সারাদেশে শত কোটি টাকার কারেন্ট জাল জব্দ

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০১:৩১, অক্টোবর ২৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০১:৩২, অক্টোবর ২৪, ২০১৯

ইলিশ সংগ্রহে নিষেধাজ্ঞা

একদিনে দেশের বিভিন্ন নদী ও কারাখানা থেকে একশ’ চার কোটি ৯২ লাখ টাকার কারেন্ট জাল জব্দ করেছে নৌপুলিশ। মঙ্গলবার দিনব্যাপী এক যোগে দেশের বিভিন্ন নদীতে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। বুধবার (২৩ অক্টোবর) নৌপুলিশ সদর দফতরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফরিদা রানু বাংলা ট্রিবিউনকে এই তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘ইলিশ ধরা নিষেধ থাকা সত্ত্বেও দেশের বিভিন্ন নদীতে মাছ ধরা অব্যাহত রাখায় এসব কারেন্ট জাল জব্দ করা হয়েছে।’

ফরিদা রানু আরও বলেন, ‘নৌপুলিশের একটি টিম মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুরে দশকানী, বিসিক এলাকা ও গোসাইবাগে কারেন্ট জাল তৈরির বিভিন্ন কারখানায় রেড দিয়ে তিন কোটি মিটার কারেন্ট জাল উদ্ধার করে, যার  আনুমানিক মূল্য  নব্বই কোটি টাকা। এছাড়াও চার লাখ মিটার মশারি বা নেট জাল জব্দ করা হয়েছে, যার আনুমানিক মূল্য এক কোটি চল্লিশ লাখ টাকা। একই সময় ২৩৪টি বেহুন্দী জাল জব্দ করা হয়, যার আনুমানিক মূল্য দেড় কোটি টাকা।’

এই ঘটনায় মৎস আইনের ৫(২)(ক) ধারায় মুন্সীগঞ্জের সদর থানায় একটি মামলা করেছে নৌপুলিশ। এতে ১৩ জনকে আসামি করা হয়েছে। অভিযানে একজনকে গ্রেফতার করতে পেরেছে পুলিশ, বাকি ১২ জন পলাতক। এছাড়াও অজ্ঞাতনামা আসামি করা করেছে অসংখ্য জনকে।

এছাড়াও নৌপুলিশ বিভিন্ন নদীতে ও জাল ফ্যাক্টরিতে অভিযান চালিয় ৩ কোটি ৪৫ লাখ ১১ হাজার ৫০০ মিটার কারেন্ট জাল জব্দ করেছে, যার আনুমানিক মূল্য ১০৪ কোটি ৯২ লাখ ৬৫ হাজার টাকা। এসময় ১৪৯৫ কেজি পরিমাণ মা ইলিশ জব্দ করা হয়, যার বাজার মূল্য ৭ লাখ ৪৭ হাজার ৫০০ টাকা। এসব ঘটনায় ১৪১ জন আটক হয়েছে।

আটক জাল পুড়িয়ে  ধ্বংস করা হয় এবং বিভিন্ন এতিমখানায় বিতরণ করা হয়েছে মাছগুলো। ৯৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা এবং ২৩ জনকে মোট ১ লাখ ১৯ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

আটক নৌকার মধ্যে ৪টি নৌকা পুলিশ হেফাজতে আছে, ১৬ টি ডুবিয়ে ধ্বংস করা হয়। ৫টি বাল্কহেড আটক করে ৩৬ হাজার ৪০০ টাকা জরিমানা আদায় করে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।  

 

/এআরআর/এএইচ/

লাইভ

টপ