বিকাল চারটার মধ্যে ছাত্রদলের কাউন্সিলরদের ঢাকায় থাকার নির্দেশ

Send
আদিত্য রিমন
প্রকাশিত : ০১:৩৯, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০২:০০, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯

বিএনপির ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন ছাত্রদলের ৬ষ্ঠ কাউন্সিলের ৫৬৬ জন কাউন্সিলরকে বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকাল চারটার মধ্যে ঢাকায় থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে সংগঠনটির কাউন্সিল প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত বিএনপির নেতাদেরও সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়। মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাতে গুলশা‌নে বিএন‌পি চেয়ারপারস‌নের রাজ‌নৈ‌তিক কার্যাল‌য়ে আদালতের নির্দেশে স্থগিত ছাত্রদলের কাউন্সিল নিয়ে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণে বৈঠকে বসেন সাবেক নেতা‌রা। সেই বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠ‌কে লন্ডন থে‌কে স্কাইপ এ যোগ দেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তা‌রেক রহমান।
সূত্র জানায়, বৈঠ‌কের পর রাতেই ফোন ক‌রে সারাদে‌শের কাউন্সিলরদের ঢাকায় আসতে বলা হয়ে‌ছে। তারা ঢাকায় এলে বৃহস্পতিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বৈঠক করে ছাত্রদলের কাউন্সিলের পরবর্তী তারিখসহ অন্যান্য করণীয় ঠিক করা হবে।
ছাত্রদলের কাউন্সিল উপলক্ষে গঠিত যাচাই-বাছাই কমিটির সদস্য বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী এ বিষয়ে বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ছাত্রদলের সকল কাউন্সিলরকে বুধবার বিকাল চারটার মধ্যে ঢাকায় থাকতে বলা হয়েছে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আদালতসহ বিভিন্ন বিষয় আছে। তাই তাদের ঢাকায় থাকতে বলা হয়েছে।’
ছাত্রদলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির তফসিল অনুযায়ী, ১০টি সাংগঠনিক বিভাগের ১১৬টি শাখায় মোট ৫৬৬ জন ভোটার (কাউন্সিলর) রয়েছেন। এর মধ্যে বরিশাল বিভাগের ৯টি শাখায় ৪৫ ভোট, ঢাকা বিভাগের ২৯টি শাখায় ১৩৮ ভোট, চট্টগ্রাম বিভাগের ১২টি শাখায় ৫৮ ভোট, কুমিল্লা বিভাগের ৬টি শাখায় ৩০ ভোট, খুলনা বিভাগের ১৪টি শাখায় ৭০ ভোট, ময়মনসিংহ বিভাগের ৯টি শাখায় ৪৫ ভোট, রাজশাহী বিভাগের ১১টি শাখায় ৫২ ভোট, সিলেট বিভাগের সাতটি শাখায় ৩৫ ভোট, রংপুর বিভাগের ১৩টি শাখায় ৬৩ ভোট ও ফরিদপুর বিভাগের ছয়টি শাখায় ৩০ ভোট রয়েছে।

কাউন্সিল প্র‌ক্রিয়া থে‌কে স‌রে দাঁড়ালেন বিএন‌পি নেতারা
ছাত্রদলের কাউন্সিল প্রক্রিয়া থে‌কে সরে দাঁড়িয়ে‌ছেন বিএনপি ‌নেতারা। আদালতের নিষেধাজ্ঞার কারণে সংগঠনটির নতুনভাবে শুরু হওয়া কাউন্সিলের প্রস্তুতি থেকে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়। সূত্র জানায়, আদালতের নিষেধাজ্ঞার পর বিএনপি প্রমাণ করতে চাইছে- তাদের এই কাউন্সিলের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ততা নেই। এক্ষে‌ত্রে গত ৯ জুন ছাত্রদলের কাউন্সিল উপলক্ষে সংগঠন‌টির সা‌বেক ১৬ জন নেতা‌র সমন্বয়ে নির্বাচন পরিচালনা, বাছাই ও আপিল কমিটি গঠন করা হয়। নেতারা স‌রে দাঁড়া‌নোর কার‌ণে এসব ক‌মি‌টির কার্যক্রম আর থাক‌ছে না।
এ বিষয়ে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন বলেন, ‘ছাত্রদলের কাউন্সিলের প্রস্তুতি কমিটিগুলো থেকে আমরা সরে দাঁড়িয়েছি। মামলায় যারা বিবাদী তারা আইনগতভাবে কিছু করবেন। কয়েকদিন আগে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ছাত্রদলের কাউন্সিলের বিষয় ছাত্রদলই দেখবে। সেই অনুযায়ী, আজকে কাউন্সিলররা সভা ডেকেছেন। তারা সভায় সভাপতিত্ব করেছেন। সবকিছু তারাই করেছেন।’
প্রসঙ্গত গত ১৪ সেপ্টেম্বর ছাত্রদলের ৬ষ্ঠ কাউন্সিল হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ১২ সেপ্টেম্বর সদ্য বিলুপ্ত কমিটির (রাজিব-আকরাম কমিটি) সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আমানউল্লাহ আমানের এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ছাত্রদলের কাউন্সিলে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন আদালত। একই সঙ্গে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, খায়রুল কবির খোকনসহ ১০ জন বিবাদীকে ১০ দিনের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে। ঢাকার ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র চতুর্থ সহকারী জেলা জজ ফারজানা আক্তার এ আদেশ দেন।

১৯ সেপ্টেম্বর আদালতে যাবেন বিএনপির নেতারা
ছাত্রদলের কাউন্সিলের সঙ্গে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের সরাসরি যুক্ত থাকার অভিযোগে বিবাদী ১০ নেতা আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর আদালতে গিয়ে নোটিশের জবাব দেবেন। নোটিশের জবাব তৈরি করছেন বিএনপি আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বিএনপির ১০ নেতাকে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে। আমরা যথাসময়ে আদালতে জবাব দেবো।’ এ বিষয়ে শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী বলেন, ‘বৃহস্পতিবার আমাদের আদালতে যাওয়ার কথা রয়েছে।’

আগামী সপ্তাহে ছাত্রদলের কাউন্সিল
আগামী সপ্তাহে স্থগিত হওয়া ছাত্রদলের ষষ্ঠ কেন্দ্রীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেই অনুযায়ী নতুন করে সংগঠনটির নির্বাচন পরিচালনায় ‘প্রস্তুতি কমিটি’ গঠন করা হচ্ছে। বিএনপির নেতারা জানান, এবার ছাত্রদলের নির্বাচন পরিচালনায় সংগঠনটির সর্বশেষ বিলুপ্ত কমিটি ও ঢাকা মহানগরের সিনিয়র নেতাদের সমন্বয়ে প্রস্তুতি কমিটি করা হবে। ছাত্রদলের মধ্য থেকে এ কমিটি গঠন করা হলে সেক্ষেত্রে আর আইনিভাবে কোনও সমস্যায় পড়তে হবে না।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী বলেন, ‘গণতান্ত্রিক নিয়মে ছাত্রদলের আগামী নেতা নির্বাচন করা হবে। তবে এ মুহূর্তে ছাত্রদলের নতুন কাউন্সিলের তারিখ কবে তা বলতে পারছি না। সংগঠনটির নেতারা বসে কাউন্সিলের তারিখ ঠিক করবেন।’

 

 

 

/ওআর/

লাইভ

টপ