সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আপসহীনভাবে রাজপথে থাকতে হবে: ড. কামাল

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২০:৩৬, সেপ্টেম্বর ০৭, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০১, সেপ্টেম্বর ০৭, ২০১৯

গণফোরামের-আলোচনা-সভায়-বক্তব্য-রাখছেন-ড.-কামাল-হোসেনঅবাধ-নিরপেক্ষ নির্বাচন আদায়ের লক্ষ্যে দলমত নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন। তিনি বলেন, ‘জনগণের ভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচনের জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আপসহীনভাবে রাজপথে থাকতে হবে। শুধু ঢাকা নয়, গ্রাম-শহর ও জেলা সব জায়গায় রাজপথে থাকতে হবে।’ শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) বিকালে রাজধানীর নাট্যমঞ্চে গণফোরামের ২৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।  

গণফোরামের আলোচনা সভাকে কেন্দ্র করে একাদশ সংসদ নির্বাচনের পরে সরকারবিরোধী প্রায় সব রাজনৈতিক দলের নেতারা একমঞ্চে উপস্থিত হয়। আলোচনা সভায় দীর্ঘদিন পরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বাম দলগুলোর শীর্ষ নেতাদের পাশাপাশি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুরও বক্তব্য রাখেন।

ড. কামাল বলেন, ‘পরিস্থিতি যেভাবে চলছে, এভাবে চলতে থাকলে আগামীতে দেশ আরও গভীর সংকটে পড়বে। সরকারের নিয়ন্ত্রণে জনগণ নেই। তারা বলছে, এ সরকার গণতান্ত্রিক সরকার। আমরা সবাই নির্বাচিত। কেউ যদি মনে করে ১৬ কোটি মানুষকে ভাঁওতা দিয়ে পার পেয়ে যাবেন, তাদের বলবো, ইতিহাসের দিকে তাকিয়ে দেখুন। মানুষ কখনও এ ধরনের ভাঁওতাবাজি মেনে নেয়নি।’

গণফোরামের-আলোচনা-সভায়-বিভিন্ন-রাজনৈতিক-দলের-নেতারা

মানুষের ১৬ আনা অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রাম করে যাওয়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে গণফোরাম সভাপতি বলেন, ‘সেই লক্ষ্যে এখনও রাজনীতি করে যাচ্ছি। তরুণ সমাজ ন্যায়, গণতন্ত্র ও সুশাসনের পক্ষে। তারা সংবিধানের মূলনীতির পক্ষে। মানুষ ক্ষমতার মালিক, এটা মেনে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’

আলোচনা সভায় জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রব বলেন, ‘এ সরকার রাতের বেলা ভোট ডাকাতির রেকর্ড করেছে। ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে আদর্শ কোনও বাধা হয় না আওয়ামী লীগের। তারা ক্ষমতায় থাকলে স্বৈরাচার হয় আর বিরোধী দলে থাকলে গণতন্ত্র চায়। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন হলে এ সরকার ২ ঘণ্টাও টিকতে পারবে না।’

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অস্তিত্ব নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে।’ 

বাংলাদেশ বিপ্লবী ওয়ার্কাস পার্টির সভাপতি সাইফুল হক বলেন, ‘আন্দোলনে জয়ী না হলে নির্বাচনেও জয়ী হওয়া যাবে না। পুরনো কথা হলোও এটাই বাস্তবতা।’

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি বলেন, ‘এ সরকার নতুন ধরনের স্বৈরতন্ত্র চালু করেছে। কিন্তু তাদের ক্ষমতা নেই, ঠিকমতো টোকা দিতে পারলে পড়ে যাবে।’

ডাকসু ভিপি নুরুল হক নূর বলেন, ‘ছাত্র সমাজ কোনও দলের বিরুদ্ধে নয়। আমরা অন্যায়ের বিরুদ্ধে। দেশের স্বার্থে সবাইকে কথা বলতে হবে। সবার দাবি এক। সব দলকে একমঞ্চে আসতে হবে।’

গণফোরামের আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান, গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক রেজা কিবরিয়া, নির্বাহী সভাপতি অধ্যাপক আবু সাঈদ, অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী প্রমুখ। 

/এএইচআর/এমএনএইচ/

লাইভ

টপ