বিশ্বকাপ-ফুটবলে আগ্রহ নেই ব্রাজিলীয়দের!

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ১১:৫৪, জুন ১৩, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:১২, জুন ১৩, ২০১৮

ব্রাজিলীয়দের আগ্রহ কমেছে বিশ্বকাপে।

ব্রাজিলীয়দের আগ্রহ কমেছে বিশ্বকাপে। খবরটা বিস্ময় জাগানোর মতো। পাঁচবারের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল, যাদের বিশ্বকাপ উন্মাদনা নিয়ে নেই কোনও বিতর্ক। এমনকি ২০১৪ সালে জার্মানির কাছে সেমিফাইনালে লজ্জার হার যাদের এখনও তাড়িয়ে বেড়ায়, সেই দেশটিরই আগ্রহ নেই বিশ্বকাপে! এমন চমক জাগানো খবর জানা গেছে ডাটাফোলহার জরিপে।

তাদের জরিপ অনুসারে, ৫৩ শতাংশ ব্রাজিল নাগরিকের আগ্রহ নেই বিশ্বকাপে! এদের মাঝে নারীদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি, ৬১ শতাংশ। বয়স হিসেবে এই জনপ্রিয়তা ভাটা পড়েছে ৩৫ থেকে ৪৪ বছর বয়সীদের মাঝে।

স্বাভাবিকভাবে অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতেই পারে কেন এই অবস্থা? জরিপটি জানিয়েছে, আর্থিক দৈন্যদশাই এমন ভাটার অন্যতম কারণ। দৈনিক আয় নিয়েই যাদের সারাদিন ভেবে কাটাতে হয় তাদের কাছে বিশ্বকাপ নিয়ে ভাবনা বিলাসিতা। পরিসংখ্যানও বলে সে কথা, মাসিক ৫১০ মার্কিন ডলার আয় যাদের, সেসব পরিবারের একেবারেই আগ্রহ নেই বিশ্বকাপে।

প্রায় ২ হাজার ৮২৪ জনকে নিয়ে করা হয়েছে এই জরিপ। অবশ্য এমন ভাটার কারণ দেশটির রাজনৈতিক অবস্থা। রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক দুরবস্থার মাঝেও বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছে দেশটি। গতবারও যখন স্বাগতিক ছিল তখনও বিক্ষোভের কমতি ছিল না ব্রাজিলে। আর রাজনৈতিক এমন দশাকেই দায়ী করা হচ্ছে এমন ভাটায়।

নিয়েলসন স্পোর্টসের করা জরিপও বলছে প্রায় একই কথা। ২০১৩ সালের পর থেকেই ব্রাজিলের আগ্রহ কমেছে ফুটবলে! সেবারের তুলনায় জনপ্রিয়তা কমেছে অনেক। গতবার ছিল ৭২ শতাংশ। অথচ এবার তা কমে দাঁড়িয়েছে ৬০ শতাংশে। অবশ্য উপাত্তে ওঠা-নামার কারণ হিসেবে জরিপটি বলছে, ফর্ম এবং কোনও টুর্নামেন্টে দলটির অবস্থা বিবেচনায় নিয়েই ওঠা-নামা করে ব্রাজিলীয়দের ফুটবল আগ্রহ।

নিয়েলসনের দেওয়া তথ্যমতে, জনপ্রিয়তায় সবার ওপরে রয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। তাদের ৮০ শতাংশ মানুষেরই আগ্রহ ফুটবলে! এরপরেই রয়েছে থাইল্যান্ড, চিলি, পর্তুগাল, ও তুরস্ক (৭৫ শতাংশ)। ব্রাজিলের অবস্থান এদের মাঝে ১৩তম!

ফুটবলে জনপ্রিয়তা বাড়ার দিক দিয়ে এগিয়ে চীন। ২০১৩ সালে যাদের ফুটবলে জনপ্রিয়তা ছিল ২৭ শতাংশ, ২০১৭ সালে সেই আগ্রহ দাঁড়িয়েছে ৩২ শতাংশে। ভারতের ক্ষেত্রে তার ৩০ শতাংশ থেকে বেড়ে এখন দাঁড়িয়েছে ৪৫ শতাংশে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও বেড়েছে এর জনপ্রিয়তা, ২৮ থেকে ৩২ শতাংশ। তালিকায় ১৭তম স্থানে রয়েছে যুক্তরাজ্য।

/এফআইআর/চেক-এমওএফ/

লাইভ

টপ