প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে সরকারি নাটক শেষই হচ্ছে না: রিজভী

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৩:০২, অক্টোবর ১৬, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:১৯, অক্টোবর ১৬, ২০১৭

বিএনপির সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন রিজভীপ্রধান বিচারপতিকে নিয়ে সরকারি নাটক শেষই হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, ‘তিনি (প্রধান বিচারপতি) অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার পর হঠাৎ করে তার বিরুদ্ধে দুনীতি, অর্থপাচার, নৈতিক স্খলনসহ ১১টি অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, প্রধান বিচারপতিকে বাদ দিয়ে আপিল বিভাগের অন্য বিচারপতিদের ডেকে নিয়ে রাষ্ট্রপতি বৈঠক করেছেন এবং তাদের বুঝিয়েছেন। দেশের সংবিধান বিশেজ্ঞরাও বলছেন, এটা সংবিধানে নেই। প্রধান বিচারপতিকে বাদ দিয়ে আপিল বিভাগের অন্য বিচারপতিদের নিয়ে বৈঠক করে রাষ্ট্রপতিও সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন।’
সোমবার (১৬ অক্টোবর) বেলা ১১টার দিকে নয়াপল্টনে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব কথা বলেন।
কোনও প্রধান বিচারপতির বিদেশ যাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে ১১ দফা অভিযোগ উত্থাপনকে সুপ্রিম কোর্টের ইতিহাসের নজিরবিহীন ঘটনা উল্লেখ করে সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, ‘বিচার বিভাগের সর্বোচ্চ মর্যাদার আসনটিকে এভাবে কালিমালিপ্ত করার ঘটনা ইতিহাসে আর কখনও ঘটেনি। জনগণ কোনটি বিশ্বাস করবে, তাকে ছুটি দিয়ে বিদেশ পাঠানো, ক্যান্সার রোগজনিত অসুস্থতা নাকি তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ?’
রিজভী আরও বলেন, ‘প্রধান বিচারপতিকে দেশ ছাড়তে বাধ্য করার পর এখন চূড়ান্ত পদক্ষেপ হিসেবে তাকে পদত্যাগ করাতেই হঠাৎ এসব অভিযোগ তোলা হয়েছে বলে জনগণ বিশ্বাস করে। রাষ্ট্রপতি যদি প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে এত অভিযোগ পেয়েই থাকেন, তাহলে তিনি সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদ প্রয়োগ করলেন না কেন— সেই প্রশ্নই এখন আইনি অঙ্গনে ঘুরপাক খাচ্ছে।’
রিজভী বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার একটি বিবৃতি দিয়েছেন। এটা ইতিহাসে নজিরবিহীন ঘটনা। আবার অ্যাটর্নি জেনারেল বলেছেন, প্রধান বিচারপতির পক্ষে ফিরে এসে দায়িত্ব নেওয়া সুদূর পরাহত। গতকাল আইনমন্ত্রী বলেছেন, অভিযোগ সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত প্রধান বিচারপতি নিজের পদে বসতে পারবেন না। এর মধ্যে রেজিস্ট্রার জেনারেলসহ সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসনে ব্যাপক রদবদল করা হয়েছে। অথচ প্রধান বিচারপতি অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার আগে বলেছিলেন, সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসনের রদবদল শুধু প্রধান বিচারপতির এখতিয়ার। প্রধান বিচারপতির বক্তব্য অনুযায়ী তাই আইন মন্ত্রণালয়ের এই প্রজ্ঞাপনও বেআইনি।’ এখন আদালত প্রাঙ্গণে যা ঘটছে তা সরকারপ্রধানের একক কর্তৃত্বের অধীনে বিচার বিভাগকে আনার জন্যই করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন রিজভী।
বিচারপতিদের সঙ্গে রাষ্ট্রপতির বৈঠকের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বিএনপির এই সিনিয়র নেতা বলেন, ‘প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়ার পর রাষ্ট্রপতি সেগুলোর বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা না নিয়ে কেন আপিল বিভাগের অন্য বিচারপতিদের নিয়ে বৈঠক করে অভিযোগ শোনালেন, তা এখন আর মানুষের বুঝতে বাকি নেই। তিনি দেশে থাকতে কেন এসব অভিযোগ তোলা হলো না? প্রধান বিচারপতি যাওয়ার আগ মুহূর্তে যে বিবৃতি জাতিকে দিয়ে গেছেন, তা সরকারকে নার্ভাস করে তুলেছে। তা থেকেই সরকার প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে এত অভিযোগের নাটক সাজাচ্ছে, তা জনগণের বুঝতে বাকি নেই।’ প্রধানমন্ত্রীর অদ্বিতীয় স্বৈরাচার হয়ে ওঠার পথের সব কাঁটা সরাতেই সরকার এমন নির্লজ্জ দুর্বৃত্তপনা দেখিয়েছে বলে মন্তব্য করেন রিজভী।
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে বিএনপির কর্মসূচি পালনের সময় দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের গ্রেফতারের নিন্দা জানান তিনি।

 

/এএইচআর/টিআর/

লাইভ

টপ