ইলিয়াস আলী ফিরে আসবেন, আশা মির্জা ফখরুলের

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২২:৪১, এপ্রিল ১৭, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:৪৩, এপ্রিল ১৭, ২০১৯



ইলিয়াস আলী ও মির্জা ফখরুলনিখোঁজ বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলী ফিরে আসবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, “আমরা এখনও আশা করি ইলিয়াস আলী আমাদের মাঝে, তার পরিবারের মাঝে ফিরে আসবেন, তার ছোট্ট মেয়ে তাকে ‘বাবা’ বলে ডাকতে পারবে।”
বুধবার (১৭ এপ্রিল) রাতে বনানীতে ইলিয়াস আলীর বাসায় তিনি এসব কথা বলেন।
মির্জা ফখরুল ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা, বড় ছেলে আরবার ইলিয়াস ও ছোট মেয়ে সাইয়ারা নাওয়ালসহ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের খোঁজখবর নেন।
২০১২ সালের ১৬ এপ্রিল মধ্যরাতে মহাখালীর সাউথ পয়েন্ট স্কুলের সামনে থেকে ইলিয়াস আলীর গাড়ি উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর তার আর কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি।
মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি, যারা নিখোঁজ হয়ে গেছে, গুম হয়ে গেছে, তারা ফিরে আসবে।’
বিরোধীপক্ষকে দমাতে ক্ষমতাসীরা ‘নতুন নতুন কৌশল’ উদ্ভাবন করেছে দাবি করে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘ইলিয়াস আলীর একজন প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর, সাহসী মানুষ, যিনি কখনও নতি স্বীকার করেননি। তাকে তারা সরিয়ে দিয়েছে ভয়ের রাজত্ব সৃষ্টি করা, ভয়ের একটা ফোবিয়া তৈরি করার জন্য।’
মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এনফোর্সড ডিজঅ্যাপিয়ারেন্স বাংলাদেশে শুরু হয়েছে এই সরকার আসার পর থেকে। ২০১১-১২ সাল থেকে শুরু হয়েছে। এরপর আমাদের অনেক নেতাকর্মী, বিরোধী দলের নেতাকর্মী, ট্রেড ইউনিয়নের নেতা গুম হয়ে গেছেন। এদের কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি।’
মির্জা ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, ‘এখনও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি গুম আছেন। যেমন, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল আজমী, একজন ব্যারিস্টারসহ অনেকেই। ২০১৩ সালের দিকে যখন আন্দোলন চরম পর্যায়ে, সেই সময়ে একসঙ্গে অনেক ছাত্রনেতা গুম হয়েছেন। এর মধ্যে শাহিনবাগের মামুন, সুমন, মুন্নাসহ অনেকে। তাদের পরিবার আশা করে হয়তো তারা ফিরে আসবে কিন্তু এখনও ফিরে আসেনি। এরকম একটা নজিরবিহীন পরিবেশ সৃষ্টি করেছে এ সরকার।’
মির্জা ফখরুলের সঙ্গে ইলিয়াস আলীর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়া অন্যদের মধ্যে ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমানউল্লাহ আমান, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, নির্বাহী সদস্য আয়েশা সিদ্দিকা মানি, চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান প্রমুখ।

/এএইচআর/এইচআই/

লাইভ

টপ