ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনহামলা করে কেন্দ্র দখলে নিয়েছে আ. লীগ: বিএনপি

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট১৬:৩৭, মার্চ ৩১, ২০১৬



বিএনপি
চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় পর্বে হামলা চালিয়ে গুলি করে রক্ত ঝরিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের সব কেন্দ্র আওয়ামী লীগ দখলে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে  বিএনপি। দলের সদ্য মনোনীত সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেন, সব কেন্দ্র সরকারদলীয় নেতাকর্মীরা দখলে নিয়ে ফেলেছেন। বৃহস্পতিবার বিকালে এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে দলের এ অবস্থান ব্যক্ত করেন তিনি।
রিজভী আহমেদ লিখিত বক্তব্যে বলেন, কেরানীগঞ্জে আজ সকালে ভোট গ্রহণ শুরু হওয়ার পরপরই হজরতপুর ইউনিয়নে আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলায় বিএনপি নেতা কাজী হালিমের পুত্র বিএনপিকর্মী কাজী সাইদুল ইসলাম শুভ নিহত হন। সন্ত্রাসীদের এলোপাতাড়ি গুলিতে ৬ জনের বেশি বিএনপি নেতাকর্মী গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হন।
বিএনপির এই সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব আরও বলেন, গতকাল রাত থেকেই প্রশাসনের ছত্রচ্ছায়ায় আওয়ামী সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা অধিকাংশ ভোট কেন্দ্র দখলের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন। আজ সকাল থেকেই বেলা বাড়ার সাথে-সাথে কলাতিয়া ইউনিয়ন, কালিন্দি ইউনিয়ন, রহিতপুর ইউনিয়ন, তারানগর ইউনিয়ন, জিনজিরা ইউনিয়ন, আগানগর ইউনিয়ন, বাসতা ইউনিয়ন, কোন্ডা ইউনিয়ন, শুভাড্যা ইউনিয়ন ও তেগরিয়া ইউনিয়নের প্রায় সবকটি কেন্দ্রই সশস্ত্র ক্যাডাররা দখল করে নিয়েছেন। 


রিজভী আহমেদ বলেন, চট্টগ্রামের কয়েকটি উপজেলা, যশোর, মাগুরা, জামালপুর নাটোর, বগুড়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন স্থানে বিএনপির নির্বাচনি এজেন্ট, পোলিং এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। এসব এলাকায় বিএনপির স্থানীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করা হয় বলেও দাবি করা হয় সংবাদ সম্মেলনে। 
রিজভী আহমেদ বলেন, আজকের নির্বাচনে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার আমান উল্লাহ আমানের নির্বাচনি এলাকায় ৬টি ইউনিয়নের সব কয়টি নির্বাচনি কেন্দ্রের বিএনপির সব পোলিং এজেন্টকে বের করে দিয়ে আওয়ামী পোলিং এজেন্ট ও পুলিশের সহযোগিতায় আওয়ামী সন্ত্রাসীরা জাল ভোট দিচ্ছে।  এর মধ্যে হজরতপুর ইউনিয়নে মধুরচর প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামী সন্ত্রাসী রানা মোল্লা পুলিশের সহযোগিতায় গুলিবর্ষণ করলে ২জন গুলিবিদ্ধ হয়ে ১ জন মারা যান। বেশকিছু লোক আহত হন। 
রিজভী আহমেদ বলেন, চট্টগ্রাম জেলার সন্দ্বীপ উপজেলায় ১২টি ইউনিয়ন নির্বাচনের সব ইউনিয়ন সকাল ১০টার মধ্যে দখল করে আওয়ামী প্রার্থীদের বিজয়ী ঘোষণা করে, সন্দ্বীপ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান ও তার ভাগিনা সন্দ্বীপ পৌরসভা মেয়র টিটুর নেতৃত্বে । 
/এসটিএস/এমএনএইচ/

লাইভ

টপ