‘সুবিধা সবসময় নেতিবাচক নয়’

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:৪৫, নভেম্বর ০৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৫০, নভেম্বর ০৯, ২০১৯

‘সুবিধা বলতে সবসময় আমরা নেতিবাচক বিষয়ই বুঝি, কিন্তু সুযোগ সবসময় নেতিবাচক হয় না।’ ঢাকা লিট ফেস্টের নবম আসরের শেষ দিন শনিবার (৯ নভেম্বর) বাংলা একাডেমির লনে ‘প্রিভিলেজড’ শীর্ষক সেশনে এ কথাই বললেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ লেখিকা মনিকা আলী। এই সেশনে তার সঙ্গে ছিলেন নারাবাদী লেখিকা জারা রদ্রিগেজ ফাউলার ও প্রাবন্ধিক কেনন মালিক। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সাংবাদিক জেমস ক্র্যাবট্রি।
‘আমরা বৈষম্যের পৃথিবীতে বাস করি। আগে আমরা অধিকার নিয়ে কথা বলতাম, এখন আমরা সুবিধা নিয়ে কথা বলি। কিন্তু আমাদের বৈষম্যের সম্মুখীন হতেই হয়। সুবিধার কথা জানার আগে বৈষম্যের কথাই শুনি’— এই কথাগুলো বলে আলোচনার সূত্রপাত করেন সঞ্চালক জেমস ক্র্যাবট্রি।
এর পরিপ্রেক্ষিতে জারা রদ্রিগেজ ফাউলার বলেন, ‘আমি যখন ব্রাজিল থেকে ইংল্যান্ডে আসার পর অল্প বয়সেই নারীবাদ নিয়ে বই লিখি, তখন আমাকে ব্রাজিলিয়ান হিসেবে সবাই সমালোচনা করতো। আমার লেখা কেউ প্রকাশ করতে চায়নি। আমি একটি করপোরেট হাউজে ছোট্ট চাকরি করতাম। আমার প্রেমিক আমাকে ছেড়ে চলে যায়। তখন আমি কঠিন সময় পার করি। পরবর্তীতে আমার বই প্রকাশিত হয়, অল্পবয়সী লেখিকা হিসেবে আমার পরিচিতি ছড়িয়ে পড়ে।’
তিনি বলেন, ‘সেলিব্রিটি হওয়ার পর সবাই আমার সঙ্গে ভিন্ন আচার-আচরণ করতে শুরু করে। নানারকম সুবিধা পেতে শুরু করি আমি।’
মনিকা আলীকে উদ্দেশ্য করে জেমস ক্র্যাবট্রি বলেন, ‘আপনার বই ‘ব্রিক লেন’-এ নাজনীন চরিত্রটি অনেক সুবিধা পেয়ে থাকে সমাজ থেকে। চরিত্রটি সৃষ্টির ক্ষেত্রে কী মনে হয়েছিল আপনার?’
মনিকা আলী বলেন, ‘নাজনীন চরিত্রটি আসলে আমার মায়ের মতো… আমার মা গ্রাম থেকে ঢাকা শহরে আসে, পরবর্তীতে ইংল্যান্ডে। নাজনীনও গ্রাম থেকে ইংল্যান্ড আসে। আমার মা এবং নাজনীনের পরিবর্তনগুলো বিপরীত, কিন্তু আমি মাকে দেখেই চরিত্রটি কল্পনা করি। নেতিবাচক সুবিধা নিয়ে সমলোচনা করার জন্যই নাজনীনকে মায়ের বিপরীত আঙ্গিকে উপস্থাপন করি।’
কেনন মালিক বলেন, ‘সমাজ আমাদের নানা সুবিধা দেয়। আমি সায়েন্টিস্ট হিসেবে সমাজকে নিজের জ্ঞান দিয়ে সাহায্য করার চেষ্টা করি, কিন্তু গবেষণা করার সুবিধা সমাজ আমাকে দিয়েছে।’
জারা রদ্রিগেজ ফাউলার বলেন, ‘সমাজের মানুষ আপনাকে আঙুল তুলে কথা বলবে, যখন আপনার পরিচয় থাকবে না। পরিচয় তৈরি হওয়ার পরে আপনি সুবিধা পেতে শুরু করবেন।’
দর্শকসারি থেকে একজন বলেন, ‘আমি নারী হিসেবে কোনও সুযোগ পেতে চাই না, কিন্তু সবাই নারী হিসেবে নানা সুবিধা দেয়, তখন আসলে কী করা উচিত?’
জারা রদ্রিগেজ ফাউলার এর জবাবে বলেন, ‘সমাজে নারীদের সবচেয়ে বেশি ভোগান্তি পোহাতে হয়— সেক্সুয়ালি ও মেন্টালি। আবার সমাজ নারীকে সুবিধা বেশি দেয়।’ তবে সমাজ নারীকে সমান সুযোগ-সুবিধা দিতে জানে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

/এইচআই/

লাইভ

টপ