হাইকোর্টে বিচারপতি নিয়োগ ইস্যুতে আইনজীবীদের মতবিরোধ

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:৩৮, অক্টোবর ২১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৫৯, অক্টোবর ২১, ২০১৯

আইনজীবীহাইকোর্ট বিভাগের ৯ জন বিচারপতি নিয়োগ ইস্যুতে মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। সাধারণ সম্পাদকের অভিযোগ, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে সাজা দেওয়ার পুরস্কার হিসেবে দুই জনকে বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে সরকার। জবাবে সভাপতি বলছেন, ‘কারও বিরুদ্ধে কোনও বিচারপতি রায় দিলে তিনি খারাপ’ এমন মনোভাব ঠিক নয়। সোমবার (২১ অক্টোবর) সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনে হাইকোর্ট বিভাগের ৯ বিচারপতির নিয়োগ ইস্যুতে তারা এমন প্রতিক্রিয়া জানান।

কোনও বিচারপতির নাম উল্লেখ না করেই সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, ‘যোগ্যতাসম্পন্ন অনেক বিচারক থাকার পরও এই দু’জনকে কেন নিয়োগ দেওয়া হলো? খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সাজা দেওয়াই কি তাদের নিয়োগের মাপকাঠি? তারা দুই জনই অবসর-পরবর্তী ছুটিতে চলে গেছেন। এরপরও তাদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।’

পরে সমিতির সভাপতি এএম আমিন উদ্দিন বলেন, কারও বিরুদ্ধে রায় দিলে একজন বিচারক খারাপ হয়ে গেলেন, এ ধরনের মনোভাব ঠিক নয়। একজন বিচারক অনেক রায় দেন, দুই-একটি রায় নিয়ে প্রশ্ন তোলা অযৌক্তিক। কোনও রায়ে ক্ষুব্ধ হলে উচ্চতর আদালত আছে। কিন্তু রায় বিরুদ্ধে গেলে আইনজীবী হিসেবে ওই রায়ের বিরুদ্ধে কথা বলা কাম্য নয়। আমি জানি না তিনি (মাহবুব উদ্দিন খোকন) বিচারপতি নিয়োগ নিয়ে কিছু বলেছেন কিনা, যদি বলে থাকেন তাহলে আমি নিশ্চিত রাজনীতিবিদ হিসেবে এ কথা বলেছেন।’

আমিন উদ্দিন আরও বলেন, ‘তিনি (মাহবুব উদ্দিন খোকন) নবনিযুক্ত বিচাপতিদের সংবর্ধনা দিয়েছেন। যে দুই জনকে সংবর্ধনা দেননি, তারা যেহেতু খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রায় দিয়েছেন, সেহেতু তারা সংবর্ধনা দেননি। তারা রায়ের (খালেদা জিয়ার দুই মামলায়) বিরুদ্ধে আপিল করেছেন।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত ২০ অক্টোবর হাইকোর্ট বিভাগে ৯ জন বিচারপতিকে নিয়োগ দেন রাষ্ট্রপতি। নবনিযুক্ত বিচারপতিরা হলেন—বিচারপতি কাজী এবাদত হোসেন, বিচারপতি কে এম জাহিদ সারওয়ার কাজল, বিচারপতি কাজী জিনাত হক, বিচারপতি মো. মাহমুদ হাসান তালুকদার মিণ্টু, বিচারপতি ড. জাকির হোসেন, বিচারপতি সাহেদ নুর উদ্দিন, বিচারপতি ড. আখতারুজ্জামান, বিচারপতি একেএম জহিরুল হক ও বিচারপতি মাহবুবুল ইসলাম।

/বিআই/এমএনএইচ/এমওএফ/

লাইভ

টপ