উত্তেজনার ডালি সাজিয়ে আবার হাজির চ্যাম্পিয়নস লিগ

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৮:২৪, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৪৩, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮

জুভেন্টাসের অনুশীলনে পাউলো দিবালালম্বা বিরতি শেষে ফিরছে ইউরোপিয়ান ফুটবলের সবচেয়ে উত্তেজনাকর প্রতিযোগিতা চ্যাম্পিয়নস লিগ। শেষ ষোলোর লড়াই দিয়ে প্রায় দুই মাস পর আবার শুরু হচ্ছে ক্লাব শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই। মঙ্গলবার দিবাগত রাতে প্রথম লেগে সুইস ক্লাব এফসি বাসেলের মাঠে আতিথ্য নেবে ম্যানচেস্টার সিটি, আর জুভেন্টাসের মাঠে খেলতে যাবে টটেনহাম।

এবারের চ্যাম্পিয়নস লিগে টটেনহাম ছাড়াও খেলবে ইংল্যান্ডের আরও চার দল। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড মুখোমুখি হবে সেভিয়ার, লিভারপুর খেলবে পোর্তোর বিপক্ষে, আর চেলসির প্রতিপক্ষ বার্সেলোনা। শেষ ষোলোর সবচেয়ে উত্তেজনার দ্বৈরথ অবশ্য রিয়াল মাদ্রিদ-প্যারিস সেন্ত জার্মেইয়ের। বায়ার্ন মিউনিখ খেলবে বেসিকতাসের বিপক্ষে, আর শাখতার দনেৎস্কর প্রতিপক্ষ রোমা।

ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় জুভেন্টাস ইতিহাস-ঐতিহ্যে অনেক এগিয়ে। তবে চলতি মৌসুমে প্রিমিয়ার লিগে দারুণ সময় কাটাচ্ছে টটেনহাম। এবার চ্যাম্পিয়নস লিগেও নিজেদের মেলে ধরতে চায় ইংলিশরা। যদিও কঠিন পরীক্ষার সামনে পড়তে যাচ্ছে স্পাররা জুভেন্টাস স্টেডিয়ামে। নিজেদের মাঠে ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নরা অপরাজিত যে ২৬ ম্যাচে, যেখানে জিতেছে ১৬টিতে।

ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় এবারই প্রথমবার মুখোমুখি হচ্ছে দল দুটি। চ্যাম্পিয়নস লিগে দারুণ সময় কাটানো টটেনহাম গ্রুপ পর্বে অপরাজিত থেকে উঠেছে শেষ ষোলোয়, ৫ জয়ের সঙ্গে একটিতে করেছে ড্র। অন্যদিকে জুভেন্টাসকে দিতে হয়েছে কঠিন পরীক্ষা। গ্রুপ পর্বেই তারা পেয়েছিল বার্সেলোনাকে। শেষ পর্যন্ত রানার্স-আপ হয়ে নকআউট পর্বে নাম লিখিয়েছে।

প্রথমবার দেখা হলেও একটি পরিসংখ্যান এগিয়ে রাখছে জুভেন্টাসকে। ইতালির মাটিতে টটেনহামের পরিসংখ্যান মোটেও সুখের নয়। এই ম্যাচের আগে ইংলিশ ক্লাবটি আটবার খেলেছে ইতালিতে, যেখানে ৪ হারের বিপরীতে জিতেছে মাত্র একটিতে, বাকি তিন ম্যাচ হয়েছে ড্র।

বাসেলের সেন্ট ইয়াকব-পার্কে ম্যানসিটি নামবে কোয়ার্টার ফাইনাল ওঠার প্রথম মিশনে। জুভেন্টাস-টটেনহামের মতো তারাও এবারই প্রথম মুখোমুখি হচ্ছে ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায়। ফর্মের তুঙ্গে থাকা ম্যানসিটির বিপক্ষে যে স্বাগতিকদের কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে, সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। প্রিমিয়ার লিগে লিস্টার সিটিকে ৫-১ গোলে উড়িয়ে দিয়ে প্রস্তুতি সেরে নিয়েছে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা দলটি। ওই ম্যাচে হ্যাটট্রিক করে বাসেলের মাঠে নামতে যাচ্ছে সের্হিয়ো আগুয়েরো।

বাসেল অনুপ্রেরণা নিতে পারে গ্রুপ পর্বের ম্যাচ থেকে। ম্যানচেস্টারের আরেক ক্লাব ইউনাইটেডকে যে হারিয়ে দিয়েছিল তারা! তবে চ্যাম্পিয়নস লিগ যুগ শুরুর পর প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠার পথটা সহজ হবে না তাদের। সুইস ক্লাবটি ম্যানসিটির বিপক্ষে প্রথম নামতে গেলেও ইংলিশ দলটির কোচ পেপ গার্দিওলার ‘প্রিয়’ প্রতিপক্ষ কিন্তু বাসেল। ২০০৮ সালে গার্দিওলার বর্সেলোনা তাদের মাঠ থেকে ফিরেছিল ৫-০ গোলের বিশাল জয় নিয়ে। ওই ম্যাচের সুখস্মৃতি নিশ্চিতভাবেই সঙ্গী হিসেবে যাচ্ছে শেষ ষোলোর লড়াইয়ে।

প্রিমিয়ার লিগের আগের ম্যাচে দারুণ সময় কাটালেও চোট নিয়ে দুশ্চিন্তায় গার্দিওলা। চ্যাম্পিয়নস লিগের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে তিনি পাচ্ছেন না গাব্রিয়েল হেসুস ও লেরয় সানের মতো সেরা খেলোয়াড়দের।

তবে রোমাঞ্চের কমতি নেই শেষ ষোলোর ম্যাচ ঘিরে। উত্তেজনার ডালি সাজিয়ে আবার হাজির চ্যাম্পিয়নস লিগ।

/কেআর/

লাইভ

টপ