ইউপি নির্বাচনে দুই দফায় ১৭৮ জনের প্রার্থিতা বাতিলের অভিযোগ বিএনপির

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১২:৪৬, মার্চ ০৬, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:০৭, মার্চ ০৬, ২০১৬

প্রশাসনের ছত্রছায়ায় দেশজুড়ে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী ও সমর্থকরা জনগণের ভোট কেড়ে নিচ্ছে। এখন তাদের সঙ্গে যোগ দিয়ে বিএনপিকে হারানোর নীলনকশা করছে  নির্বাচন কমিশন। রবিবার বেলা ১১টায় রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ এসব কথা বলেন।

রুহুল কবির রিজভী

তিনি বলেন, দুই দফা মিলে মোট ১৭৮ জন বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান আসন্ন ইউপি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। সরকার দলীয় নেতাদের ত্রাসের রাজত্ব কায়েমে এই সংখ্যা প্রতিদিনই বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই সন্ত্রাসী তাণ্ডবের সময় নির্বাচন কমিশনের শেষ বুলেট খরচ করার কোনও আহ্বান এলো না কেন এমন প্রশ্ন করেন তিনি।

রিজভী বলেন,  নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য বিএনপি’র অসংখ্য প্রার্থীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের কাছে শত অভিযোগের পরও  তারা  নির্লজ্জভাবে নির্বাচনি সহিংসতাকে কোনও আমলে নেননি। নির্বাচন কমিশনের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনাদের নির্লিপ্ততার কারণেই প্রথম দফায় ৮৩ জন, দ্বিতীয় দফায় ৫৮ জন বিএনপি প্রার্থী সরকারি দলের সন্ত্রাসীদের বাধায় মনোনয়ন পত্র জমা দিতে পারেননি, ৩৭ জন বিএনপি’র প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পরও জোর করে সেসব প্রত্যাহার করা হয়েছে অথবা ঠুনকো অভিযোগে তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন জাতির কাঁধে সিন্দাবাদের দৈত্যের মতো চেপে বসা নিজেদেরও অতীত অর্জন এবং বর্তমান সাংবিধানিক দায়িত্ববোধকে ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে নিক্ষেপ করেছেন।

বিএনপির এই নেতা বলেন,  জনগণ এখন আপনাদেরকে জাতির অভিশাপ হিসেবেই বিবেচনা করছে। আপনারা রাষ্ট্রের একটি স্বাধীন প্রতিষ্ঠান নন, বরং একটি প্রক্সি গভর্নমেন্টের প্রক্সি কমিশন হিসেবেই জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে চিহ্নিত হচ্ছেন।

অভিযোগ করে রিজভী বলেন, পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার বহরমপুর ইউনিয়ন, খুলনা জেলা ও ব্রাহ্মণবাড়ীয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার সাইফুল্লাহকান্দি ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী সন্ত্রাসীদের প্রচণ্ড হুমকির মুখে বিএনপির প্রার্থীরা গণসংযোগ করতে পারছেন না। অনেক প্রার্থী এলাকাছাড়া, ঘরছাড়া। স্থানীয় আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোও বিএনপি’র প্রার্থী ও নেতাকর্মীদের ক্রসফায়ারের হুমকি দিচ্ছে। নির্বাচনি এলাকায় আতঙ্ক ও ভয় ছড়িয়ে পড়েছে।

টিকেট প্রত্যাশীদের ওপর পুলিশের হামলায় বিএনপির নিন্দা, প্রতিবাদ

রবিবার মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে এশিয়া কাপ ফাইনাল ক্রিকেট খেলা দেখার জন্য টিকেট প্রত্যাশীরা টিকেট না পেয়ে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে পুলিশ বিনা উস্কানিতে ক্রীড়ামোদী মানুষের ওপর বেপরোয়া আক্রমণ চালিয়ে ব্যাপক সংঘর্ষের সূত্রপাত ঘটায়। এতে অসংখ্য মানুষ আহত হয়। ব্যাপক লাঠিচার্জ ও নির্বিচারে টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে পুলিশ যে নিষ্ঠুর আচরণ করেছে তা নজিরবিহীন। টিকেট প্রত্যাশীদের ওপর নৃশংস হামলার তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ক্ষোভ জানায় বিএনপি।

 

বিএনপির কাউন্সিল:

বিএনপির জাতীয় কাউন্সিলে যোগদানের জন্য কাউন্সিলরদেরকে আগামী ১৬ মার্চ  সকাল ১০ টা থেকে ১৮ মার্চ বিকেল ৪টা পর্যন্ত দলের নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে কাউন্সিলর কার্ড সংগ্রহ করতে হবে। ১৯ মার্চ সকাল ৯টার মধ্যে কাউন্সিলদেরকে কাউন্সিল স্থলে উপস্থিত হতে হবে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসিচব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে।

উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়রকে বিএনপির ধন্যবাদ:

বিএনপির জাতীয় সম্মেলন ও কাউন্সিল উপলক্ষে ঢাকা শহরকে পোস্টারকে, ব্যানার , বিলবোর্ড দিয়ে সুসজ্জিতকরণের জন্য অনুমতি চেয়ে দলের পক্ষ থেকে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণের মেয়রদেরকে চিঠি দেওয়া হয়। উত্তরের মেয়র আনিসুল হক আমাদেরকে ইতিবাচক চিঠি দিয়েছেন। এ জন্য তাকে ধন্যবাদ। আমরা আশা করছি দক্ষিনের মেয়র একই ধরনের ইতিবাচক মনোভাব দেখাবেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সালাম, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন আলম,  শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, সহ দফতর সম্পাদক আব্দুল লতিফ জনি প্রমুখ।

/এসটিএস/টিএন/

লাইভ

টপ