সামর্থ্যের প্রমাণ দিতে না পেরে হতাশ মুশফিক

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২২:৪০, অক্টোবর ০৮, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:২৭, অক্টোবর ০৯, ২০১৭

মুশফিকুর রহিমদক্ষিণ আফ্রিকায় সবসময় কঠিন পরীক্ষা দিতে হয় অতিথি দলকে। বাংলাদেশ তো দুই টেস্টে বিধ্বস্তই হয়েছে বলা যায়। আর এটাই সবচেয়ে কষ্ট দিচ্ছে মুশফিকুর রহিমকে। প্রতিকূল কন্ডিশনে সামর্থ্যের প্রমাণ দিতে না পেরে হতাশ বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক।

গত কয়েক বছরে টাইগাররা অনেক বদলে গেছে, উদ্ভাসিত হয়েছে অনেক সাফল্যে। শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে টেস্ট সিরিজ ড্রয়ের আত্মবিশ্বাস নিয়ে এবার দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে পা রেখেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু অবস্থার হেরফের হয়নি, ৯ বছর আগের মতো এবারও দুই টেস্টেই বিশাল ব্যবধানে হেরেছে।

বদলে যাওয়া বাংলাদেশের এমন করুণ চেহারায় মুশফিক ভীষণ হতাশ। রবিবার খেলাশেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, ‘এই ধরনের উইকেটে আমরা খুব বেশি খেলার সুযোগ পাই না। হয়তো বলতে পারেন এটা চিরাচরিত দক্ষিণ আফ্রিকান উইকেট না যে এখানে অনেক মুভমেন্ট বা বাউন্স আছে। তারপরও এখানে উপমহাদেশের দলগুলোকে অনেক সংগ্রাম করতে হয়। এই দুই টেস্টে যা খেলেছি, তার চেয়ে অনেক ভালো করার সামর্থ্য আছে আমাদের। তাই খারাপ লাগছে। আমাদের সামর্থ্যের শতভাগ ক্রিকেট-বিশ্বকে দেখাতে পারিনি।’

তবে সবকিছু শেষ হয়ে যায়নি বলেই মনে করেন তিনি, ‘এভাবে হেরে যাওয়া সত্যিই হতাশাজনক। তবে আমি বলবো না যে আমাদের আগের সব অর্জন মুছে গেছে। এমন কন্ডিশনে খেলতে হলে কীভাবে প্রস্তুত হতে হবে, তার বার্তা পেয়েছি আমরা।’

বিশ্রাম নেওয়ায় টেস্ট সিরিজে খেলেননি সাকিব আল হাসান। দ্বিতীয় টেস্টে ইনজুরির কারণে খেলতে পারেননি তামিম ইকবাল। দলের দুই সেরা ক্রিকেটারকে না পাওয়ার বেদনা ফুটে উঠলো মুশফিকের কণ্ঠে, ‘দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমাদের দুজন সেরা খেলোয়াড় খেলেনি। এটা বড় ধাক্কা ছিল আমাদের জন্য। এমন দুই-তিনজন ব্যাটসম্যান এখানে খেলেছে, যারা নিশ্চিত না পরের সিরিজে খেলবে কিনা। এরকম পরিস্থিতি তাদের জন্য কঠিন।’

তবে সতীর্থদের ব্যর্থতা থেকেই শেখার আহ্বান জানাচ্ছেন তিনি, ‘এখান থেকে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে। যারা এরপরে দক্ষিণ আফ্রিকা আসবে, তারা এবারের ভুলগুলো মাথায় রাখবে। আমার বিশ্বাস, আগামীতে টেস্ট ক্রিকেটে আমরা ভালো পারফর্ম করতে পারবো।’

/আরআই/এএআর/

লাইভ

টপ