বিচারপতি নিয়োগের পরে নয়, আগেই তদন্ত করা উচিত: মাহবুব উদ্দিন খোকন

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৮:২২, অক্টোবর ১৭, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:২৪, অক্টোবর ১৭, ২০১৯

single pic template-1-Recovered-Recoveredবিচারপতি নিয়োগের আগেই তদন্ত করা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। তিনি বলেন, ‘বিচারপতি পদে নিয়োগের পরে তদন্ত না করে আগেই তাদের যোগ্যতা ও সততা সম্পর্কে তদন্ত করে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। শুধু রাজনৈতিক আনুগত্যের কারণে কাউকে সুপ্রিম কোর্টের বিচারক নিয়োগ করা কোনও ভাবেই বাঞ্ছনীয় নয়।’ বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

কিছুদিন আগে সুপ্রিম কোর্টের তিন বিচারপতির বিরুদ্ধে দুর্নীতির তদন্ত শুরু হয়। তবে আরও অনেক বিচারপতির বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগের গুঞ্জন রয়েছে বলে এ সময় মাহবুব উদ্দিন খোকন দাবি করেন।  

তিনি বলেন, ‘সংবিধানের ৯৫ (২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী হাইকোর্ট বিভাগের ২০১৭ সালের ১৩ এপ্রিলের রায়ের আলোকে বিচারক নিয়োগের নীতিমালা প্রণয়ন করে বিচারপতি নিয়োগের দাবি জানাচ্ছি আমরা। কেননা, ওই রায়ে বর্তমান নিয়োগ প্রক্রিয়া আরও স্বচ্ছ, কার্যকর ও বস্তুনিষ্ঠ করার প্রয়োজনের সাতটি যোগ্যতা নির্ণায়ক হিসেবে উল্লেখ করেছেন আদালত। হাইকোর্টের পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে, সুপ্রিম কোর্টের নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রার্থীকে অবশ্যই সংবিধানের অষ্টম অনুচ্ছেদে রাষ্ট্রপরিচালনার মূলনীতির প্রতি অকৃত্রিম আনুগত্য থাকতে হবে এবং মেধা সম্পন্ন, পেশাগতভাবে দক্ষ, সূক্ষ্ম বিচারিক শক্তি ও ন্যায়পরায়ণতা সম্পন্নদেরই কেবল সুপারিশ করা যাবে। তাছাড়া একটি স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ নিয়োগ প্রক্রিয়া নিশ্চিত করতে সব যোগ্যতা সম্পন্ন ইচ্ছুক প্রার্থীদের সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদনের সুযোগ দিতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগে নতুন বিচারপতি নিয়োগের ব্যাপারে সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা গেছে। কিন্তু বিচারক নিয়োগের নীতিমালা বা নিয়োগের ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টের রায়ের নির্দেশনা পালন সম্পর্কে কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে প্রতীয়মান হয় না। এ অবস্থায় বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিশ্চিত ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সংবিধানের ৯৫ (২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী হাইকোর্ট বিভাগের রায়ের আলোকে বিচারক নিয়োগের নীতিমালা প্রণয়ন করে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগে নতুন বিচারপতি নিয়োগের দাবি জানাচ্ছি।’

 

/বিআই/এমএএ/

লাইভ

টপ