বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে মনোনয়ন বঞ্চিতদের বিক্ষোভ-ভাঙচুর

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২০:৩২, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০১, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৮

মনোনয়ন বঞ্চিতদের সমর্থকরা বিক্ষোভ করার সময় ঢিল ছুড়ে ভেঙে ফেলে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয় ভবনের কাঁচ।

বিএনপির মনোনয়ন না পেয়ে দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে তীব্র বিক্ষোভ করছে মনোনয়ন বঞ্চিতদের সমর্থকরা। শনিবার (৮ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় তারা বিএনপি হাইকমান্ডের কাছে সিদ্ধান্ত বদলের দাবিতে এই বিক্ষোভ শুরু করে। এ সময় দলীয় চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে ঢিল ছোড়াসহ ভাঙচুর করে তারা।

বিক্ষোভকারীদের মধ্যে রয়েছেন গোপালগঞ্জ-১ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী সেলিমুজ্জামান সেলিম, চাঁদপুর-১ আসনের এহসানুল হক মিলন (সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপি সরকারের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী), মানিকগঞ্জ-১ আসনে মনোনয়ন বঞ্চিত খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের ছেলে খন্দকার আব্দুল হামিদ ডাবলু, কুমিল্লা-৪ আসনের ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল আহসান মঞ্জুর সমর্থকরা।

মনোনয়ন বঞ্চিতরা ঢিল ছুড়লে ভেঙে যায় বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ের কাঁচ

চাঁদপুর-১ (কচুয়া) আসনে এহসানুল হক মিলনের বদলে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মোশাররফ হোসেন। কিন্তু এ খবরে বিক্ষুব্ধ হয়েছেন এহসানুল হক মিলনের সমর্থকরা। তাদের দাবি, মোশাররফ কেন্দ্রে পরিচিত হলেও এলাকায় তাকে কেউ চেনেন না। এ দাবি করে কচুয়া আসনে প্রার্থী বদলে মিলনকে প্রার্থীর দাবিতে আজ শনিবার ( ৮ ডিসেম্বর) দুপুরে প্রথমে নয়াপল্টনের দলীয় কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তালা লাগিয়ে সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদের কাছে প্রার্থী বদলের জন্য ১২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেয় তারা। রিজভী আশ্বস্ত করলে তারা সেখান থেকে দলীয় চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ের উদ্দেশে রওনা দেয়। বিকাল ৫টার দিকে এহসানুল হক মিলনের সমর্থকদের পাশাপাশি মনোনয়ন বঞ্চিত অপর নেতাদের সমর্থকরাও সেখানে বিক্ষোভ শুরু করে। সন্ধ্যা ৬টার দিকে কার্যালয়ে দেয়াল টপকে অনেকে ভেতরে প্রবেশ করার চেষ্টা করে এবং বাইরে থেকে কার্যালয় লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়ে মারে। এ সময় ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভির ক্যামেরাপারসন শাহ আলম ইটের আঘাতে আহত হন।

গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের সামনে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিতদের সমর্থকদের বিক্ষোভ

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শামসুদ্দিন দিদার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, বিক্ষোভের ঘটনায়, বিশেষ করে ভাঙচুরের ঘটনায় অনুপ্রবেশকারীরা জড়িত বলে সন্দেহ করছি। বড় একটি রাজনৈতিক দলে মনোনয়ন পাওয়া না পাওয়ার ক্ষোভ থাকাটা স্বাভাবিক। আশা করি এই ক্ষোভ কেটে যাবে।

এদিকে, দলীয় প্রার্থীর বদলে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী দেওয়ার খবরে ক্ষুব্ধ কুমিল্লা-৪ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল আহসান মঞ্জুর সমর্থকরা। গুলশান কার্যালয়ে তার সমর্থনে বিক্ষোভ করতে এসে জেলা যুবদলের এক সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, গতকাল আমাদের নেতার মনোনয়ন দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়। অথচ আজকে বাতিল করা হয়েছে। দেওয়া হয়েছে আবদুল মালেক রতনকে। যে কিনা আওয়ামী লীগের চর হিসেবে কাজ করে। আমাদের নেতা চারবার সংসদ সদস্য হয়েছেন। ২৪ মাস জেল খেটেছেন। অথচ তাকে বাদ দিয়েছে। আমরা এই সিদ্ধান্ত মানি না।

/এসটিএস/টিএন/এমওএফ/

লাইভ

টপ