মেসার্স অভিজাত ডায়িং অ্যান্ড প্রিন্টিং; লামিয়া টেক্সটাইল ডায়িং অ্যান্ড প্রিন্টিং ইন্ডাস্ট্রি; হিমু ডায়িং; সুচনা ডায়িং; নুরানী ডায়িং; লাকী কেইন ইন্ডাষ্ট্রিজ; এইচ আলী স্টীল মিলস ও মদিনা রি-রোলিং মিলস।

অভিযানে উপস্থিত ছিলেন অধিদফতরের মনিটরিং অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট উইং এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাকছুদুল ইসলাম ও কাজী তামজীদ আহমেদ, উপ-পরিচালক ড. আব্দুল্লাহ আল মামুন, সহকারী পরিচালক সালমান চৌধুরী শাওন, পরিদর্শক মো. মির্জা আসাদুল কিবরীয়া ও ঢাকা মহানগর কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোসাদ্দেক হোসেন রাজিব।

 

/এসএস/ এএইচ/

লাইভ

টপ