খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়ার প্রপাগান্ডায় গোয়েন্দা সংস্থাগুলোও জড়িত: রিজভী

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৩:২১, এপ্রিল ১৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৩৯, এপ্রিল ১৮, ২০১৯

রুহুল কবির রিজভী

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়ার প্রপাগান্ডার সঙ্গে গোয়েন্দা সংস্থাগুলোও জড়িত বলে অভিযোগ করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।
রিজভী বলেন, ‘কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন মিডিয়ায় সূত্রবিহীন একটি খবর ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে যে, খালেদা জিয়া প্যারোলে দেশের বাইরে চলে যাচ্ছেন। এমনকি তারা তারিখও বলে দিচ্ছেন! কিন্তু বাস্তবতা হলো, বিএনপির কোনও সূত্র এমন কিছুই জানে না। অথচ সরকারপন্থী কয়েকটি মিডিয়া প্রতিদিন মনগড়া প্রপাগান্ডা চালিয়ে যাচ্ছে।’
রিজভী আরও বলেন, ‘প্যারোল নিয়ে সরকারি মিশন সাকসেসফুলের জন্য ক্ষমতাসীনরা চতুর রাজনীতিতে লিপ্ত রয়েছে। খালেদা জিয়া শারীরিকভাবে খুবই বিপর্যন্ত। হাত-পা নাড়াতে পারছেন না। আর্থ্রাইটিসের ব্যথার কারণে পা নাড়াতে পারছেন না। তাকে সুচিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে না।’
তিনি বলেন, ‘গতকাল বুধবারও চিকিৎসকরা বলেছেন, তার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আসছে না। এই অবস্থায় তিনি চাচ্ছেন পছন্দমতো বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে। কিন্তু এই সরকার তার জীবন হুমকির মুখে ফেলে সুদূরপ্রসারী স্বার্থসিদ্ধির ষড়যন্ত্র অব্যাহত রেখেছে। ’
বিএনপির এই নেতার দাবি, আইনজীবীরা বলেছেন খালেদা জিয়াকে যে মিথ্যা সাজানো মামলায় সাজা দিয়ে কারাগারে অন্যায়ভাবে বন্দি করে রাখা হয়েছে, তা সহজে জামিনযোগ্য। আইনি প্রক্রিয়ায় স্বাভাবিক পথে জামিনে মুক্তি চান তিনি। প্রধানমন্ত্রীকে বলবো, খালেদা জিয়াকে নিয়ে মাইনাস ফরমুলা বন্ধ করুন। ওয়ান ইলেভেনের সরকার মাইনাস-টু ফরমুলা বাস্তবায়ন করতে চেয়েছিল। কিন্তু জনগণের প্রাণপ্রিয় দেশনেত্রীর আপসহীন কঠোর ভূমিকায় তাদের সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছিল। তারা সফল হলে আজ আপনি প্রধানমন্ত্রী হতে পারতেন না।’
প্যারোলের নামে মাইনাস তত্ত্বের অশুভ চক্রান্ত করে লাভ হবে না উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ‘খালেদা জিয়ার জামিনে আর বাধা দেবেন না। আদালতে হস্তক্ষেপ বন্ধ করুন। আদালতের ওপর থেকে অবৈধ হস্তক্ষেপ বন্ধ হলেই আমাদের নেত্রী আইনি প্রক্রিয়ায় জামিনে বেরিয়ে আসবেন। আইনকে তার নিজের গতিতে চলতে দিন। অপতৎপরতা বন্ধ না করলে আপনাদের ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হবে।’
ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করেছে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা বলে দাবি করেন রিজভী। তিনি বলেন, ‘যৌন নিপীড়নের শিকার হওয়ার পর নুসরাতকে ডেকে নিয়ে সোনাগাজী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোসেন জিজ্ঞাসাবাদের নামে তাকে লাঞ্ছিত করে, সেই ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দিলেও তার কোনও বিচার হচ্ছে না।’
রিজভীর অভিযোগ, যে পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ সেই পুলিশ বাহিনীর কর্মকর্তাদের দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। সরকার পুলিশ প্রশাসনের কাছে পুরোপুরি আত্মসমর্পণ করেছে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সৎ সাহস হারিয়ে ফেলেছে সরকার।

/এএইচআর/এআর/এপিএইচ/এমওএফ/

লাইভ

টপ