প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও প্রতিবেদকের বক্তব্য

Send
বাংলা ট্রিবিউন ডেস্ক
প্রকাশিত : ২০:১৩, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:১১, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯

 

প্রকাশিত সংবাদ

বাংলা ট্রিবিউনে গত ৭ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত ‘ভাইয়ের নামে মদের বার চালান মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের কর্মকর্তা’ শিরোনামের  প্রতিবেদনটির বিষয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের পরিদর্শক হেলাল উদ্দিন ভূইয়া। হেলাল উদ্দিনের সই করা প্রতিবাদপত্রে বলা হয়, ‘লেকভিউ রিক্রিয়েশন ক্লাবের সাথে আমি ও আমার পরিবারের কেউ জড়িত না। বসুন্ধরা বি ব্লকে আমার কোনও প্লট নেই। কাদামাটি প্রপার্টিজ লিমিটেড এর কোনও অস্তিত্ব নেই। তিতাস ফিশিং প্রজেক্ট বলতে কোনও প্রজেক্ট আছে কিনা জানা নেই। কোনও মাদকাসক্তি চিকিৎসা পুনর্বাসন কেন্দ্রের সঙ্গে জড়িত না আমি। আমি অথবা আমার পরিবারের কেউ রেস্টুরেন্ট ব্যবসার সাথে জড়িত না। ইটভাটা, ১৫ বিঘা জমি, ৭টি দোকান ও ভাটারায় ৫ কাঠার প্লট নেই আমার।’

প্রতিবেদকের বক্তব্য : লেকভিউ রিক্রিয়েশন ক্লাবের অন্যতম মালিক আজাদ হোসেন পরিদর্শক হেলাল উদ্দিনের আপন ভাই তা আজাদ নিজেই বাংলা ট্রিবিউনের কাছে স্বীকার করেছেন। প্রতিবেদন প্রকাশের আগে প্রতিবেদক হেলাল উদ্দিনের কাছে আজাদের সঙ্গে তার সম্পর্ক কী জানতে চাইলে তিনি বলেছিলেন আজাদকে চেনেন না। বাংলা ট্রিবিউনের অনুসন্ধানে দেখা যায়, আজাদের গ্রামের বাড়ি ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার নবীনগরের বড়কান্দি (মধ্যাংশ)। বাড়ির নাম ‘ভূঁইয়া বাড়ি’। বাবা আলী আহম্মদ ভূঁইয়া এবং মা মোসাম্মৎ সামছুন নাহার। একই ঠিকানা আলী পরিদর্শক হেলাল উদ্দিন ভূইয়ারও। আহম্মদ ভূঁইয়া ও সামছুন নাহার দম্পতির অপর ছেলে হচ্ছেন হেলাল।

প্রকাশিত প্রতিবেদনে রেজিস্ট্রার অফ জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ অ্যান্ড ফার্মস’র তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে। সেই তথ্য অনুযায়ী, লেক ভিউ রিক্রিয়েশন ক্লাব লিমিটেডের অথরাইজড শেয়ার ক্যাপিটাল হলো ১ কোটি টাকা। এর ডিভিডেন্ট শেয়ারের প্রতিটির দাম ১ লাখ টাকা। সাধারণ শেয়ারের প্রতিটির দাম ১০০ টাকা করে। ক্লাবের চারজন শেয়ার হোল্ডারের মধ্যে শমসের হোসেন টিপু ২৫০০, আজাদ হোসেন ২০০০, মুক্তার হোসেন ৫০০০ এবং ফারহানা হোসেন ৫০০ ডিভিডেন্ট শেয়ারের মালিক। 

প্রকাশিত প্রতিবেদনে দুদকের অনুসন্ধান ও নথির উল্লেখ আছে। প্রাথমিক অনুসন্ধানে হেলালের যেসব সম্পদের তথ্য পেয়েছে দুদক তা-ই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। তথ্য, প্রমাণ ও নথিপত্রের আলোকেই লেখা এ প্রতিবেদনে প্রতিবেদকের নিজস্ব কোনও বক্তব্য নেই।

 

/ডিএস/টিএন/

লাইভ

টপ